ইয়াসির আরাফাতের লাশ উত্তোলন

নিউজ ডেস্ক,নভেম্বর ২৭ (খবর তরঙ্গ ডটকম)-  ফিলিস্তিনের প্রয়াত নেতা ইয়াসির আরাফাতকে বিষ প্রয়োগে হত্যা করা হয়েছিল কি না তা খতিয়ে দেখতে মঙ্গলবার তার সমাধি থেকে দেহাবশেষ তোলা হয়েছে।  সুইস, ফ্রেঞ্চ ও রাশিয়ান বিশেষজ্ঞরা তার দেহাবশেষ থেকে মৃত্যুর কারণ অনুসন্ধানে নমুনা সংগ্রহ করবেন বলে বিবিসি জানিয়েছে।  তবে বিষয়টি নিশ্চিত হতে কয়েক মাস সময় লেগে যাবে বলে জানা গেছে। সুইস বিশেষজ্ঞরা আরাফাতের ব্যবহৃত কাপড়ে উচ্চমাত্রার তেজষ্ক্রিয় উপাদান পলোনিয়াম-২১০ খুঁজে পাওয়ায় চলতি বছরের অগাস্টে ফ্রান্স আরাফাতের মৃত্যুর বিষয়টি হত্যাকাণ্ড কিনা এ ব্যাপারে তদন্ত শুরু করে।

আরাফাতের চিকিৎসা নথিতে তার মৃত্যুর কারণ রক্তচাপের ভারসাম্যহীনতার কারণে স্ট্রোকে আক্রান্ত হওয়ার কথা উল্লেখ রয়েছে।

কিন্তু তার সহধর্মীনি সুহা ওই সময়ে ময়নাতদন্তে বাধা দেন। কিন্তু পরবর্তী সময়ে ফিলিস্তিনি কর্তৃপক্ষের প্রতি সমাধি থেকে দেহাবশেষ তুলে ময়নাতদন্তের মাধ্যমে প্রকৃত সত্য উদ্ঘাটনের আহ্বান জানান।

২০০৪ সালে প্যারিসের সামরিক হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ইয়াসির আরাফাতের মৃত্যু হয়। এরপর থেকে তাকে বিষ প্রয়োগে হত্যা করা হয়েছে বলে নানা গুজব ছড়িয়ে পড়ে।

এরআগে ফিলিস্তিনের সাবেক গোয়েন্দা প্রধান তৌফিক তিরায়ি জানান, সমাধিেে ক আরাফাতের দেহাবশেষ নমুনা সংগ্রহ হয়ে গেলে তাকে পুনরায় যথায মর্যাদায় সমাহিত করা হবে।

আরাফাতের দেহাবশেষে পলোনিয়াম-২১০ বা অন্য কোনো বিষাক্ত উপাদান রয়েছে কি না তা পরীক্ষার জন্য বিশেষজ্ঞরা সংগৃহীত নমুনা নিজ দেশে নিয়ে যাবেন বলেও জানান তিনি।

তদন্তের স্বার্থে এ মাসের শুরুতে পশ্চিম তীরের রামাল্লায় আরাফাতের সমাধিস্থলে সাধারণ মানুষের প্রবেশ নিষিদ্ধ করা হয়।

৩৫ বছর ধরে প্যালেস্টাইন লিবারেশন অর্গানাইজেশনের (পিএলও) নেতৃত্বে থাকা ইয়াসির আরাফাত ছিলেন ফিলিস্তিন কর্তৃপক্ষের প্রথম প্রেসিডেন্ট। ১৯৯৬ সালে প্রেসিডেন্ট হন তিনি।

২০০৪ সালে হঠাৎ অসুস্থ হওয়ার দুই সপ্তাহ পর তাকে প্যারিসের একটি সামরিক হাসাতালে নেয়া হয়। সেখানেই চিকিৎসাধীন অবস্থায় ১১ নভেম্বর ৭৫ বছর বয়সে মারা যান তিনি।

ইয়াসির আরাফাতের ব্যবহার করা জিনিসপত্রে পলোনিয়াম ২১০ এর অস্তিত্ব পাওয়ার খবর প্রকাশের পর অনেক ফিলিস্তিনি মনে করেন যে, ইসরায়েল তাকে বিষ প্রয়োগে হত্যা করেছে।

তবে এ ধরনের কর্মকাণ্ডে সম্পৃক্ততার অভিযোগ অস্বীকার করেছে ইসরায়েল।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।