লাকসামে সড়কের পাশের ঝোপ থেকে নবজাতক উদ্ধার

লাকসামে নাকে-মুখে স্কসটেপ পেচানো একটি নবজাতক কন্যা শিশুকে উদ্ধার করা হয়েছে। আজ বৃহস্পতিবার সকাল ৮টার দিকে কুমিল্লা-নোয়াখালী আঞ্চলিক মহাসড়কের ভাটিয়াভিটায় ঝোপের ভেতর থেকে স্থানীয়রা উদ্ধার করে। ঝোপের ভেতর পড়া থাকা জীবিত শিশুটির পায়ের নরম কিছু মাংস পিপড়া খেয়ে রক্তাক্ত করে দেয়। তখন শিশুটি সেই হৃদয় বিদারক আহজারি পৌচে মেহেদি নামক এক যুবকের কানে, সেই উদ্ধার করে নবজাতক কন্যা শিশুটিকে। এ যেন এক মানবিক মূল্যবোধের অবক্ষয়ের বীভৎসতার নিষ্ঠুরতা চিত্র।

স্থানীয় ও পুলিশ সুত্রে জানাযায় কুমিল্লা-নোয়াখালী আঞ্চলিক মহাসড়কের ভাটিয়াভিটা আহাম্মদিয়া ইসলামিয়া মাদ্রাসা সংলগ্ন ঝোপের ভেতরে কান্নার শব্দ শুনে পার্শ্ববর্তী বাড়ির মেহেদী হাসান নামক এক যুবক শিশুটিকে উদ্ধার করে পুলিশে খবর দেয় এবং চিকিৎসার উদ্দেশ্যে স্থানীয় ওই যুবক ও মাষ্টার শাহজাহান লাকসাম সরকারী হাসপাতালে জরুরী বিভাগে ভর্তি করে। নবজাতককে উদ্ধারের সময় তার মুখে ও নাকে কসটিপ পেচানো ছিল।


সংবাদ পেয়ে লাকসাম থানা পুলিশের অফিসার ইনচার্জ আবদুল্লাহ আল মাহফুজের নির্দেশে এসআই মোঃ সাইদুর রহমান ও কামাল হোসেনের নেতৃত্বে উপজেলা সমাজ সেবা অফিসার উপন্যাস চন্দ দাসের সহযোগিতায় প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে উন্নত চিকিৎসার জন্য কুমিল্লা মেডিকেল কলেজে স্থানান্তর করা হয়।

 

জরুরী বিভাগের চিকিৎসক জানান উদ্ধারকৃত নবজাতকটির নাকে-মুখে কসটিপ পেচানো থাকায় যথা সময়ে কসটিপ না খুলতে পারলে ও উদ্ধার না হলে শিশুটি মৃত্যুর সম্ভাবনা ছিল।
লাকসাম থানা পুলিশের অফিসার ইনচার্জ আবদুল্লাহ আল মাহফুজ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন নবজাতক শিশুটিকে প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে সমাজ সেবা কর্মকর্তার সহযোগিতায় উন্নত চিকিৎসার জন্য কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হসপিটালে পাঠানো হয়েছে।