উখিয়ার চাঞ্চল্যকর ফোর মার্ডারের ঘটনাস্থল পরিদর্শনে জেলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক মেয়র মুজিবুর রহমান - খবর তরঙ্গ
শিরোনাম :

উখিয়ার চাঞ্চল্যকর ফোর মার্ডারের ঘটনাস্থল পরিদর্শনে জেলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক মেয়র মুজিবুর রহমান



সংবাদ বিজ্ঞপ্তি, (খবর তরঙ্গ ডটকম)

উখিয়ার কোটবাজার পূর্বরত্মা গ্রামে সংগঠিত চাঞ্চল্যকর ফোর মার্ডারের ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন কক্সবাজার জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মেয়র মুজিবুর রহমান। মঙ্গলবার দুপুরে স্থানীয় উপজেলা চেয়ারম্যান এবং দলীয় নেতাকর্মীদের সাথে নিয়ে তিনি এ পরিদর্শনে যান। এসময় নিহতদের পরিবারের সদস্যদের খোঁজ খবর নিয়ে স্বজনহারা গৃহকর্তা কুয়েত প্রবাসী রোকেন বড়–য়া ও তার আত্মীয় স্বজনদের সাথে দীর্ঘ সময় কথা বলেন তিনি। এসময় ঘটনাস্থল রোকেন বড়–য়ার বাড়িতে কিছুক্ষণ বসে শোকাহত পরিবারকে শান্তনা দেন। পরে এলাকাবাসীদের সাথেও কুশল বিনিময় করেন মেয়র মুজিব।


পরিদর্শনকালে স্থানীয় সাংবাদিকদের সাথে আলাপকালে মেয়র মুজিবুর রহমান বলেন, বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যখন বিশ^ব্যাপী শান্তির বার্তা নিয়ে ঘুরে বেড়াচ্ছেন ঠিক সেই মুহুর্তে তাঁর সুন্দর অর্জনগুলো ধংস করার অপচেষ্টায় লিপ্ত হয়ে পড়েছে এসব খুনি চক্র। তারা শান্তি-সুখের দেশটাকে অশান্ত বানানোর ব্যর্থ চেষ্টা চালাচ্ছে। এ ঘটনায় জড়িত ঘাতকদের দ্রæত আইনের আওতায় নিয়ে আসতে আইনশৃংখলা বাহিনী আন্তরিকতার সাথে কাজ করে যাচ্ছে বলে জানা তিনি। সে জন্য তাদের তথ্য উপাত্ত দিয়ে সবাই যে যার অবস্থান থেকে সহযোগিতা করুন। পাশাপাশি এ মর্মান্তিক ঘটনাকে সুযোগ সন্ধানীরা যেন ভিন্নখাতে প্রবাহিত করতে না পারে সে জন্য এলাকাবাসীকে সতর্ক থাকার অনুরোধও জানান মেয়র।

পরিদর্শনকালে উখিয়া উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অধ্যক্ষ হামিদুল হক চৌধুরী, উখিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও উপজেলা কমিউনিটি পুলিশের সভাপতি নুরুল হুদা, উখিয়া উপজেলা কমিউনিটি পুলিশিংয়ের সাধারণ সম্পাদক শহীদুল্লাহ কায়সার, রতœাপালং ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি আসহাব উদ্দিন, পালংখালী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি এম.এ মনজুর, সাধারণ সম্পাদক মোঃ আলমগীর, হলদিয়া পালং ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি মোহাম্মদ ইসলাম, স্থানীয় সাবেক মেম্বার দীপক বড়–য়া দীপু, উখিয়া উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক ইমাম হোসেন, উপজেলা কমিউনিটি পুলিশের যুগ্ম সম্পাদক শাহাদত হোসেন জুয়েলসহ স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।


উল্লেখ্য, ঘটনার কয়েকদিন পূর্বে থেকে ৩০ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত মেয়র মুজিবুর রহমান সরকারী সফরে ইন্দোনেশিয়ায় অবস্থান করায় বেদনাবিধুর এ ঘটনাস্থলে যেতে পারেননি। তাই সরকারী দলের দায়িত্বশীল একজন নেতা হিসেবে মানবিক বিবেচনায় দেশে ফিরেই তিনি উখিয়ায় ছুটে যান।