সাঈদীর মামলায় নতুন করে যুক্তি উপস্থাপন শুরু

মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলায় আটক জামায়াতের নায়েবে আমীর দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদীর বিরুদ্ধে নতুন করে আবার যুক্তিতর্ক (আর্গুমেন্ট) উপস্থাপন শুরু হয়েছে।রোববার আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-১- এর চেয়ারম্যান বিচারপতি এটিএম ফজলে কবীরের নেতৃত্বাধীন ট্রাইব্যুনালে নতুন করে এই যুক্তি উপস্থাপন করা হয়।আজ প্রসিকিউটর সৈয়দ হায়দার আলী সাঈদীর বিরুদ্ধে যুক্তিতর্ক উপস্থাপন করছেন। তিনি সাংবাদিকদের বলেন, ট্রাইব্যুনাল-১- এর চেয়ারম্যান পরিবর্তন হওয়ায় সাঈদীর মামলায় নতুন করে আজ যুক্তি উপস্থাপন শুরু করেছি।

হায়দার আলী আরো বলেন, মামলার রায় দিতে চেয়ারম্যানকে শুনতে হবে। এজন্য তিনি আর্গুমেন্ট থেকে শুরু করার নির্দেশ দিয়েছেন।

তিনি বলেন, সাঈদীর বিরুদ্ধে আজকে ৬টি চার্জে যুক্তি উপস্থাপন করা হয়েছে। এখানে ১৯৭১ সালে সংঘটিত বিভিন্ন অপরাধসমূহের পক্ষে যুক্তি দেয়া হয়েছে।

গত ৩ জানুয়ারি জামায়াতের সাবেক আমীর অধ্যাপক গোলাম আযম ও বর্তমান আমীর মাওলানা মতিউর রহমান নিজামীর সঙ্গে সাঈদীর মামলার বিচারও পুনরায় শুরুর আবেদন খারিজ করে দেয় ট্রাইব্যুনাল।

ওইদিন ট্রাইব্যুনাল সাঈদীর মামলায় উভয় পক্ষের যুক্তিতর্ক পুনরায় উপস্থাপনের নির্দেশ দেয়। ১৩ ও ১৪ জানুয়ারি প্রসিকিউশন এবং ১৫, ১৬ ও ১৭ জানুয়ারি আসামিপক্ষের যুক্তিতর্ক উপস্থাপনের তারিখ ধার্য এবং আসামিপক্ষের যুক্তিতর্ক পেশ শেষে তা খণ্ডন ও আইনি যুক্তি তুলে ধরার জন্য প্রসিকিউশন ১ ঘণ্টা সময় পাবে উল্লেখ করে আদেশ দেয় ট্রাইব্যুনাল। সে অনুযায়ী আজ এ যুক্তিতর্ক শুরু হলো।

এরআগে গত ৬ ডিসেম্বর উভয়পক্ষের যুক্তিতর্ক উপস্থাপন শেষে সাঈদীর মামলার রায় যে কোনো দিন দেয়া হবে উল্লেখ করে মামলাটির রায় ঘোষণা অপেক্ষমাণ (সিএভি) রাখে ট্রাইব্যুনাল-১।

ব্যক্তিগত কারণ দেখিয়ে বিচারপতি নিজামুল হক ট্রাইব্যুনাল-১ এর চেয়ারম্যান পদ থেকে গত ১১ ডিসেম্বর পদত্যাগ করেন। এরপর বিচারপতি এটিএম ফজলুল কবীর তার স্থলাভিষিক্ত হন।

সাঈদীর বিরুদ্ধে ২০১১ সালের ৭ ডিসেম্বর প্রসিকিউশনের সাক্ষ্যগ্রহণ শুরু হয়। তার বিরুদ্ধে মামলার তদন্ত কর্মকর্তাসহ (আইও) ২৭ জন সাক্ষী সাক্ষ্য দেন। তাদের মধ্যে ২০ জন মামলায় আনীত অভিযোগ বিষয়ে এবং ৭জন জব্দ তালিকার বিষয়ে সাক্ষ্য দেন।

উল্লেখ্য, ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাতের অভিযোগে দায়ের একটি মামলায় সাঈদীকে ২০১০ সালের ২৯ জুন গ্রেপ্তার করা হয়। পরে ট্রাইব্যুনালের তদন্তসংস্থার আবেদনে ওই বছরের ২ আগস্ট তাকে মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলায় গ্রেপ্তার দেখানো হয়।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।