রবিবার, নভেম্বর 28, 2021
রবিবার, নভেম্বর 28, 2021
রবিবার, নভেম্বর 28, 2021
spot_img
Homeবাংলাদেশঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে দ্বিতীয় দিনে ৫০ কি.মি.যানজট॥ মানুষের সীমাহীন দুর্ভোগ

ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে দ্বিতীয় দিনে ৫০ কি.মি.যানজট॥ মানুষের সীমাহীন দুর্ভোগ

ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক বাংলাদেশের সবচেয়ে ব্যবস্ততম সড়ক। চট্টগ্রাম সমুদ্রবন্দর থেকে রাজধানী ঢাকার সাথে যোগাযোগের এটিই একমাত্র মহাসড়ক হওয়ায় পরিবহন সেক্টরে এর গুরুত্ব সর্বাধিক। এই রুটে বাস, ট্্রাক, লরি, কার্ভাডভ্যান, মিনিবাস, টেম্পু, সিএনজি, বেবীটেক্সী, মোটর সাইকেল, রিক্সা, ভ্যানসহ প্রতিদিন অসংখ্য ভারী, মাঝারি ও হালকা যানবাহন যাত্রী এবং মালামাল পরিবহন করে থাকে। রাজধানী ঢাকার সাথে কুমিল্লা, নোয়াখালী, ফেনী, লক্ষীপুর, চাঁদপুর, চট্টগ্রাম, কক্্রবাজারসহ দেশের পূবাঞ্চলের সড়ক যোগাযোগ রক্ষার একমাত্র মহাসড়ক এটি। এই সড়ক দিয়ে প্রতিদিন প্রায় ২৫/৩০ হাজার যানবাহন চলাচল করে বলে জানা যায়। দেশের পূর্বাঞ্চলের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ব্যস্ততম সড়ক ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক হরতালের পরদিন  শুক্রবার থেকে আজ শনিবার দাউদকান্দি সেতু এলাকা থেকে চান্দিনা সদর এলাকা পর্যন্ত চার লেনে প্রায় ৫০ কিলোমিটার যানজটের সৃষ্টি হয়। এর কারনে সড়কজুরে অসংখ্য যানবাহন দীর্ঘ সময় ধরে আটকা পড়ে। দীর্ঘ যানজটে আটকা পড়ে যাত্রীদের পোহাতে হয় চরম দুর্ভোগ। এর ফলে যাত্রীদের যেমন সময়ের অপচয় হচ্ছে, তেমনী প্রচন্ড গরম ও ধুলাবালিতে যাত্রীরা অসুস্থ হয়ে পড়ছেন। নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে পৌঁছতে পারছেন না তাদের গন্তব্য স্থানে। সব মিলিয়ে যাত্রীদের দুর্ভোগের সীমা ছিলনা।  গত শুক্রবার ভোর রাত থেকে শুরু হওয়া এ যানজট দিনব্যাপী হয়ে রাত পর্যন্ত গড়ায়। ফের যানজট শুক্রবার মধ্যরাত থেকে শুরু হয়ে আজ শনিবার দিনব্যাপী অব্যহত থাকে। দাউদকান্দির কম্পিউটার ব্যাবসায়ী আব্দুল জলিল জানান, তিনি কুমিল্লার পদুয়া বাজার বিশ্বরোড থেকে সকাল ৮টায় রওয়ানা দিয়ে বিকাল সাড়ে ৪টায় তার গন্তব্য স্থল দাউদকান্দি এসে পৌছে। নোয়াখালীগামী সেবা ট্্রান্সপোর্ট বাসের যাত্রী সাজ্জাদ ইমরান জানান,সকাল ৭টায় ঢাকা সায়েদাবাদ থেকে রওনা দিয়ে দুপুর ১২টায় দাউদকান্দির গৌরীপুরে পৌছি। গৌরীপুরে একটানা আড়াই ঘন্টা যানজটে আটকা পড়ি। ঢাকাগামী বাস যাত্রী ফারুক আহমেদ রিপন জানান, ভোর ৫ টা থেকে সকাল ৯ টায় পর্যন্ত গৌরীপুরের পেন্নাই এলাকায় আটকা পড়ি। ট্্রাক হেলপার জাকির রানা জানান, চান্দিনার মাধাইয়া থেকে দাউদকান্দি পৌছতে সাড়ে ৫ ঘন্টা সময় লেগেছে। ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে দাউদকান্দির গৌরীপুরের সাথে গৌরীপুর-হোমনা, গৌরীপুর-মতলব ও গৌরীপুর-কচুয়া  সড়ক এর সংযোগ থাকায় গৌরীপুর প্রায়শঃই কয়েক কিলোমিটার সড়কজুরে দীর্ঘ যানজট লেগেই থাকে। এছাড়াও গৌরীপুর থেকে বিভিন্ন গন্তব্য স্থানে যাওয়ার জন্য সড়কের দুইপাশে ও উপরে অবৈধভাবে যাত্রীবাহী বাস, মাইক্রো, প্রাইভেটকার, পিকআপ, সিএনজি অটোরিক্্রা, টেম্পু, রিক্্রা পাকিং করে রাখায় মাত্রাতিরিক্ত যানজটের সৃষ্টি হয়। রাস্তায় এলোপাতাড়িভাবে গাড়ি রেখে যাত্রী ও মালামাল উঠানো-নামানো, রাস্তার উপরে গাড়ি পাকিং, পথচারীদের চলাচল পথে বাস, সিএনজি অটোরিক্্রা, মাইক্রো, প্রাইভেটকার, রিক্্রা ষ্ট্যান্ডসহ ব্যাঙ্গের ছাতার মত রাস্তার পাশ ঘেষেঁ উঠা বিভিন্ন দোকানপাট, হাইওয়ে পুলিশের গাফালতির কারনে ঘন্টার পর ঘন্টা গৌরীপুরে যানজট লেগে থাকে। ফলে দূরগামী যাত্রীদের দুর্ভোগের সীমা থাকেনা। গৌরীপুরে কিছু সংখ্যক যুবক কেউবা লাঠি হাতে কেউবা লাঠি ছাড়া বিভিন্ন রুটের গাড়ি গতিরোধ করে রাস্তার উপর দাঁড় করিয়ে যাত্রী ও মালামাল উঠানামা করায়।  এর বিনিময়ে প্রত্যেক গাড়ি থেকে ৩০-৫০ টাকা করে কমিশন নিচ্ছে। যার ফলে সৃষ্টি হচ্ছে যানজট। হাইওয়ে পুলিশের চোখের সামনে এ ধরনের ঘটনা ঘটলেও আজোও পর্যন্ত কোন ব্যবস্থা গ্রহন করেনি।  এ রিপোর্ট প্রেরণ পর্যন্ত যানজট অব্যহত ছিল।


সম্পাদনা: শামীম ইবনে মাজহার,নিউজরুম এডিটর

RELATED ARTICLES
- Advertisment -spot_img

Most Popular

Recent Comments