বাংলাদেশের তৃতীয় ক্রিকেটার হিসেবে অভিষেকেই ইতিহাস গড়লেন হাসান

ঢাকা, নভেম্বর ২১ (খবর তরঙ্গ ডটকম)- আবুল হাসান রাজু  বাংলাদেশের তৃতীয় ক্রিকেটার হিসেবে অভিষেক টেস্টে শতক করেছেন । ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে খুলনা টেস্টে ১০০ রানে ব্যাট করছেন তিনি। ১৯০২ সালে রেগি ডাফ প্রথম ব্যাটসম্যান হিসেবে অভিষেকে দশ নম্বরে শতক করেন। টেস্ট ক্রিকেটের ১৩৫ বছরের ইতিহাসে সবে দ্বিতীয় ব্যাটসম্যান হিসেবে অভিষেকে দশ নম্বরে শতক করলেন হাসান। এছাড়া দশ নম্বরে আরো দুজন ব্যাটসম্যানের শতক করার কৃতিত্ব রয়েছে। বাংলাদেশের বিশেষজ্ঞ ব্যাটসম্যানদের লজ্জা দেয়া হাসানের ১০৮ বলের ইনিংসটি ১৩টি চার ও ৩টি ছক্কা সমৃদ্ধ।

শাহাদাত হোসেনের বদলে খুলনায় জীবনের প্রথম টেস্ট খেলতে নামেন এর আগে দেশের হয়ে চারটি টি-টোয়েন্টি খেলা এই পেসার। দেশের ৬৫তম ক্রিকেটার হিসেবে টেস্ট খেলতে নেমে ইতিহাস গড়েছেন তিনি। ৬টি প্রথম শ্রেণীর ম্যাচ খেলা এই পেসারের অর্ধশতক একটিই (৬১)।

চা-বিরতির পরপরই ১৯৩ রানে অষ্টম উইকেটের পতনের পর মাঠে নামেন ২০ বছর বয়সী হাসান। শুরুতেই ওয়েস্ট ইন্ডিজ বোলারদের  ওপর চড়াও হন বাঁহাতি এই ব্যাটসম্যান।

প্রথম অর্ধশতকে পৌঁছাতে খেলেন ৫৫ বল। ওয়েস্ট ইন্ডিজ অধিনায়ক ড্যারেন স্যামির বলে লং অফের উপর দিয়ে ছক্কা হাঁকিয়ে অর্ধশতকে পৌঁছান তিনি।

পরের অর্ধশতকটি আসে ৫১ বলে। সুনীল নারায়ণের করা দিনের শেষ ওভারের চতুর্থ বলটি ফ্লিক করে দুই রান নিয়ে ১১০ বছরের মধ্যে প্রথম ক্রিকেটার হিসেবে অভিষেকে শতকে দশম ব্যাটসম্যান হিসেবে শতকে পৌঁছান তিনি।

নবম উইকেটে মাহমুদুল্লাহ রিয়াদের সঙ্গে হাসানের ১৭২ রানের অবিচ্ছিন্ন জুটি চতুর্থ সর্বোচ্চ।

বাংলাদেশের হয়ে এর আগে ভারতের বিপক্ষে চট্টগ্রামে মাশরাফি বিন মুর্তজা ও শাহাদাত ৭৪ রানের জুটি গড়েন।

বাংলাদেশের হয়ে অভিষেকে এর আগে আমিনুল ইসলাম ও মোহাম্মদ আশরাফুল শতক করেন। আমিনুল ভারতের বিপক্ষে ২০০০ সালের নভেম্বরে বাংলাদেশের অভিষেক টেস্টে ও আশরাফুল ২০০১ সালে কলম্বোয় শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে শতক করেন।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।