রামগঞ্জে আওয়ামী লীগের পকেট কমিটি প্রতিহতের ঘোষণা

লক্ষ্মীপুরের রামগঞ্জ উপজেলা চণ্ডিপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের পকেট কমিটি প্রতিহতের ঘোষণা দিয়েছে দলের ৯ ওয়াডের্র ১৪জন সভাপতি ও সম্পাদক। দলের তৃণমূল নেতা-কর্মী মতামতকে উপো করে স্বজনপ্রীতির মাধ্যমে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টিকারী ব্যক্তিকে সভাপতি করে পকেট কমিটি গঠনের পাঁয়তারা করার অভিযোগে বৃস্পতিবার সকালে বিভিন্ন ওয়ার্ডে নেতা-কর্মীরা চন্ডিপুর দলের অস্থায়ী কার্যালয়ে জরুরী সভায় এই ঘোষণা দেয়। এনিয়ে তারা ওই ইউনিয়নে দলবল নিয়ে পৃথক মিছিল করে। এতে নেতাকর্মী ও সমর্থকদের মধ্যে উত্তেজনা বিরাজ করছে।

দলীয় সূত্রে জানা গেছে, উপজেলা চেয়াম্যান মনির হোসেন চৌধুরী রামগঞ্জে বসে চণ্ডিপুর ইউনিয়নের পকেট কমিটি ঘোষণা করার প্র্যায়তারা করেন। এতে সভাপতি পদে কামাল হোসেন ভুঁইয়াকে দিয়ে নাটকীয়ভাবে কমিটি করা হবে। এ খবর ছড়িয়ে পড়লে ওই ইউনিয়নের একাংশের নেতাকর্মীরা ক্ষুদ্ধ হয়ে ওঠে। এনিয়ে তারা ওই ইউনিয়নে দলবল নিয়ে পৃথক মিছিল করে। এতে নেতাকর্মী ও সমর্থকদের মধ্যে উত্তেজনা বিরাজ করছে।

দলের ২নং ওয়ার্ড সভাপতি মোজাম্মেল হোসেন, আবদুল মন্নান, নূরুল আমিন, মিজানুর রহমান, মেম্বার মাসুদ আলম, আবুল কালাম, নুরুল আমিনসহ বিভিন্ন ওয়াডের্র নেতাকর্মী ও সমর্থকেরা বলেন, দলের গঠনতন্ত্র মোতাবেক গত ৫ জানুয়ারীতে চণ্ডিপুর মনসা উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে ত্রি-বার্ষিক কাউন্সিল অনুষ্ঠিত হয়। কাউন্সিলদের ভোটের মাধ্যমে নেতা নির্বাচন করতে গেলে অপর প্রার্থী কামাল হোসেন কাউন্সিলে পরাজয় নিশ্চিত ভেবে দ্বিতীয় অধিবেশন চলাকালে বাকবিতন্ডা শুরু করেন। হামলা চালিয়ে চেয়ার-টেবিল ভাংচুর করে সম্মেলন ভন্ডুল করে দেয়। অসংখ্য ককটেল বিস্ফোরন ও নেতা-কর্মীদের মারধর করে। এ ঘটানার কারণে আশপাশের লোকজন আতংকিত হয়ে পড়ে। ওই সংঘর্ষের ঘটনায় কমপে ১০ নেতা-কর্মী আহত হয়। এ ঘটনার পর নেতা-কর্মীরা আ’লীগের গঠনতন্ত্র অনুযায়ী কমিটি গঠনের জোর দাবি জানায়।

জানতে চাইলে চন্ডিপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ও আ’লীগের সভাপতি নুরুল ইসলাম বলেন, গত ৫ জানুয়ারীর বিষয়টি উপজেলা নেতৃবৃন্দকে অবহিত করা হয়। কামাল হোসেন উপজেলা চেয়াম্যান ও আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি মনির হোসেন চৌধুরী আত্মীয় বলে যাই করে থাকে। উপজেলা নেতৃবৃন্দুরা কোন পদপে নেয়নি। তাই ুদ্ধ হয়ে ওঠে সাধারণ নেতা-কর্মীরা। আমি চাই দলের তৃণমূল নেতা-কর্মী মতামতকে উপো করে স্বজনপ্রীতির মাধ্যমে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টিকারী কাউন্সিলদের ভোটের মাধ্যমে কমিটি করা হোক।

এ ব্যাপারে জানতে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মো. শাহাজানের মুঠোফোনে কয়েকবার যোগাযোগ করার চেষ্টা করেও পাওয়া যায়নি।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।