করোনা পরিস্থিতিতে মানুষের পাশে রয়েছে লাকসামের মানবিক ব্যক্তিরা

করোনা মহামারিতে সাধারণ মানুষের পাশে থেকে তাদেরকে আগলে রেখেছেন লাকসামের জনপ্রতিনিধি, প্রশাসন, ব্যবসায়ী, চিকিৎসক, প্রবাসী, দানশীল ব্যক্তি, স্বেচ্ছাসেবী ও বিভিন্ন রাজনৈতিক ও সামাজিক সংগঠনের সদস্যরা। জাতির এই চরম ক্রান্তিকালে তাঁদের ভূমিকা অতুলনীয়। মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছেন মানবিকতার হাত বাড়িয়ে দিয়ে। এরা কখনোই চিন্তা করেননি নিজের জীবনের ঝুঁকির কথা। এই মহামারীতে করোনা সংক্রমণে মৃত্যুর ঝুঁকি উপেক্ষা করেই তারা ছুটে বেড়াচ্ছেন পাড়া মহল্লা ও গ্রামের মাঠে ঘাটে।

কুমিল্লা-৯ (লাকসাম-মনোহরগঞ্জ) সংসদীয় আসন থেকে নির্বাচিত সংসদ সদস্য, স্থানীয় সরকার পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী মোঃ তাজুল ইসলাম করোনার এই মহাদুর্যোগেও এলাকায় এসে মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছেন। স্থানীয় সরকার মন্ত্রীর সার্বক্ষণিক তদারকি এবং সরকারি নির্দেশনা মোতাবেক লকডাউন কার্যকর, হোম কোয়ারেন্টিন নিশ্চিত, সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিতকরণ, অসহায়, দুঃস্থ ও কর্মহীনদের বাড়ি বাড়ি ত্রাণ পৌঁছে দেয়া, গণসচেতনতা সৃষ্টি, দরিদ্রদের খাদ্য সহায়তার জন্য তালিকা তৈরিসহ বিভিন্ন কাজে এবং প্রধানমন্ত্রীর মানবিক সহায়তা তালিকা প্রস্তুতকরণে প্রশাসনের পাশাপাশি মূল নেতৃত্বে আছেন জনপ্রতিনিধি ও দলীয় নেতাকর্মীরা।

এছাড়া সরকারি ও বেসরকারি পৃষ্ঠপোষকতায় আগত উপহার সামগ্রী ও খাদ্যসামগ্রী বিতরণ, করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা যাওয়া ব্যক্তিদের দাফন-কাফনসহ সৎকারের সব ধরনের কাজে যুক্ত হয়েছেন তাঁরা। মানবতার এমনই এক কঠিন দুঃসময়ে অনেকে মুখ থুবড়ে নিলেও বিবেকের টানে অতন্দ্র প্রহরী হয়ে এগিয়ে এসেছেন লাকসামের জনপ্রতিনিধি, প্রশাসন ও দলীয় নেতাকর্মীসহ বিভিন্ন ব্যবসায়ী, প্রবাসী, দানশীল ব্যক্তি এবং স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের কর্মীরা।

এদের মধ্যে উপজেলা নির্বাহী অফিসার এ,কে,এম সাইফুল আলম ও তাঁর অধীনস্থ কর্মকর্তা-কর্মচারী, স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ মোহাম্মদ আবদুল আলী ও তাঁর অধীনস্থ কর্মকর্তা-কর্মচারী, সহকারী কমিশনার (ভূমি) উজালা রানী চাকমা ও তাঁর অধীনস্থ কর্মকর্তা-কর্মচারী, পুলিশের অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোঃ নিজাম উদ্দিন ও তাঁর অধীনস্থ পুলিশ সদস্য, উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা দেবেশ চন্দ্র দাশ, ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের স্টেশন অফিসার শাহাদাত হোসেন ও তাঁর অধীনস্থ ফায়ারকর্মী, পৌর ও ইউনিয়ন ভূমি কর্মকর্তা, ভিক্টোরি অফ হিউম্যানিটি অর্গানাইজেশনসহ বিভিন্ন স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের অতি মানবীয় গুণাবলীর কিছু মানুষ সেচ্ছায় আর্ত মানবতার সেবায় এগিয়ে এসেছেন এবং সরকারের সকল নির্দেশনা বাস্তবায়নে তাঁরা বদ্ধ পরিকর রয়েছেন।

দেশের এমন কঠিন দূর্যোগ মুহুর্তে বিরামহীন ভাবে মানবিক সহায়তা নিয়ে কর্মহীন, অসহায় দুঃস্থ, লকডাউনে আটকে পড়া ও করোনা আক্রান্তদের পাশে ছুটে চলায় লাকসামের জনপ্রতিনিধি, মাঠ প্রশাসনের কর্মকর্তা, দলীয় নেতাকর্মী ও স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের সদস্যরা তাঁদের কর্মযজ্ঞ দিয়ে মানুষের পাশে থেকে সেবা দেয়ায় মানবিক ব্যক্তি হিসেবে তাঁরা এই উপজেলায় বেশ সুনাম কুঁড়িয়েছেন।

এদিকে, লাকসাম উপজেলা চেয়ারম্যান এডভোকেট ইউনুস ভূঁইয়া, পৌর মেয়র অধ্যাপক আবুল খায়ের, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মহব্বত আলী, উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পড়শী সাহা, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক এডভোকেট মোঃ রফিকুল ইসলাম হিরা, ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আবদুল আউয়াল, শাহিদুল ইসলাম শাহীন, আবদুর রশিদ সওদাগর, ওমর ফারুক, নিজাম উদ্দিন শামীম, হারুনুর রশিদ, আলী আহমদ, রুহুল আমিন, পৌর কাউন্সিলর মোহাম্মদ উল্ল্যাহ, খলিলুর রহমান, ওমর আলী, বাহার উদ্দিন বাহার, শাহ আলম, আবদুল আলীম দিদার, শাহজাহান মজুমদার, আফতাব উল্লাহ চৌধূরী ঝন্টু, গোলাম কিবরিয়া সুমন, সংরিক্ষত মহিলা কাউন্সিলর সালমা আক্তার সুমি, নাসিমা সুলতানা, মুশফিকা আলম মিতা, লাকসাম পূর্ব ইউনিয়ন (নরপাটি) আওয়ামী লীগের সভাপতি আলহাজ্ব মোঃ তাজুল ইসলাম, উপজেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগের সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক জাহাঙ্গীর আলম, পৌরসভা ৪নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি আবদুল আজিজ,

২নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ নেতা শফিকুর রহমান, ৩নং ওয়ার্ড যুবলীগ নেতা আবদুল কাদের, ৪নং ওয়ার্ড যুবলীগের সভাপতি আবদুল কাদের শাহিন, উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি শিহাব খান, সাধারণ সম্পাদক সাইফুল ইসলাম, ছাত্রলীগ নেতা সাইফুল ইসলাম রাজুসহ পৌরসভা ও ইউনিয়ন নেতাকর্মীরা করোনা যুদ্ধে বিভিন্ন পর্যায়ে নেতৃত্ব দিয়ে যাচ্ছেন। যেমনটা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও স্থানীয় সরকার পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী মোঃ তাজুল ইসলাম নির্দেশনা দিয়েছেন।

এদিকে করোনায় মানুষের পাশে দাঁড়াতে গিয়ে সপরিবারে নিজেই করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মহব্বত আলী।
এছাড়াও উপজেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি আবুল কালাম, জাতীয় পার্টির কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য প্রফেসর ডঃ গোলাম মোস্তফা, কেন্দ্রীয় ছাত্রদলের সাবেক দপ্তর সম্পাদক সফিকুর রহমান সফিক, পৌরসভা বিএনপির পক্ষে আবদুর রহমান বাদল, বেলাল রহমান, মনির আহমেদ, মোশারফ হোসেন মুশু, মাহবুবুর রহমান মানিক, রেলওয়ে শ্রমিক লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক হাসান আহমেদ পলাশ, এনজিও সংস্থা ওয়ার্ল্ড ভিশন বাংলাদেশ, ব্যাংককার অপূর্ব সাহা, বিএস টাওয়ারের মালিক শফিকুর রহমান সিমু, প্রবাসী মিজানুর রহমান সুমন, চিকিৎসক, সাংবাদিক, প্রবাসী, ব্যবসায়ী, চাকরিজীবিসহ বিভিন্ন সংগঠন এবং অসংখ্য দানশীল ব্যক্তি এই মহাদুর্যোগে কর্মহীন হয়ে পড়া অসহায়-দুঃস্থ মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছেন। আবার অনেকে ভাড়াটিয়াদের বাসা ভাড়া মওকূফ করে দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন।