রবিবার, অক্টোবর 24, 2021
রবিবার, অক্টোবর 24, 2021
রবিবার, অক্টোবর 24, 2021
spot_img
Homeজেলারায়পুর মৎস্য প্রজনন ও প্রশিণ কেন্দ্র টেন্ডারে অনিয়মের অভিযোগ ঠিকাদারদের

রায়পুর মৎস্য প্রজনন ও প্রশিণ কেন্দ্র টেন্ডারে অনিয়মের অভিযোগ ঠিকাদারদের

লক্ষ্মীপুর জেলার রায়পুর মৎস্য প্রজনন ও প্রশিণ কেন্দ্রে তিন লাখ টাকার টেন্ডারে অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে। উর্ধ্বতন বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তার যোগসাযোশে এমন কর্মকান্ডের অভিযোগ করেছেন অনেকেই।
জানা গেছে, মৎস্য প্রজনন ও প্রশিণ কেন্দ্রের উৎপাদন কার্যক্রম পরিচালনায় প্রায় তিন লাখ টাকা ব্যয়ে উন্নতমানের সরিষার খৈল ও গমের ভুষি ক্রয়ের জন্য গত ১০ এপ্রিল প্রকৃত মিল মালিক/সরবরাহকারী/ঠিকাদারদের কাছ থেকে সীলমোহরকৃত খামে দরপত্র আহবান করা হয়। টেন্ডারের দরপত্র সিডিউল বিক্রয়ের শেষ তারিখ ছিল ২৪ এপ্রিল বিকেলে ৫টা পর্যন্ত। টেন্ডার জমা দেওয়ার শেষ সময় ছিল ২৫ এপ্রিল দুপুর ১২টা পর্যন্ত এবং টেন্ডার খোলার তারিখ ছিল ২৫ এপ্রিল দুপুর ১২টা ১৫ মিনিট। নিদিষ্ট সময়ে ৩০টি সিডিউল দরপত্র বিক্রয় হলেও অজ্ঞাত কারণে দাখিল করা হয় মাত্র সাতটি সিডিউল। বাকী সিডিউলের ঠিকাদাররা অফিসে এসে দরপত্র সিডিউল দাখিল করতে না পেরে ফিরে যান। তবে, কাজটি পান স্থানীয় প্রভাবশালী ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান বাবুল ট্রেডার্স ।

ঠিকাদাররা অভিযোগ করে বলেন, নিদিষ্ট সময়ে সিডিউল ক্রয় করে দরপত্র দাখিল করতে গেলে রায়পুর মৎস্য প্রজনন ও প্রশিণ কেন্দ্রের ঊর্ধ্বতন বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা এস এম মহিব উল্যাহ নিজেই বাধা সৃষ্টি করেন। আমরা সিডিউল দাখিল করতে গিয়ে উনার বাধার সম্মুখিন হয়ে ফিরে এসেছি, অথচ অফিসারদেরই দ্বায়িত্ব দরপত্র দাখিলের সময় নিরাপত্তা দিয়ে ঠিকাদারদের সহযোগিতা করা।
এ বিষয়ে রায়পুর মৎস্য প্রজনন ও প্রশিণ কেন্দ্রের ঊর্ধ্বতন বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা এস এম মহিব উল্যাহর কাছে জানতে চাইলে তিনি অফিসের প্রশাসনিক কর্মকর্তা মো. ফারুকউজ্জামানের সঙ্গে দেখা করতে বলে অফিস থেকে বের হয়ে যান।
মৎস্য প্রজনন ও প্রশিণ কেন্দ্রের প্রশাসনিক কর্মকর্তা ফারুকউজ্জামান বলেন, ‘এ বিষয়ে কোনো তথ্য আমার কাছে নেই।’

RELATED ARTICLES
- Advertisment -spot_img

Most Popular

Recent Comments