লাকসামে করোনা আক্রান্ত ৩শ ছাড়ালো; প্রান গেল ৮ জনের ।। আতংকে মানুষ

কুমিল্লার লাকসাম উপজেলা ও পৌর এলাকায় নতুন করে আরও ১৪ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। এদের মধ্যে ৭জন পুরুষ ও ৭জন মহিলা। এ পর্যন্ত আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়াল ৩০২ জনে এবং অদৃশ্য ভাইরাস করোনার ছোবলে প্রান গেল ৮ জনের। ইতোমধ্যে আক্রান্তদের মধ্যে সুস্থ হয়েছেন ১৬৩ জন। এনিয়ে এলাকার জনমনে করোনা আতংক বিরাজ করছে।


লাকসাম উপজেলা স্বাস্থ্য বিভাগের করোনা র‌্যাপিড রেসপন্স টিম সূত্রে জানা যায়, আজ রবিবার (১২ জুলাই) জেলা সিভিল সার্জন কার্যালয় থেকে সর্বমোট ৪১টি নমুনার রিপোর্ট আসে। তাদের মধ্যে ১৪ জনের রিপোর্ট পজিটিভ ও বাকী ২৭টি রিপোর্ট নেগেটিভ। নতুন ১৪ জনসহ উপজেলায় আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৩০২জন।


এছাড়া, জেলা সিভিল সার্জন কার্যালয় থেকে ২০ জুনের নমুনার ৯টি রিপোর্ট পজিটিভ জানানো হলেও তা আগেই লাকসামের তালিকায় অর্ন্তভূক্ত করা হয়েছে। লাকসাম উপজেলার গৌবিন্দপুর ইউপির দোখাইয়া গ্রামে প্রথম করোনা আক্রান্ত নেয়ামত উল্লাহ নামে এক ব্যক্তি করোনা পজেটিভ হওয়ার পর থেকে এ ভাইরাস করোনার ছোবল দিনদিন বেড়েই চলেছে। এ নিয়ে মোট আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে নারী-পুরুষ সহ ৩শত ২ জনে। এ পর্যন্ত করোনায় মারা গেছেন ৮ জন। মারা যাওয়া ব্যক্তিদের মাঝে ৬জ


লাকসাম উপজেলা স্বাস্থ্যবিভাগ গঠিত করোনা র‌্যাপিড রেসপন্স টিমের অন্যতম সদস্য ডা. আবদুল মতিন, মেহেদী হাসান জিতু ও ডা. আলমগীর হোসেন আরো জানায়, উপজেলা ও পৌর এলাকায় এই পর্যন্ত ১৩৫৮টি নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে। তাদের মধ্যে ১৩৩০টি রিপোর্ট পাওয়া গেছে। প্রাপ্ত রিপোর্টের মধ্যে ৩০২ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। ১০২৯টি রিপোর্ট নেগেটিভ এসেছে। এখনো প্রক্রিয়াধীন রয়েছে ২৮টি নমুনা রিপোর্ট। করোনায় মৃত্যুবরণ করেছেন সর্বমোট ৮জন। ইতোমধ্যে আক্রান্তদের মধ্যে সুস্থ হয়েছেন ১৬৩ জন।


লাকসাম উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. মোহাম্মদ আবদুল আলী জানান, লাকসামে প্রতিদিনই করোনা আক্রান্তের রিপোর্ট আসছে, যা উদ্বেগজনক। করোনা সংক্রমণ থেকে রক্ষা পেতে তিনি সকলকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার পরামর্শ দেন।