বৃহস্পতিবার, অক্টোবর 21, 2021
বৃহস্পতিবার, অক্টোবর 21, 2021
বৃহস্পতিবার, অক্টোবর 21, 2021
spot_img
Homeরাজনীতিশিবির সভাপতির মায়ের সংবাদ সম্মেলন

শিবির সভাপতির মায়ের সংবাদ সম্মেলন

‘রিমান্ডের নামে নিমর্ম নির্যাতনে আমার ছেলের জীবন এখন সংকটাপন্ন’

বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রশিবিরের কেন্দ্রীয় সভাপতি মো. দেলাওয়ার হোসেনকে রিমান্ডের নামে অজ্ঞাত স্থানে নিয়ে নির্যাতনের প্রতিবাদ ও মুক্তির দাবিতে সংবাদ সšে§লন করেছেন তাঁর মা তৈয়বা খাতুন। আজ বিকাল ৫টায় পুরনো ঢাকার কোর্ট স্ট্রিটে আইনজীবির চেম্বারে এই সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়।
সংবাদ সম্মেলনে তৈয়বা খাতুন তাঁর ছেলের জীবন সংকটাপন্ন বলে উল্লেখ করেন। ছেলেকে নির্মম নির্যাতন ও পরিবারকে পুলিশের তরফ থেকে কোন তথ্য না দিয়ে হয়রানির করার কথাও তিনি সংবাদ সম্মেলনে তুলে ধরেন। সংবাদ সম্মেলনে বড় ভাই আলমগীর হোসেনসহ শিবির সভাপতির পরিবারের সদস্যবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।
সংবাদ সম্মেলনে তৈয়বা খাতুনের দেয়া পুরো বক্তব্য নীচে তুলে ধরা হলো।

‘‘প্রিয় সাংবাদিক বৃন্দ,
আসাসালামু আলাইকুম ওয়ারাহমাতুল্লাহ।
আপনারা জানেন আমার ছেলে মো: দেলাওয়ার হোসেন গত ৩১ মার্র্চ-১৩ বিকাল ৩ টায় রাজধানীর শ্যামলীর আমার এক আত্মীয়ের বাসায় যাওয়ার পথে সাদা পোশাকের একদল পুলিশ তাকে সম্পূর্ণ অন্যায় এবং ভিত্তিহীন অজুহাত দেখিয়ে গ্রেফতার করেছে। আমার ছেলে সম্পূর্ণ নির্দোষ। ছোটবেলা থেকে সে কখনও কোন ধরনের অন্যায় কাজের সাথে জড়িত না থাকলেও এই সরকারের নির্দেশে তাকে মিথ্যা মামলায় আটক করে নির্যাতন চালানো হচ্ছে।
আমি নিজে মোহাম্মদপুর থানায় গিয়ে তার খোঁজ জানার চেষ্টা করলে কর্তব্যরত কর্মকর্তা জানান দেলাওয়ার নামে এখানে কেউ নেই আপনি ডিবি অফিসে খবর নেন। আমি ডিবি অফিসে যেয়ে তার খবর নেয়ার চেষ্টা করে ব্যর্থ হই। আমার আশংকা হয় আমার ছেলেকে কোন অজ্ঞাত স্থানে নিয়ে রেখে নির্যাতন চালানো হচ্ছে। পরিবারের পক্ষ থেকে আইনজীবির মাধ্যমে তার সাথে দেখা করার জন্য কোর্টের আদেশ চেয়ে ব্যর্থ হয়ে এবং তার কী অবস্থা তা না জানার কারণে বাধ্য হয়ে এ সংবাদ সম্মেলন করছি।
প্রিয় সাংবাদিক বৃন্দ,
আমার ছেলে নিয়মিত পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ পড়তো, নিয়মিত কুরআন ও হাদিস অধ্যয়ন করতো। নামাজ পড়া কুরআন-হাদিস পড়া কি অপরাধ? তাকে যে অভিযোগের ভিত্তিতে আটক করা হয়েছে তা সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন শুধু নয়, বানোয়াট এবং হয়রানিমূলক। এ সরকারের দমনপিড়নের কারনে আমার ছেলে দীর্ঘদিন ধরে প্রকাশ্যে কোন সভা সমাবেশে যাওয়া থেকে বিরত ছিল। কিন্তু তা সত্ত্বেত্ত তাকে কথিত গাড়ি ভাংচুর ও নাশকতার মামলা দিয়ে তাকে এবং আমার পরিবারকে হয়রানি করা হচ্ছে।
গ্রেফতার করার পর ২০ দিনের রিমান্ড চাইলে আদালত তার ১৪ দিন রিমান্ড মঞ্জুর করে। গত ১৬/৩/২০১৩ তারিখ মোস্তফাকামালসহ দশ আসামীকে একই ধরনের পৃথক দুটি মামলায় পুলিশ সাত ৭ দিন করে পুলিশ রিমান্ড আবেদন করলে আদালত ২দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করে এবং একই সাথে রিমান্ড শেষ করার আদেশ দেয়। কিন্তু আমার ছেলের বেলায় সম্পূর্ন বিপরিত হলো কেন? তাহলে আজ আমি কী ধরে নিব ভিন্নমতের ব্যক্তিদের বেলায় এই দ্বি-মুখী আচরণ?
একটি স্বধীন দেশে একই মামলায় দ্বৈত নিয়ম আইনের শাসনের পরিপন্থি। এটা চলতে থাকলে আমার মত অন্য মায়েরাও ন্যায় বিচার থেকে বঞ্চিত হবে আমি মনে করি যে সামান্য কোনধরনের মামলায় অপরাধ করেনি তাকে ১৪ দিন কেন ১৪ সেকেন্ডও রিমান্ড নেয়ার কোন যৌক্তিকতা নেই।
এর পর দেশের প্রচলিত আইন অনুযায়ী রিমান্ডে জিজ্ঞাসাবাদ করার কথা সংশ্লিষ্ট থানার মামলার আইওর, কিন্তু এ সমস্ত নিয়ম এবং আইনের তোয়াক্কা না কওে, থানা হেফাজতে না নিয়ে তাকে রিমান্ডের নামে ডিবি কার্যালয়ে নিয়ে চরম নির্যাতন করা হচ্ছে।
একটি নির্ভরযোগ্য সূত্রের ভিত্তিতে আমি জেনেছি, আমার ছেলে নির্যাতনের ফলে কয়েকদিন পর্যন্ত সংজ্ঞাহীন অবস্থায় পড়েছিল। তার জীবন এখন সংকটাপন্ন।
এভাবে একজন সুস্থ সবল মানুষকে নিয়ে আইনের দোহাই দিয়ে নির্যাতন কোন ধরনের আজব আইন? আমার ছেলের কিছু হলে এর দায়-দায়িত্ব সরকারকে নিতে হবে। আমি আমার ছেলের মুক্তি দাবি করছি। আমি অন্য কোন পথ না পেয়ে আপনাদের স্মরণাপন্ন হয়েছি। তার জীবনকে এই সংকট অবস্থা থেকে মুক্ত করার জন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করছি। আল্লাহ হাফেজ।’’

RELATED ARTICLES
- Advertisment -spot_img

Most Popular

Recent Comments