সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের ওপর ‘কোনো আঘাত বরদাস্ত করা হবে না: খালেদা জিয়া

সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের ওপর ‘কোনো আঘাত বরদাস্ত করা হবে না’, বললেন বিরোধীদলীয় নেত্রী ও বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া। সোমবার বিকেলে এক লিখিত বিবৃতিতে তিনি এই আহ্বান জানান। তিনি বলেন, ‘বিভিন্ন সময় গণবিচ্ছিন্ন শাসকেরা সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি নষ্ট করে জনগণের আন্দোলনকে বিপথগামী করার অপচেষ্টা চালিয়েছে’।  খালেদা জিয়া বলেন, ‘সরকার ব্যর্থ ও গণবিচ্ছিন্ন হয়ে পেশী ও অস্ত্রশক্তির ওপর নির্ভরশীল হয়ে পড়ায় তারা ফ্যাসিবাদী নির্যাতন-নিপীড়ন এবং নির্বিচারে হত্যাকান্ড চালাচ্ছে। কিন্তু এর প্রতিবাদে দেশব্যাপী সর্বস্তরের সাধারণ মানুষ যখন ফুঁসে উঠছে, সেই মুহূর্তে বিভিন্ন স্থানে ধর্মীয় সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের বাড়িঘর ও উপসনালয়ে হামলা, ভাংচুর, অগ্নিসংযোগ ও লুটতরাজের ঘটনা ঘটছে।’

বিরোধী দলীয় নেত্রী বলেন, ‘আমি দ্ব্যর্থহীন ভাষায় বলতে চাই, ধর্ম-গোত্র-সম্প্রদায় নির্বিশেষে এদেশে বসবাসরত প্রতিটি নাগরিকের জান-মাল-সম্ভ্রমের নিরাপত্তা ও ধর্মীয় অধিকারের সুরক্ষায় আমরা বদ্ধপরিকর। এর ওপর কোনো আঘাত বরদাস্ত করা হবে না।’ ‘দেশের বিভিন্ন জায়গায় সাম্প্রদায়িক ও সন্ত্রাসী কার্যকলাপের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে কঠোর হাতে এই অপতৎপরতা দমনের জন্য প্রশাসন ও আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর প্রতি আহ্বান’ জানান বিএনপি চেয়ারপারসন।

‘কুচক্রি মহলের উস্কানিতে দিয়ে ধর্মীয় সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের জীবন, সম্পদ ও সম্মান যেন কোনোভাবে ক্ষতিগ্রস্ত না হয় সে ব্যাপারে সবাইকে সজাগ থাকা’র পরামর্শ দেন খালেদা। পাশাপাশি সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের উপসনালয়, ঘর-বাড়ি, ব্যবসা প্রতিষ্ঠানসহ সকল স্থাপনাকে যে-কোনো আক্রমণ থেকে রক্ষায় বিএনপি এবং অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের নেতা-কর্মীসহ সর্বস্তরের জনসাধারণকে ঐক্যবদ্ধভাবে এগিয়ে আসার আহ্বান জানান তিনি।

বিএনপি চেয়ারপারসন বলেন, ‘স্বৈরশাসকদের এহেন ঘৃণ্য তৎপরতাকে নস্যাৎ করে অতীতের মতো এবারও জনগণকে নিয়ে মোকাবেলা করা হবে’। সংখ্যালঘুদের ওপর এসব আক্রমণের ঘটনায় দুঃখ প্রকাশ করে এসব ঘটনায় নিরপেক্ষ ও বিশ্বাসযোগ্য তদন্ত করে দায়ীদের উপযুক্ত বিচার এবং ক্ষতিগ্রস্তদের ক্ষতিপূরণের দাবি জানান তিনি।

 

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।