কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামে ২ মাস পর স্কুলছাত্রীর লাশ কবর থেকে উত্তোলন

চৌদ্দগ্রাম, ২৬ নভেম্বর (খবর তরঙ্গ ডটকম)- কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামে সোমবার ২ মাস ৪ দিনপর লীমা আক্তারের নামে এক স্কুলছাত্রীর লাশ কবর থেকে উত্তোলন করেছে পুলিশ। সোমবার দুপুরে আদালতের নির্দেশে চৌদ্দগ্রামের সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ কামরুল হাসান মোল্লার উপস্থিতিতে পুলিশ কবর থেকে লাশ উত্তোলন করেন।  লীমাকে হত্যার পর লাশ মাটি চাপা দেওয়ার অভিযোগে গত ৩১ অক্টোবর চৌদ্দগ্রামের ৮নং মুন্সীরহাট ইউপি মেম্বার মেম্বারসহ ৪ জনের বিরুদ্ধে তার বাবা লোকমান হোসেন খন্দকার মামলা দায়ের করলে লাশ কবর থেকে উত্তোলনের নির্দেশ দেন আদালত।

মামলার বিবরণীতে জানা গেছে, চৌদ্দগ্রাম উপজেলার মুন্সীরহাট ইউনিয়নের মেষতলা গ্রামে গত ২২ সেপ্টেম্বর স্থানীয় মুন্সীরহাট তাহেরা খাতুন উচ্চ বালিকা বিদ্যালয়ের ৮ম শ্রেণির ছাত্রী তিনপাড়া গ্রামের লোকমান হোসেন খন্দকারের মেয়ে লীমা আক্তারকে নির্যাতন করে হত্যার অভিযোগে মুন্সীরহাট ইউপি মেম্বার তাজুল ইসলাম, তার ছেলে তারেক হোসেন, মাসুদ ও স্ত্রী মোমেনা খাতুনসহ ৪ জনের বিরুদ্ধে ৩১ অক্টোবর কুমিল্লার সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট সৈয়দ মো. কায়সার মোশাররফ ইউসুফের আদালতে নিহতের বাবা বাদী হয়ে হত্যা মামলা দায়ের করেন। আদালত মামলাটি আমলে নিয়ে চৌদ্দগ্রাম থানার ওসিকে এফআইআর হিসেবে গ্রহণ করার জন্য নির্দেশ দেন।

এদিকে কুমিল্লার জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আমলি আদালত-৫ এর নির্দেশমতে সোমবার দুপুরে চৌদ্দগ্রামের সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ কামরুল হাসান মোল্লা এবং মামলার বাদীর উপস্থিতিতে চৌদ্দগ্রাম থানা পুলিশ মুন্সীরহাট ডিগ্রি কলেজের কাছে দিঘীরপাড় কবরস্থান থেকে ২ মাস ৪ দিন পর স্কুলছাত্রী লীমার লাশ উত্তোলন করে।

আদালতের নির্দেশমতে মামলাটি থানায় রেকর্ড করা হলেও মামলার আসামিদের কেউ গ্রেফতার হয়নি। এ বিষয়ে চৌদ্দগ্রাম থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোজাম্মেল জানান, লাশ উত্তোলন করে কুমেক হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। মেয়েটি বিষ খেয়ে আত্মহত্যা করেছিল। মেয়েটির মৃত্যুর পর তার বাবা-মা থানা থেকে এসে লাশ নিয়ে গিয়েছিল। তখন কেউ মামলা করেনি।

 

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।