মানুষ হত্যা করবেন না, কী চান তা সংসদে এসে বলুন: প্রধানমন্ত্রী

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিরোধীদলীয় নেতা ও বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াকে উদ্দেশ করে বলেছেন, “আন্দোলনের নামে গরিব মানুষের পেটে লাথি মারবেন না। জ্বালাও-পোড়াও করবেন না। মানুষ হত্যা করবেন না। কী চান তা সংসদে এসে বলুন।” শনিবার সকালে প্রধানমন্ত্রীর সরকারী বাসভবন গণভবনে কিশোরগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের তৃণমূল নেতাকর্মীদের সঙ্গে এক মতবিনিময় সভায় আওয়ামী লীগ সভাপতি এ কথা বলেন। শেখ হাসিনা বলেন, “১৫ ফেব্রুয়ারির কারচুপি ও মাগুরা মার্কা নির্বাচন বাংলাদেশের মাটিতে আর হতে দেয়া হবে না। জনগণের সাংবিধানিক গণতান্ত্রিক ও ভোটের অধিকার বজায় থাকবে। জনগণ যাদের ভোট দেবে তারাই ক্ষমতায় বসবে।”
বিরোধী দলের ডাকা হরতালকে ইঙ্গিত প্রধানমন্ত্রী বলেন, “উনি আর কোন মুখে আন্দোলনের কথা বলেন? ওনার ৪৮ ঘণ্টার আল্টিমেটাম ব্যর্থ হয়েছে। তিনি জনগণ ও তার দলের নেতা কর্মীদের হেফাজতকে সাহায্যের আহ্বান জানালেন; কিন্তু তার দলের নেতাকর্মীরাই সেখানে গেলেন না।”

শেখ হাসিনা বলেন, “আমারা দেশকে সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদমুক্ত করেছি। দেশবাসী স্বস্তিতে আছে। এটা বিরোধীদলীয় নেতার ভালো লাগছে না। ক্ষমতায় থেকে লুটপাট করতে পারছেন না। তাই উনার মন খারাপ।”

দেশবাসীকে সজাগ ও সতর্ক থাকার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, “আর যেন কেউ সংবিধান লঙ্ঘন করে ক্ষমতায় আসতে না পারে। দুর্নীতিবাজ, লুটেরা ও জঙ্গিবাদ সুষ্টিকারীরা যেন আর ক্ষমতায় বসতে না পারে সেদিকে সবাইকে সতর্ক থাকতে হবে।”

মতবিনিময় সভায় আরো উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য কাজী জাফর উল্লাহ, সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ, ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ বিষয়ক সম্পাদক ফরিদুন্নাহার লাইলী, কেন্দ্রীয় এনামুল হক শামীম ও সহ-দফতর সম্পাদক অ্যাডভোকেট মুণাল কান্তি দাস।

আওয়ামী লীগ কার্যনির্বাহী সংসদের সব কর্মকর্তা, সদস্য এবং কিশোরগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগ কার্যনির্বাহী সংসদের কর্মকর্তা ও সদস্য, উপদেষ্টা পরিষদ, জাতীয় কমিটির সদস্য, দলের সংসদ সদস্য, জেলা পরিষদের প্রশাসক, সব উপজেলা, থানা, পৌর ও ইউনিয়ন শাখার সভাপতি, সাধারণ সম্পাদক, দল সমর্থিত উপজেলা চেয়ারম্যান, ভাইস-চেয়ারম্যান, পৌরসভার মেয়র ও কাউন্সিলার, ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান এবং সহযোগী ও ভ্রাতৃপ্রতিম সংগঠনের জেলা ও উপজেলা শাখার সভাপতি সাধারণ সম্পাদকরাও এ সময় উপস্থিত ছিলেন।


সম্পাদনা: শামীম ইবনে মাজহার,নিউজরুম এডিটর

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।