কুর্মিটোলায় বাসচাপায় দুই শিক্ষার্থীর মৃত্যু, সড়ক অবরোধ-গাড়ি ভাঙচুর - খবর তরঙ্গ
শিরোনাম :

কুর্মিটোলায় বাসচাপায় দুই শিক্ষার্থীর মৃত্যু, সড়ক অবরোধ-গাড়ি ভাঙচুর



নিউজ ডেস্ক, (খবর তরঙ্গ ডটকম)

রাজধানীর কুর্মিটোলা হাসপাতালের সামনে বাসচাপায় দুই শিক্ষার্থীর মৃত্যুর ঘটনায় প্রতিবাদে সড়ক অবরোধ ও গাড়ি ভাঙচুর করেছে শিক্ষার্থীরা। নিহতদের মধ্যে এক ছাত্র ও এক ছাত্রী রয়েছে।

 

সোমবার দুপুর সাড়ে ১২টায় র‌্যাডিসন হোটেলের উল্টোদিকে বাসচাপায় রমিজ উদ্দিন ক্যান্টনমেন্ট কলেজের দুই শিক্ষার্থী নিহত হয়েছেন। বিমানবন্দর সড়কের বাম পাশে বাসের জন্য অপেক্ষা করার সময় জাবালে নূর পরিবহনের একটি বাস তাদের চাপা দিলে এ দুর্ঘটনা ঘটে। নিহতরা হচ্ছেন দিয়া আক্তার মিম ও আব্দুল করিম।

 

সূত্রে জানা যায়, কুর্মিটোলায় হোটেল রেডিসনের সামনে জাবালে নূর পরিবহনের একটি বাস ওই শিক্ষার্থীদের চাপা দিলে ঘটনাস্থলেই তাদের মৃত্যু হয়েছে। এ ঘটনায় আহতদেরকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নেওয়া হয়।

 

জানা গেছে, নিহত দুই শিক্ষার্থী দিয়া আক্তার মিম ও আব্দুল করিম শহীদ রমিজউদ্দিন ক্যান্টনমেন্ট কলেজের শিক্ষার্থী। এ ঘটনায় ঘাতক বাস ও রাস্তায় ভাঙচুর-অগ্নিসংযোগ করে বিক্ষোভ করেছে ওই শিক্ষার্থীদের সহপাঠীরা।

 

এদিকে, ঘটনার পরপরই নিহত শিক্ষার্থীদের সহপাঠীরা সড়কে অবস্থান নিয়ে বেশ কয়েকটি গাড়ি ভাঙচুর করে। তারা জাবালে নূর পরিবহনের ওই বাসটিতে আগুন ধরিয়ে দেয়। প্রায় ২০ মিনিট পরে পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা করে ব্যর্থ হলে কলেজ কর্তৃপক্ষের সহায়তা নিয়ে বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীদের সড়ক থেকে সরিয়ে নেওয়া হয়েছে।

 

এদিকে যাত্রী কল্যাণ সমিতির সাধারণ সম্পাদক মোজাম্মেল হক চৌধুরী জানান, দুপুরে রাজধানীর হোটেল রেডিসনের সামনে ফুটপাতে দাড়িয়ে বাসের জন্য অপেক্ষমান কয়েকজন শিক্ষার্থীকে চাপা দেয় জাবালে নূর পরিবহনের একটি বাস। এতে ঘটনাস্থলেই ৩ ছাত্র ও এক ছাত্রী নিহত হন। আহত হন আরো অন্তত ৫ জন। দুইটা বাস পাল্লাপাল্লি করে প্রতিযোগিতামুলকভাবে চালাতে গিয়ে একটা রাস্তার সাইডে ফুটপাত ঘেষে গিয়ে সড়কের পাশে দাঁড়িয়ে থাকা শিক্ষার্থীদের চাপা দেয়।

 

তিনি আরো বলেন, যাত্রী কল্যাণ সমিতি কখনো মনগড়া রিপোর্ট প্রকাশ করে না। রিপোর্টে প্রকাশিত প্রতিটি সড়ক দুর্ঘটনার তথ্য প্রমাণ আমাদের হাতে আছে এবং থাকে। বহুবার সরকার নানাভাবে আমাদের রিপোর্ট নিয়েছে এবং যাচাই করে দেখেছে। নিরপরাধ ৪ ছাত্র-ছাত্রীর মৃত্যুতে বাংলাদেশ যাত্রী কল্যাণ সমিতির পক্ষ থেকে গভীরশোক ও দুঃখ প্রকাশ করছি।

 

গুলশান বিভাগের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আবদুল আহাদ জানান, দুর্ঘটনার খবর পেয়ে আমরা ঘটনাস্থলে গিয়েছি। এ পর্যন্ত আমরা একজনের মৃত্যুর সংবাদ পেয়েছি। বাকিদেরকে কুর্মিটোলা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। ঘটনাস্থল থেকে বাসচালক ও তার সহকারীকে ( হেলপার) পুলিশ হেফাজতে নেওয়া হয়েছে।


এ সম্পর্কিত আরো খবর