ঝিনাইদহের কালীগঞ্জে চলতি ইরি মৌসুম ২৮, ৬৩’তে সর্বনাশ - খবর তরঙ্গ
শিরোনাম :

ঝিনাইদহের কালীগঞ্জে চলতি ইরি মৌসুম ২৮, ৬৩’তে সর্বনাশ



রুহুল আমিন সৌরভ,স্টাফ রিপোর্টর,ঝিনাইদহ, (খবর তরঙ্গ ডটকম)

চলতি ইরি মৌসুমে ছত্রাক জনিত নেক ব্লাষ্ট রোগের মোড়ক ব্যাপক আকারে দেখা দিয়েছে। ধানের শীষ পচে শুকিয়ে চিটে হয়ে যাচ্ছে। কৃষকদের চোখে এখন হতাশার ঘোর অন্ধকার। এক কেজি ধানও ঘরে উঠবেনা এমন হতাশায় প্রান্তিক চাষীরা। বিশেষ করে এ সর্বনাশা ক্ষতি ব্রি- ২৮ ও ৬৩ তে। পরিশ্রম আর প্রচুর অর্থ ব্যয়ে প্রান্তিক চাষীদের যে সোনালী স্বপ্ন তা মিলান হতে চলেছে।

 

ঝিনাইদহের কালীগঞ্জ উপজেলার মল্লিকপুর গ্রামের প্রান্তিক চাষী মুক্তার হোসেন জানান, চলতি ইরি মৌসুমে পরের জমি লীজ নিয়ে ১৬ কাঠা জমিতে ব্রি-২৮ ধানের চাষ করেছিলেন। ধার দেনা করে পরিচর্যা করা ধানে শীষও বের হয়েছিল। কিন্তু গত তিন দিন আগে জমিতে গিয়ে দেখেন দু’একটা শীষের গোড়াই পচন ধরে নষ্ট হয়ে গেছে। কিছু বুঝে উঠার আগেই তিন দিনের মাথায় জমির সব ধানের শীষ পচে শুকিয়ে চিটে হয়ে যায়। ফলে ১৬ কাঠা জমিতে এবার এক কেজি ধানও তার ঘরে উঠবে না।

 

উপজেলার বলরামপুর গ্রামের কৃষক জাহিদ হোসেন বলেন, ৬ বিঘা জমিতে চাষ করেছিলেন নতুন জাতের ব্রি-৬৩ ধান। মাঠের সবার থেকে তার জমিতে ধান ভালো হয়েছিল। সম্প্রতি ধানের শীষ বের হওয়া শেষ হয়েছে। ধানের শীষ ভারী হয়ে পাক শুরু করেছে। এরমধ্যে গত কয়েকদিন আগে মাঠে গিয়ে দেখি বেশ কিছু ধানের শীষে পচন ধরে শুকিয়ে গেছে। কিছু কিছু জমিতে অর্ধেক ধানের শীষ শুকিয়ে গেছে। মঙ্গলবার সকালে তার ধান ক্ষেতে গিয়ে দেখা যায় প্রায় অর্ধেক ধানের শীষ পচে শুকিয়ে গেছে। এরপর কৃষি কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলে ছত্রাকনাশক স্প্রে করার পর নতুন করে আর পচন ধরেনি।

 

 

উপজেলার মল্লিকপুর গ্রামের কৃষক সুমন হোসেন জানান, চলতি বছর আমি সাড়ে চার বিঘা জমিতে ইরিধানের চাষ করেছি। এরমধ্যে ব্রি-২৮ ধান ছিল ৩ বিঘা। গত এক সপ্তাহ আগে ঝড় বাতাস ও বৃষ্টি হয়েছিল। তখন মাঠে গিয়ে দেখি ধানের শীষে পচন ধরেছে। কিছু বুঝে উঠার আগেই দুই দিনের মাথায় ৩ বিঘা জমিতে অর্ধেকের বেশি ধানের শীষ পচন ধরেছে। এরপর ছত্রাকনাশক স্প্রে করার পর পচন রোগ আর বৃদ্ধি পায়নি।
একই গ্রামের দুদু মিয়া, তারিফ হোসেন, মুকুল সাহা ও আজহার আলীসহ সব কৃষকের ব্রি-২৮ ও ৬৩ ধানের এই মোড়ক দেখা দিয়েছে।
এদিকে কালীগঞ্জ উপজেলা সুন্দরপুর গ্রামের কৃষক শফিকুর রহমান জানান, গত কয়েকদিন আগে ঝড় বাতাস হয়েছিল। পরের দিন মাঠে যেয়ে দেখি বেশ কিছু ধানের শীষে পচন রোগ দেখা দিয়েছে। আমি দেরি না করে কৃষি কর্মকর্তাদের পরামর্শে ছত্রাকনাশক স্প্রে করার পর এখন কোন সমস্য হয়নি।

 

 

চলতি বছর তাদের মতো কালীগঞ্জ উপজেলার কৃষকের প্রায় ৫ হাজার হেক্টর জমিতে ব্রি-২৮ ও নতুন জাতের ব্রি-৬৩ ধানে এই ছত্রাক জনিত নেক ব্লাষ্ট রোগের মোড়ক দেখা দিয়েছে। ফলে এই দু’জাতের ধান চাষ করা কৃষকদের এবার সোনালী স্বপ্ন সর্বনাশ হতে চলেছে।
চলতি ইরি মৌসুমে উপজেলার মাঠগুলোতে ১৮ হাজার ৩২০ হেক্টর জমিতে ইরি ধানের চাষ হয়েছে। এরমধ্যে ৩ হাজার ৬২০ হেক্টর জমিতে চাষ হয়েছে ব্রি-২৮ এবং ১ হাজার ৩৯০ হেক্টর জমিতে চাষ হয়েছে নতুন জাতের ব্রি-৬৩ জাতের ধান।

 

উপজেলার কৃষি কর্মকর্তাদের দাবি, এবার আবহাওয়া প্রতিকুল হওয়ায় আগে থেকে উপজেলার বিভিন্ন হাটে-বাজারে ও লোকসমাগম স্থানে লিফলেট বিতরণ করেছি। ছত্রাক প্রতিরোধে করনীয় সম্পর্কে ব্যপক প্রচার প্রচারণা চালিয়েছি।

 

স্থানীয় কৃষি অফিস সূত্রে আরো জানা গেছে, গত কয়েক দিনে গুলি গুড়ি বৃষ্টি ঝড় বাতাসের কারনে ধান ক্ষেতে এই মোড়ক ছড়িয়ে পড়েছে। এই রোগের ফলে ধানের শীষের গোড়ার সংযুক্ত স্থানে ছত্রাকের আক্রমনে কালচে বাদামি দাগ তৈরি হচ্ছে। ফলে ধান গাছ থেকে খাবার শীষে পৌছাতে পারছে না। যে কারনে ধানের শীষ শুকিয়ে চিটা হয়ে যাচ্ছে। এই রোগ বাতাসের মাধ্যমে দ্রুত ছড়িয়ে পড়ছে। তবে বাজারে পাওয়া যায় এমন ওষুধ ট্রপার, এমিষ্টার টপ, দিফা-৭৫ এবং ন্যাটিভো-৭৫ অনুমোদিত মাত্রায় পানির সাথে মিশিয়ে বিকালে ৫ থেকে ৭ দিনের ব্যবধানে দু’বার স্প্রে করলেই এই রোগ প্রতিরোধ করা সম্ভব।

 

কালীগঞ্জ উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা জাহিদুল করিম জানান, দিনে গরম আর রাতে ঠান্ডা আবহাওয়া এই ব্লাষ্ট ছড়াতে সাহায্য করে। এছাড়া জমিতে মাত্রাতিরিক্ত ইউরিয়া ব্যবহারের ফলে এই রোগ ছড়িয়ে পড়ে। উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নে কর্মরত উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তারা ছত্রাক প্রতিরোধে করনীয় সম্পর্কে ব্যপক প্রচার প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছে বলে এই কর্মকর্তা দাবি করেন।


এ সম্পর্কিত আরো খবর