ভূমি কমিশন আইন সংশোধনী বাতিল দাবিতে পাহাড়ে অবরোধ

ভূমি কমিশনে বাঙালি প্রতিনিধিত্ব নিশ্চতকরণ, চেয়ারম্যানের ক্ষমতা খর্ব করাসহ আইন সংশোধনী প্রস্তাব বাতিলের দাবিতে বৃহস্পতিবার খাগড়াছড়ি, রাঙ্গামাটি  জেলায় সকাল-সন্ধ্যা ও বান্দরবানে অর্ধদিবস সড়ক ও নৌপথ অবরোধ কর্মসূচি পালন করছে পার্বত্য বাঙালি ছাত্র পরিষদ (পিবিসিপি) ও পার্বত্য নাগরিক পরিষদ।

বান্দরবান: পার্বত্য সমঅধিকার আন্দোলন পরিষদ, বাঙালি ছাত্র পরিষদ ও গণপরিষদ যৌথভাবে সকাল-সন্ধ্যা সড়ক ও নৌপথ অবরোধ করছে পাহাড়ে। সকাল থেকে বান্দরবানে যানবাহন চলাচল বন্ধ রয়েছে। দূরপাল্লার কোনো যানবাহন চলাচল করেনি। নেতাকর্মীরা পিকেটিং করেছে।  অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে শহরের বিভিন্ন জায়গায় পুলিশ মোতায়েন করা হয়। জিয়াউর রহমানের মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে বান্দরবানে অবরোধ কর্মসূচি দুপুর পর্যন্ত (অর্ধদিবস) পালিত হবে বলে জানিয়েছেন সংগঠনের নেতারা।

সংগঠনের নেতারা বলেছেন, “ভূমিবিরোধ নিষ্পত্তি কমিশনের আইন সরকার একপেশেভাবে সংশোধনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এর ফলে পাহাড়ে বসবাসকারী বাঙালিরা ক্ষতিগ্রস্ত হবেন এবং অশান্তি আরো বাড়বে। অবিলম্বে প্রস্তাবিত সংশোধনী আইন বাতিল করা না হলে পার্বত্য চট্টগ্রামে হরতাল-অবরোধসহ আরো কঠোর কর্মসূচির ডাক দেয়া হবে বলে হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেছেন নেতারা।

খাগড়াছড়ি: খাগড়াছড়ি জেলায় সকাল-সন্ধ্যা সড়ক ও নৌপথ অবরোধ পালন করছে পার্বত্য বাঙালি ছাত্র পরিষদ (পিবিসিপি) ও পার্বত্য নাগরিক পরিষদ।

ভূমি কমিশন আইনের বিতর্কিত সংশোধনী প্রস্তাব সম্প্রতি মন্ত্রিসভায় নীতিগত অনুমোদন দেয়ার প্রতিবাদে গত মঙ্গলবার খাগড়াছড়ি প্রেস ক্লাবে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলন থেকে এ কর্মসূচি ঘোষণা করা হয়।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন বাঙালি ছাত্র পরিষদের খাগড়াছড়ি জেলা কমিটির আহ্বায়ক আবদুল মজিদ। এ সময় উপস্থিত ছিলেন সংগঠনটির জেলা আহবায়ক কমিটির সদস্য শাহাজল ইসলাম সজল, মাসুম রানা, লোকমান হোসেন, ওমর ফারুক।

লিখিত বক্তব্যে বলা হয়, একদিকে পার্বত্য ভূমি কমিশনের আইন সংশোধনী প্রস্তাব মন্ত্রিসভায় অনুমোদন দিয়েছে। অন্যদিকে পার্বত্য জেলা পরিষদের কাছে স্থানীয় পুলিশ বিভাগ হস্তান্তরের উদ্যোগ চলছে। যা পার্বত্য অঞ্চলের বাঙালি জনগণকে তাদের ন্যূনতম নাগরিক অধিকার থেকে বঞ্চিত করবে। ভূমি কমিশন আইন সর্বাভৌম কর্তৃত্ব ও সংবিধানের সঙ্গে সাংঘর্ষিক বলেও দাবি করা হয়।

রাঙ্গামাটি: রাঙ্গামাটি জেলায় সকাল-সন্ধ্যা সড়ক ও নৌপথ অবরোধ পালন করছে পার্বত্য নাগরিক কমিটি, পার্বত্য বাঙালি ছাত্রপরিষদ ও পার্বত্য যুবফ্রন্ট।

মঙ্গলবার সংগঠনগুলোর নেতারা এই অবরোধ কর্মসূচির ঘোষণা দেন। তাদের মতে, ভূমি কমিশন আইন সংশোধনী সংসদে আইন হিসেবে পাস হলে পার্বত্য অঞ্চলে বাঙালি জনগণ তাদের ন্যূনতম নাগরিক অধিকার থেকে বঞ্চিত হবে দেশের সার্বভৌম কর্তৃত্ব ও সংবিধানের সঙ্গে সাংঘর্ষিক এবং পার্বত্য এলাকায় বাঙালি ও সেনাবাহিনীর অবস্থান ও সরকারের কর্তৃত্বকে দুর্বল করে দেবে।
এদিকে অবরোধের কারণে সকাল থেকে রাঙ্গামাটি শহরে দূরপাল্লার কোনো যানবাহন প্রবেশ করছে না এবং যাচ্ছে না। লঞ্চ চলাচল বন্ধ রয়েছে। শহরে বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্টে পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

অন্যদিকে পার্বত্য চট্টগ্রাম সমঅধিকার আন্দোলন ও ছাত্র আন্দোলন একই দাবিতে ২ জুন হরতাল পালনের কর্মসূচি ঘোষণা করেছে।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।