বৃহস্পতিবার, অক্টোবর 21, 2021
বৃহস্পতিবার, অক্টোবর 21, 2021
বৃহস্পতিবার, অক্টোবর 21, 2021
spot_img
Homeজেলারায়পুরে হারবালের নামে অবাধে বিক্রি হচ্ছে যৌন উত্তেজক সিরাপ

রায়পুরে হারবালের নামে অবাধে বিক্রি হচ্ছে যৌন উত্তেজক সিরাপ

লক্ষ্মীপুরের রায়পুর শহরে বৃহস্পতিবার (৬ জুন) দুপুর ৩টার বোম্বে ষ্টোর নামে এক কনফেকশনারি দোকানে যৌন দুর্বলতা ও স্নায়ুবিক দুর্বলতা দূর করে এবং মানসিক ও শারীরিক শক্তি যোগায় এ ধরণের লেখায় আকছিটন নামের যৌন উত্তেজক সিরাপ কয়েক যুবকের কাছে বিক্রির সময় পৌর সেনেটারি ইন্সপেক্টরের হাতে ধরা পড়েছেন দোকান মালিক।
এসময় এ অভিযান দেখে অন্য কনফেকশনারি দোকান মালিকরা এসব অবৈধ সিরাপ লুকিয়ে ফেলে।
এসব অবৈধ সিরাপ বিক্রি করার অভিযোগ পাওয়ার পর অভিযানে নামলেও রাজনৈতিক হস্তক্ষেপ ও নানা প্রতিবন্ধকতার কারণে ব্যবস্থা নিতে পারছেন না বলে অভিযোগ ওঠেছে।
উপজেলা পরিষদ সড়কের মার্চ্চেন্টস একাডেমীর মার্কেটে সন্তোষ দাসের মালিকানাধীন বোম্বে ষ্টোর নামের কনফেকশনারি দোকানে গিয়ে আকসিটন (সরবত জিনসিন) যৌন উত্তেজক ৬টি সিরাপ পাওয়া যায়। সেগুলো জেলার ডিলারের মাধ্যমে পাবনার প্রস্তুতকারক এসএমজি ফার্মাসিউটিক্যাল (ইউনানি) থেকে আমদানি করা হয়েছে।
জানতে চাইলে দোকান মালিকের ছেলে শুভ দাস বলেন, এ সিরাপের ডিলার লক্ষ্মীপুরের ব্যবসায়ী ঘোর সাহার কাছ থেকে পাইকারি দামে কিনে এনে বিক্রি করছি। এ সিরাপ বিক্রিতে অন্যায় হলে আর করবোনা।
এসময় ইব্রাহিম হোসেন নামের ফরিদগঞ্জ শহরের এক বেকার যুবক সাংবাদিক দেখে বলেন, দুইদিন আগে বন্ধুদের আড্ডায় পড়ে এ আকছিটন সিরাপটি পান করি। এতে আমার মাথাসহ পুরো শরীর গরম হয়ে গেছে। বুমির ভাব হয়। পরে শপথ নিয়েছি এ ধরণের ওষুধ আর খাবনা। এছাড়াও লিডার, ফিউচর হর্স, হট পাওয়ার ও পাওয়ার সেক্সসহ এ ধরণের অনেক সিরাপ অবৈধভাবে কিনে এনে কনফেকশনারি মালিকরা অবাধে বিক্রি করছেন। একই অভিযোগ দিলেন তার সাথে আসা নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ৪/৫ যুবক।
রায়পুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. ইমদাদুল হক বলেন, এ ধরণের সিরাপ সেবন করা শরীরের জন্য মারাত্মক ক্ষতিকর। তাতে লিভার, হার্ট ও কিডনিতে মারাত্মক সমস্যা হয়। যুবক শ্রেণিদের এগুলো পরিহার করাই ভালো। প্রশাসন এর জন্য কঠিন ব্যবস্থা নেয়া উচিত বলে মন্তব্য করেন।
রায়পুর পৌরসভার সেনেটারি ইন্সপেক্টর নাহিদ পাটওয়ারী বলেন, সন্তোষ দাসের এ কনফেকশনারি দোকানটিতে কয়েকবার অভিযান চালিয়ে লিডার নামের অবৈধ যৌন উত্তেজক সিরাপ বিক্রি করা বন্ধ করা হয়েছে। এরপরও তিনি আইন অমান্য করে অবৈধ আকছিটন সিরাপ বিক্রি করার অভিযোগ পাওয়ায় তল্লাশি করে ৬টি পাওয়া যায়। যখনই অভিযানে নামা হয় তখন তা দোকানিরা লুকিয়ে ফেলেন। তিনি দুঃখ করে আরে বলেন, এ অভিযান চালাতে গিয়ে রাজনৈতিক ব্যক্তিদের হস্তক্ষেপ ও নানার প্রতিবন্ধকতার শিকার হতে হয়। তারপরও চেষ্টা করছি।
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট দুলাল চন্দ্র সূত্রধর বলেন, প্রায় সময় ভ্রাম্যমান আদালতের মাধ্যমে এসব অসাধু ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে জরিমানা আদায় ও দন্ড দেয়া হয়। তারপরও ব্যবস্থা নেয়া হবে।


সম্পাদনা: শামীম ইবনে মাজহার,নিউজরুম এডিটর

RELATED ARTICLES
- Advertisment -spot_img

Most Popular

Recent Comments