পরিবার ভাঙ্গন ও সামাজিক বিপর্যয় - খবর তরঙ্গ
শিরোনাম :

পরিবার ভাঙ্গন ও সামাজিক বিপর্যয়



মো: রেজাউল করিম সুমন, (খবর তরঙ্গ ডটকম)

আজ কয়েক দিন দেখছি পারিবারিক সমস্যা নিয়ে অনেক নিউজ আসছে। প্রেমের বিয়ে, বউ শাশুড়ির দন্ধ, যৌতুক ইত্যাদি সমস্যা। তবে প্রেমের বিয়ে নিয়ে সমস্যা প্রকট। হিন্দি সিরিয়াল ও ধর্মীয় মূল্যবোধ সমস্যার মূল কারণ। একটি রাষ্ট ও সমাজ ব্যবস্থা তখনই শক্তিশালী থাকে যখনই পরিবার ব্যবস্থা শক্তিশালি হয়। শহরে বাসা গুলো সিঙ্গেল, যৌথ থাকার সুযোগই নেই।ইন্ডিয়ান চ্যানেল গুলে বন্ধ করার নৈতিক ও রাষ্টীয় শক্তি আমরা অনেক আগেই হারিয়েছি। নৈতিক মূল্যবোধ তৈরীর চ্যানেল গুলো বন্ধ হয়ে যাচ্ছে। যুবক যুবতীরা সহ সকল শ্রেণির মানুষ হারাচ্ছে নৈতিক মূল্যবোধ। শিশুপার্ক বা বিনোদনের স্থান, হোটেল নির্জন স্থান এমনকি প্রকাশ্যেও চলছে অবাধ যৌনাচার।

 

গত বছর একবন্ধুকে নিয়ে ঢাকা ঘুরতে বের হলাম সে আমাকে জিয়া উদ্যান ও রমনা পার্ক নিয়ে গেলো। সেখান থেকে রেরিয়ে যা দেখলাম বন্ধুকে বললাম ঢাকা আর ঘুরবো না স্বাধ মিটে গেছে। সে বললো এগুলোতো কিছু না আরও খারাপ জায়গা আছে। ঢাকার নামকরা এক কলেজের ৬ ছাত্রীকে বয় ফ্রেন্ড সহ আপত্তিকর অবস্থায় হোটেল থেকে গ্রেফতার করা হয়েছে। এরা হয়ত প্রশাসনকে মাসোহারা দিতে সমস্যা হওয়ায় ধরা খাইছে, ৯৯.৯৯% কোন বাধা ছাড়া নির্ধিধায় কাজ চালিয়ে যাচ্ছে।

 

ইডেনের ১ম বর্ষের ছাত্রীদের দিয়ে অনৈতিক কাজের কথা শুনেছি। এটি শুধু ঢাকা নয় আকাশ সংস্কৃতির কল্যাণে গ্রাম গন্জে পৌঁছে গেছে এসব। সংবাদ সংগ্রহে গ্রামে গেলে দেখি দাদা বা নানা কতৃক নাতিন, দেবর ভাবি ও ভাই বোন সহ ব্যাপক ভাবে চলছে। গত মাসে নিউজ করলাম তারাবীর সময় নেতা সাথে দর্জীর স্ত্রীর পরকীয়া, চর রমনী মোহনে মসজিদ কমিটির সভাপতি কতৃক গৃহকর্তী ধর্ষন, কমল নগরে ভিজিএফরে কার্ড দিবে বলে মান্নান নামের এক নেতার ধর্ষন ইতিহাস, পার্বতীনগরের ১০ মাসের সন্তান রেখে প্রেমিকা কামরুন নাহার নিশির আতœহত্যা। বাগদাদ ও স্পেন এবং রোম শহরে নাকি জ্ঞানচর্চা হতো এখন ঘরে ঘরে যৌন চর্চা হয়।

 

একটি মেয়ে ১৮ বছর পিতা মাতার ভালোবাসা ভুলে ১০ দিনের পরিচয় বয়ফ্রেন্ডের ভালোবাসায় হাত ধরে পালিয়ে যায়, স্বাধ মিটে গেছে লাশ অজ্ঞাতস্থানে বা আত্মহত্যা বা বাবা মার কাছে ফেরত। স্বামী বিদেশ অন্যলোকের সাথে চাহিদা মিটানো, অনেক ক্ষেত্রে স্বামীর পাঠানো সকল সম্পদ নিয়ে পালিয়ে যাচ্ছে। মুসলিম বিশ্বের আবেগের স্থান সৌদিআরব। দীর্ঘদিন ভীসা বন্ধ থাকার পর চালু হলো। তাও আবার মহিলা তারপরও কাজ চাই। এই নারীরা ফিরে আসলো যৌন জীবনের তিক্ত অভিজ্ঞতা নিয়ে।

 

কে নিবে এদের দায়িত্ব। এসব কারণে ভেঙ্গে পড়ছে সমাজ ব্যবস্থা। হয়ত লুত আ: মত কোন ঘটনা ঘটবে না। তবে ক্ষতিগ্রস্থ হবে জাতি তৈরি হবে অসৎ লোক খারাপভাবে চলবে দেশ ও সমাজ।খোদ আমেরিকার একটা নিউজ পড়ে অবাক হলাম। তাদের নারী সেনারা নাকি আফগানিস্থান ও ইরাকে মহাসমস্যায় আছে। বিকাল ৩টার পর তারা খাবার খায় না কারন রাত্রে রুম থেকে বেরিয়ে টয়লেটে যেতে হবে তখনই গণধর্ষনের স্বীকার হতে হবে পুরুষ সেনাদের দ্বারা। রাশিয়া বিশ্বকাপে অন্যদেশের পুরুষদের সাথে যৌন কাজ না করতে সে দেশের পতিতাদের তাদের এক মন্ত্রী নিষেধ করেছেন। বহিরাগত ধর্ষকদের জন্য ভাড়া করা হয়েছে বিশ্বের ভিবিন্ন প্রান্ত থেকে পতিতা বা যৌন কর্মী।

 

ইন্টারনেটে ব্লু প্রিন্ট দেখে বিশ্বে প্রথম মালালার দেশ পাকিস্থান, বাংলাদেশ ও মুসলিম বিশ্ব এগুলোতে আগে অথচ চীনে এসব চ্যানেল রাষ্টীয়ভাবে বন্ধ। বাংলাদেশের পাচার হওয়া নারীদের স্থান হয় ভারতের বিভিন্ন পতিতালয়ে। আসুন সুন্দর আগামির নতুন প্রজন্মকে একটি সুন্দর সমাজ ও দেশ উপহার দিতে এগুলো বিরুদ্ধে সামাজিক আন্দোলন গড়ে তুলি। নৈতিক আদর্শ বিস্তারকারী লোকদের ক্ষমতার দন্ধে জেলে দেওয়া বন্ধ করা এবং নৈতিক মূল্যবোধ তৈরীর সংস্কৃতিক চ্যানেল গুলো সচল রাখা।কেউ না করুক আমার সন্তানকে আমি এমন করে গড়ে তোলবো এই দৃঢ় শপথ করি। এভাবে প্রত্যেকে প্রতিজ্ঞা করলে আগামির সমাজ ও রাষ্ট অবশ্যই পরিবর্তন হবে সে সমাজে বাস করবে
আমাদের স্নেহের সন্তানেরা।


এ সম্পর্কিত আরো খবর

মতামত এর অন্যান্য খবরসমূহ