সাফের ফাইনাল খেলতে চায় বাংলাদেশ

অনুশীলন মাত্র এক মাসের। তবে স্বল্প সময়ের ক্যাম্পে মহিলা ফুটবলাররা আন্তরিকতার কোনো অভাব দেখাননি তা প্রমাণ করেন ঈদের আগের ও পর দিন প্র্যাকটিসে অংশ নিয়ে। প্রস্তুতি ম্যাচ বলতে স্থানীয় অনূর্ধ্ব-১৯ দলের সাথে দু’টি প্রদর্শনী লড়াই। দু’টিতেই ছোটদের হারিয়েছে জাতীয় দল। তথাপিও সাফের মতো একটি বড় মাপের টুর্নামেন্টে আগে জাতীয় দলের সীমিত প্রস্তুতির বিষয়টি যথার্থ কিনা তা নিয়ে প্রশ্ন থেকেই যায়। তারপরও এবারের মহিলা সাফ চ্যাম্পিয়নশিপে ফাইনালে খেলার ল্য নির্ধারণ করেছে বাংলাদেশ জাতীয় মহিলা দল। শ্রীলঙ্কায় অনুষ্ঠেয় টুর্নামেন্টে বাংলাদেশ দলের স্কোয়ার্ড ও খুঁটিনাটি বিষয়গুলো সাংবাদিকদের জানাতে গতকাল বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনে আয়োজিত প্রেস ব্রিফিংয়ের এই ল্েযর কথা জানান দলের হেড কোচ মো: গোলাম রব্বানি ছোটন।
শ্রীলঙ্কার উদ্দেশে ৪ তারিখ দুপুরে ঢাকা ছাড়বে বাংলাদেশ দল। ৭ তারিখ অফিসিয়ালি উদ্বোধন হবে সাফ মহিলা চ্যাম্পিয়নশিপের। চারটি করে দল দুই গ্র“পে বিভক্ত হয়ে অংশ নিচ্ছে এবারের টুর্নামেন্টে। বাংলাদেশ পড়েছে এ গ্র“পে। যেখানে তাদের প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী শক্তিশালী ভারত। অন্য দুই দল হচ্ছে স্বাগতিক শ্রীলঙ্কা ও ভুটান। লঙ্কা সাফের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধনের আগেই অর্থাৎ ৭ তারিখ সকাল সাড়ে ৮টায় টুর্নামেন্টের প্রথম ম্যাচে ভারতের মুখোমুখি হবে বাংলাদেশ। কাগজেকলমে ভারত শক্তিশালী হওয়ায় প্রথম ম্যাচে জয়ের আশা করছেন না ছোটন। তবে গ্র“পের অন্য দুই দল শ্রীলঙ্কা ও ভুটানকে হারানোর ম্যাচে দৃঢ় আশাবাদী তিনি।
ছোটন বলেন, ‘গত সাফেও লঙ্কানদের হারিয়েছিল বাংলাদেশ। এবার তারা (লঙ্কা) স্বাগতিক দল। এরপরও আমরা তাদের হারাতে পারব। আর ভুটানের বিপে বড় ব্যবধানে জয়ের অতীত রয়েছে আমাদের’।
ভারতের পেছনে থেকে গ্র“প রানার্সআপ হিসেবে বাংলাদেশ সেমিতে উঠলে গতবারের প্রতিপ নেপালের বিপে এবারো খেলতে হবে। পাকিস্তান, আফগানিস্তান ও মালদ্বীপকে পেছনে ফেলে বি গ্র“পের চ্যাম্পিয়ন হওয়াটা নেপালের জন্য এক প্রকার নিশ্চিতই বৈকি। আর এতে করে বাংলাদেশের ফাইনালে খেলার স্বপ্ন হুমকির মুখে পড়বে। কারণ গত সাফেও এই দলটির কাছে হেরে শিরোপা নির্ধারণী ম্যাচে অংশ নেয়া হয়নি স্বাগতিক বাংলাদেশের।
ছোটন মনে করেন, ‘এবার প্রতিপ নেপাল হলেও ফলাফল বাংলাদেশেরও অনুকূলে আসতে পারে। যুক্তি হিসেবে সাম্প্রতিক সময়ে বাংলাদেশের পারফরমেন্সের উন্নতিকে সামনে এনেছেন তিনি। যে কারণে তার বিশ্বাস, যদি সেমিতে নেপাল-বাংলাদেশ মুখোমুখি হয় তাহলে যেকোনো দলই জিততে পারে। ছোটন বলেন, ‘ফুটবলের তিন ভিন্ন বিভাগে (রণভাগ-মিডফিল্ড ও অ্যাটাকিং) উন্নতি করেছে মেয়েরা। বল নিয়ন্ত্রণেও রাখারও কৌশল আয়ত্তে আনতে পেরেছে। সব চেয়ে বড় ব্যাপার হলো আত্মবিশ্বাসের কোনো ঘাটতি নেই ফুটবলারদের মধ্যে। ফলে কাগজেকলমে নেপাল শক্তিশালী হলেও বাংলাদেশ এবার তাদের হারানোর সামর্থ্য রাখে’।
৯ তারিখ দ্বিতীয় ম্যাচে ভুটানের মুখোমুখি হবে বাংলাদেশ। গ্র“প পর্বের শেষ ম্যাচে ১১ তারিখ লাল-সবুজের পতাকাধারীদের প্রতিপ স্বাগতিক শ্রীলঙ্কা। গতবারের সাফে খেলা বাংলাদেশ মহিলা দলের ১৪ ফুটবলার রয়েছেন এবারের শ্রীলঙ্কাগামী দলে। বাকি ছয়জনের মধ্যে প্রথমবারের মতো জাতীয় দলে ডাক পেয়েছেন গোলরক রওশন আরা, মিডফিল্ডার রুপা আকতার ও স্টাইকার মুনমুন। ব্রিফিংয়ে বাংলাদেশ মহিলা ফুটবল কমিটির সভাপতি সিরাজুল ইসলাম বাচ্চু ছাড়াও উপস্থিত ছিলেন জাতীয় দলের অধিনায়ক তৃঞ্চা চাকমা ও সহঅধিনায়ক সুনু প্র“ মারমা।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।