ফের ওয়াকআউট বিএনপির

জাতীয় সংসদের বাজেট অধিবেশনে বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা রাষ্ট্রপতি শহীদ জিয়াউর রহমান এবং দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য মওদুদ আহমদকে নিয়ে পাট ও বস্ত্রমন্ত্রী আব্দুল লতিফ সিদ্দিকীর করা মন্তব্যে হঠাৎ করেই সন্ধ্যার আগে উত্তপ্ত হয়ে ওঠে । এক পর্যায়ে সোমবার থেকে শুরু হওয়া চলতি অধিবেশনে দ্বিতীয় দিনের মতো বিরোধী দল ওয়াকআউট করেন। এর আগে বিএনপি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রশ্নোত্তর পর্বেও যোগ দেয়নি। বিকেল সোয়া ৫টার দিকে স্পিকার শিরিন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে অধিবেশন শুরু হলে প্রথমেই আধা ঘণ্টা চলে প্রধানমন্ত্রীর প্রশ্নোত্তর পর্ব।

সে সময়ে বিএনপির নেতৃত্বাধীন বিরোধী দল সংসদে থাকলেও অধিবেশনে যোগ দেয়নি। সন্ধ্যা ৬টা ৩ মিনিটে প্রধানমন্ত্রীর প্রশ্নোত্তর পর্ব শেষ হলে তার কিছুক্ষণ পরেই বিরোধী দল অধিবেশনে প্রবেশ করে। আর ৬টা ৪৫ মিনিটে ওয়াকআউট করে।

বুধবার মাগরিবেরর নামাযের বিরতির আগে সংসদে এই ঘটনা ঘটে।

সংসদ সদস্য কেরামত আলীর এক সম্পূরক প্রশ্নের জবাবে পাট ও বস্ত্রমন্ত্রী আব্দুল লতিফ সিদ্দিকী বলেন, ‘আশির দশকে জিয়াউর রহমানের আমলেই ৭৭টি পাটকলের মধ্যে ৫০টি বেসরকারি খাতে দেয়া হয়। তখনই মূলত পাটকল বন্ধ হওয়া শুরু হয়েছিল। এজন্য দায়ী জিয়াউর রহমান।’

মন্ত্রীর বক্তব্যের সময় বিরোধী দলের সদস্যরা হৈ চৈ শুরু করেন। শহীদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানি দাঁড়িয়ে এর প্রতিবাদ জানান। তিনি পাটমন্ত্রীর ওই বক্তব্য এক্সপাঞ্জের দাবি জানান। তবে মন্ত্রী তার বক্তব্য চালিয়ে যেতে থাকলে একদিকে বক্তব্য আর অন্যদিকে হৈ চৈ চলতে থাকে।

এক পর্যায়ে স্পিকার শিরিন শারমিন চৌধুরী বিরোধীদলীয় সদস্যদের শান্ত হতে বলেন এবং মন্ত্রীর বক্তব্যের পরে তারাও প্রশ্ন করার সুযোগ পাবেন বলে জানান।

মন্ত্রীর বক্তব্য শেষে স্পিকার বিরোধীদলীয় সদস্যদের কাছে জানতে চান তাদের কেউ পাটমন্ত্রীকে সম্পূরক প্রশ্ন করতে চান কিনা? এ সময় মওদুদ আহমদ দাঁড়িয়ে কোনো প্রশ্ন না করে বলেন, ‘প্রশ্নের উত্তরে অপ্রাসঙ্গিক বিষয় তুলে বক্তব্য দেয়া ঠিক না।’

তিনি আব্দুল লতিফ সিদ্দিকীকে লক্ষ্য করে বলেন, ‘মন্ত্রী তার সুযোগের সদ্ব্যবহার করেননি। কেন না প্রশ্নের উত্তর নির্দিষ্ট বিষয়ে সীমাবদ্ধ থাকা উচিত। সংসদীয় রীতি-নীতি সেটিই বলে, সেটি শেখা উচিত।’

মওদুদ আহমদ স্পিকারকে লক্ষ্য করে বলেন, ‘মন্ত্রীরা যাতে প্রশ্নের বাইরে অপ্রাসঙ্গিক বিষয়ে কথা না বলেন, সেদিকে আপনি দৃষ্টি রাখবেন। না হলে উত্তেজনা তৈরি হবে এবং এতে আপনার সংসদ পরিচালনা করতে অসুবিধা হবে।’

মওদুদ আহমদের এই বক্তব্যের পরে আরেকজন সংসদ সদস্যের সম্পূরক প্রশ্নের জবাব দিতে গিয়ে পাটমন্ত্রী এবার মওদুদ আহমদকে ইঙ্গিত করে বলেন, ‘তিনি আজকে সংসদে আসতে পেরেছেন খালেদা জিয়ার ছেড়ে দেয়া আসনে উপনির্বাচন করে। তবে মওদুদ আহমদের সঙ্গে আমার সম্পর্ক অত্যন্ত মধুর।’

এ সময় বিরোধী দলের সদস্যরা ফের হৈ চৈ শুরু করলে স্পিকার মন্ত্রীকে প্রশ্নের উত্তর দেয়ার অনুরোধ জানান। কিন্তু পাটমন্ত্রী বলেন, ‘বিরোধী দল সংসদে এসেছে। একটু তাঁতিয়ে না উঠলে সংসদ জমে না। এভাবেই সংসদীয় গণতন্ত্র বিকশিত হবে।’

এ সময় লতিফ সিদ্দিকী মওদুদ আহমদকে উদ্দেশ্য করে বলেন, ‘সামরিক শাসন জারি না হলে আপনারা সংসদে আসতে পারতেন না।’ তার এই বক্তব্যের পরপরই ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদের নেতৃত্বে বিরোধী দল ওয়াকআউট করে।


সম্পাদনা: শামীম ইবনে মাজহার,নিউজরুম এডিটর

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।