লক্ষ্মীপুরে করোনা উপসর্গ দুই জন মারা গেছেন নতুন করে প্রকৌশলীসহ আরো শনাক্ত ২২ জন

লক্ষ্মীপুুর সদর উপজেলায় জর,সর্দি,শ্বাস কষ্ট করোনা উপসর্গে হাসন্দি এলাকার ৭০ বছরের ওসমান গণি ও একই উপজেলার ভবানীগঞ্জ এলাকার ৬৫ বছরের স্কুল শিক্ষক নাজির উল্যা মারা গেছেন। তবে এ পর্যন্ত করোনা উপসর্গে ৫৭ জন মারা গেলেও সরকারী হিসেব মতে ব্যক্তিদের নমুনা সংগ্রহের পর ১৩ জনের শরিরে করোনা ভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। আর দুই জন করোনা ভাইরাস শনাক্ত হওয়ার পর চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান। এ নিয়ে জেলায় করোনায় মারা যায় ১৫ জন।



ভারপ্রাপ্ত সিভিল সার্জন ও জেলা সদর হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. আনোয়ার হোসেন তথ্যটি নিশ্চিত করেছেন। এদিকে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ও করোনা ও উপসর্গে মারা যাওয়ার সংখ্যা বেড়ে যাওয়ায় সংক্রমণ ঠেকাতে এলাকায় রেডজোন হিসেবে ল²ীপুর জেলার পাঁচটি উপজেলার চারটি পৌরসভা এবং ১১টি ইউনিয়নে শনিবার পর্যন্ত ১২ দিন যাবৎ ঢিলেঢালাভাবে লকডাউন চলছে। এছাড়া প্রতিদিনই দীর্ঘ হচ্ছে কোভিড-১৯ এর আক্রান্ত তালিকা।



গত ২৪ ঘন্টায় পল্লী বিদ্যুৎ ও পিআইও অফিসের দু’জন প্রকৌশলীসহ নতুন করে আরো ২২জনের শরীরে কোভিড-১৯ শনাক্ত হয়েছে। এ নিয়ে জেলায় কোভিড-১৯ আক্রান্তের সংখ্যা সাত’শ ঘর পার হয়ে সাত’শ ৫৯জনে পৌঁছেছে।



অপরদিকে জেলার ৫টি উপজেলার চারটি পৌরসভা এবং ১১টি ইউনিয়ন রেডজোন হিসেবে ১২ দিনের লকডাউন চলছে।এতে করে মানুষ জরুরী সেবাসমুহ পাওয়ার কথা থাকলেও তা পাচ্ছেনা বলে এলাকাবাসীর অভিযোগ রয়েছে। এ ব্যাপারে কোনো সেবা বা সার্ভিস কেন্দ্র খোলার খবর পাওয়া যায়নি।