রায়পুরে পল্লীবিদ্যুতের খুঁটি স্থাপনকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষ অগ্নিংযোগ,নারী-পুরুষসহ আহত ১০

লক্ষ্মীপুরের রায়পুরে পল্লীবিদ্যুতের খুঁিটস্থাপনকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষে নারী-পুরুষসহ আহত হয়েছেন ১০ জন।এসময় কৃষক তাজুল ইসলামের মুরগীর খামারে অগ্নিসংযোগ অর্ধশত মুরগীসহ ৫ লাখ টাকার মালামাল জ্বালিয়ে দেয়া হয়। শুক্রবার রাতে উপজেলার দক্ষিণ চর আবাবিল বোররচর এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। সংঘর্ষে উভয় পক্ষের নারী-পুরুষসহ ১০ জন আহত হয়। এ নিয়ে ওই এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করে। স্থানীয়রা আহতদের মধ্যে গুরুত্বর আহত চুন্নু হাওলাদার (২৫) সদর হাসপাতালে ,তাজল ইসলাম (৫০), রুবি আক্তার (৩০) ও সুফিয়ানকে রায়পুর উপজেলা স্বাস্থ্য কম্পলেক্য্রসহ বাকীদের স্থানীয় ভাবে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে।

 

পুলিশ জানান,খবর পেয়ে ঘটনাস্থল পুলিশ পরিদর্শন করলে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আসে।পরে ক্ষতিগ্রস্থ্যদের মামলা দেয়ার পরামর্শ দেন তারা।

 

স্থানীয়রা জানান,দীর্ঘদিন ধরে রায়পুর উপজেলার দক্ষিণ চর আবাবিল বোরোর চর এলাকায় চুন্নু হাওলাদার ও প্রতিবেশী সুফিয়ান হাওলাদারের মধ্যে জমি সংক্রান্ত বিরোধ চলে আসছিল। ইতিমধ্যে এলাকায় বিদ্যুাৎ পৌছলে খুঁিট স্থাপনে জায়গা নিয়ে ফের বিরোধে জড়িয়ে পরে তারা। খুঁিট স্থাপনকে কেন্দ সুফিয়ান হাওলাদার উত্তেজিত হয়ে চুন্নু হাওলাদারের পিতা তাজল হাওয়াদারকে মারধর করে।

 

এসময় চুন্নু হাওয়াদার ও তার ভাবী রুবি বেগম বাধা দিতে এসে মারধর ও হামলার শিকার হন। মারধরে চুন্নু হাওলাদারের মাথায়,কপালে ও হাতে দাঁয়ের কুপের আঘাত লাগে।এসময় প্রতিপক্ষ সুফিয়ান হাওলাদারসহ নারী-পুরুষ আরো ১০ আহত হয়। পরে রাতেই দুর্বত্তরা কৃষক তাজল ইসলামের মুরগীর খামারে অগ্নিসংযোগ করে। পরে স্থানীয়রা আগুন নিয়ন্ত্রনে নিলেও ততক্ষণে বেশ কিছু মুরগী ও মুরগীর খাবারসহ মালামাল আগুনে পুড়ে যায়। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে নেন। পরে ক্ষতিগ্রস্থ্যদের থানায় মামলা করার জন্য পরামর্শ প্রদান করেন।

 

রায়পুর থানার ওসি এ কে এম আজিজুর রহমান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান,খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে রাতেই পুলিশ পাঠিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রন করা হয়েছে। এছাড়া ক্ষতিগ্রস্থ্যদের থানায় মামলা করার জন্য পরামর্শ দেয়া হয়েছে। পরে এঘটনায় দু’পক্ষই থানায় অভিযোগ প্রদান করেন। বিষয়টি তদন্তের পর আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে।