লাকসামে ধানের পোকামাকড় ও রোগবালাই দমনে মতবিনিময়

বুধবার সন্ধ্যায় কুমিল্লার লাকসাম উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উদ্যোগে ধানের বাদামী গাছ ফড়িং ও অন্যান্য পোকামাকড় এবং রোগবালাই দমনে করণীয় বিষয়ে কৃষকদের সাথে মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। কুমিল্লা জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক মোঃ আসাদুল্লাহর সভাপতিত্বে ও উপজেলা কৃষি অফিসার মোঃ সিরাজ উদ্দিন হোসেনের পরিচালনায় বাকই ইউনিয়নের রাজাপুর এলাকায় আয়োজিত মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন, কুমিল্লা অঞ্চলিক কৃষি অধিদপ্তরের অতিরিক্ত পরিচালক যুগল পদ দে। বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন, কুমিল্লা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের অতিরিক্ত উপ-পরিচালক (উদ্ভিদ সংরক্ষণ) ড. মোঃ জয়নুল আবেদিন, লাকসাম উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ দেলোয়ার হোসেন, বাকই ইউপি চেয়ারম্যান আবদুল আউয়াল আবুল প্রমুখ। স্থানীয় কৃষকদের মাঝে বক্তব্য রাখেন, অধ্যাপক মোঃ আবদুল হালিম। এ সময় উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা উপসহকারী উদ্ভিদ সংরক্ষণ কর্মকর্তা আবদুল মান্নান মোল্লা, বাকই ব্লকের উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা এএনএম আবু তাহের, ইউনিয়ন আওয়ামী লীগে যুগ্ম আহবায়ক আবদুল ওয়াদুদসহ দু’শতাধিক কৃষক-কৃষাণী। অনুষ্ঠানে প্রজেক্টরের মাধ্যমে ফসলের ক্ষতিকারক পোকামাকড় ও নানা রোগ দমনের কৌশল প্রদর্শন করা হয়। অনুষ্ঠানের পূর্বে আলোক ফাঁদ স্থাপন করে হাতেকলমে কৃষকদেরকে ধানের ক্ষতিকারক পোকা দমনের কৌশল শেখানো হয়।

 

এর আগে বাকই ইউনিয়ন পরিষদের অদূরে স্থানীয় কৃষক মোস্তফা কামাল সুজনের জমিতে পরীক্ষামূলকভাবে আবাদকৃত নতুন উন্নত জাতের ‘ব্রি-৭১’ ধান কর্তন করা হয়। জানা যায় মাত্র ১১৩ দিনে এ ফসল ঘরে তোলা যায় এবং ফলনও বেশি হয়ে থাকে। এতে কম সময়ে বেশি ফসলের কৃষক লাভবান হওয়ার সুযোগ সৃষ্টি হয়েছে।