দাউদকান্দিতে যৌতুকের জন্য স্ত্রীকে নির্যাতন - খবর তরঙ্গ
শিরোনাম :

দাউদকান্দিতে যৌতুকের জন্য স্ত্রীকে নির্যাতন



মোঃ আবু ইউসুফ, (খবর তরঙ্গ ডটকম)

যৌতুক না পেয়ে প্রেমিকা স্ত্রীকে সন্তানসহ মারধর করে ঘর থেকে তাড়িয়ে দেয়ার অভিযোগে গত ১৭ জুলাই কুমিল্লা জেলা পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে নারী ও শিশু সহায়তা সেলে স্বামী শ্বশুর, শাশুড়ি এবং দেবরের বিরুদ্ধে এক অভিযোগ দায়ের করেন মনি চৌধুরী নামে এক গৃহবধূ।

 

অভিযোগ সূত্রে জানা যায় দাউদকান্দি উপজেলার রায়পুর গ্রামের মৃত মমিন চৌধুরীর মেয়ে মনি চৌধুরী একই উপজেলার পেন্নাই গ্রামের মহি উদ্দীনের ছেলে মেহেদী হাসানের সঙ্গে ২০১৬ সালের ২২ মার্চ ৬ লাখ টাকা দেনমোহরে বিয়ে হয়। বিয়ের কয়েকমাস পর মেহেদী স্ত্রী মনির নিকট ২ লাখ টাকা যৌতুক দাবি করে। যৌতুকের টাকা দিতে অস্বীকার করলে মনির স্বামী, শ্বশুর-শাশুড়ি ও দেবর, মিলে তার উপর নির্মম নির্যাতন চালায়। নির্যাতন সহ্য করতে না পেরে বাবার বাড়িতে চলে আসে মনি। এরপর স্থানীয়ভাবে সালিশের মাধ্যমে আবারো মনিকে স্বামী মেহেদী হাসান বাড়িতে নিয়ে যায়। পরে মনির কোলজুড়ে এক মেয়ে সন্তান জš§ নেয়। মেয়ে সন্তান হওয়ার পরে আবারো যৌতুকের দাবিতে নির্যাতন শুরু করে মেহেদী।

 

মনি জানান মেয়ে সন্তান জন্ম নেয়ার পর থেকে শ্বশুর শাশুড়ি ও দেবর মিলে ২ লাখ টাকা যৌতুক দাবি করে, যৌতুকের টাকা না দেয়াতে গত বছর তাকে এবং তার সন্তানকে বাড়ি থেকে বের করে দেয়, সে থেকে গত এক বছর যাবত বাবার বাড়িতে থাকছেন মনি। গত ৫ জুলাই সকালে মেহেদী, মনিদের বাড়িতে এসে আবারো ২ লাখ টাকা যৌতুক দাবি করে। টাকা দিতে অস্বীকার করলে মেহেদী মনির গলাটিপে হত্যাচেষ্টা চালায়, এ সময় আমি চিৎকার করলে মেহেদী পালিয়ে যায় বলে অভিযোগে উল্লেখ করেন মনি।

মনি জানান মেহেদী মাদকাসক্ত প্রতিদিনই তার উপর নির্যাতন করতো। এছাড়াও মাদক কারবারের সঙ্গেও জড়িত এজন্য বেশ কয়েকবার জেলেও গেছে। শুধু সন্তানের মুখের দিকে তাকিয়ে তার সব অত্যাচার সহ্য করে গেছি কিন্তু দিন দিন তার অত্যাচার বাড়তে থাকে আর যৌতুকের দুই লাখ টাকার জন্য মারধোর করতো। মনি আরো জানান গত এক বছর মেহেদী আমার এবং আমার সন্তানের কোনো খোঁজ রাখেনি।

 

এ ব্যাপারে স্থানীয় চেয়ারম্যান মেম্বারদের জানালেও তারা কোনো ব্যবস্থা নেয়নি তাই নিরুপায় হয়ে পুলিশ সুপারের নিকট অভিযোগ দায়ের করি। মনি আরো বলেন গত ১৩ আগস্ট পুলিশ সুপারের অফিসে ডাকা হলেও তারা উপস্থিত হয়নি। এখন আমাকে হত্যার হুমকি দিচ্ছে, তার বিরোদ্ধে ওয়ারেন্ট থাকলেও পুলিশ তাকে গ্রেফতার করছে না। স্থানীয় সূত্রে জানা যায় মেহেদী মাদক কারবারের সাথে জড়িত এবং চিহ্নিত সন্ত্রাসী তাই তার বিরোদ্ধে কেউ কথা বলার সাহস পাচ্ছে না। তবে তারা মেহেদীর বিরোদ্ধে অপরাধ তদন্তে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়ার জন্য ঊর্ধ্বতন মহলের হস্তক্ষেপ কামনা করেন।

 

এ ব্যাপারে দাউদকান্দি থানার এএসআই ফিরোজ জানান মনি চৌধুরীর অভিযোগের ভিত্তিতে পুলিশ সুপার স্যারের পত্র পেয়ে উভয়পক্ষকে নোটিসের মাধ্যমে ১৩ আগস্ট পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে উপস্থিত হওয়ার জন্য বলা হলেও মেহেদী বা তার পরিবারের কেউ উপস্থিত হননি। তিনি আরো বলেন মেহদীর বিরোদ্ধে একাধিক মামলা রয়েছে এবং গ্রেফতার হয়ে জেলেও খেটেছে। এব্যাপারে মেহেদীর সাথে যোগাযোগ করার চেষ্টা করে তাকে না পাওয়ায় বক্তব্য নেয়া সম্ভব হয়নি।

 



এ সম্পর্কিত আরো খবর

কুমিল্লা এর অন্যান্য খবরসমূহ
দাউদকান্দি এর অন্যান্য খবরসমূহ
মানবাধিকার এর অন্যান্য খবরসমূহ