সংসদ সদস্য আযাদকে নিয়ে বিভ্রান্তিমূলক বক্তব্যের প্রতিবাদ জানিয়ে কক্সবাজার জেলা জামায়াতের বিবৃতি

বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর কেন্দ্রীয় কর্মপরিষদ সদস্য, ঢাকা মহানগরী নায়েবে আমীর ও মহেশখালী-কুতুবদিয়া আসন থেকে নির্বাচিত জাতীয় সংসদ সদস্য হামিদুর রহমান আযাদকে নিয়ে বিভ্রান্তিমূলক, মনগড়া মন্তব্যের প্রতিবাদ জানিয়ে বিবৃতি দিয়েছেন জামায়াতের কেন্দ্রীয় কর্মপরিষদ সদস্য ও কক্সবাজার জেলা আমীর মুহাম্মদ শাহজাহান ও সেক্রেটারী জিএম রহিমুল্লাহ। বিবৃতিতে নেতৃবৃন্দ বলেন, এমপি হামিদ আযাদের জনপ্রিয়তায় ইর্ষান্বিত হয়ে দেশের সংবিধান ও আইন-আদালতকে তোয়াক্কা না করে সরকারের কয়েকজন নেতা ও কতিপয় মিডিয়া সংসদ সদস্য পদ বাতিল প্রশ্নে যে বক্তব্য রেখেছেন আমরা তার তীব্র নিন্দা জানাই। সরকার দলীয় একটি মহল বিশেষ করে এ অপপ্রচারে লিপ্ত রয়েছে। একের পর এক মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানি করার মাধ্যমে সরকার তার গণতান্ত্রিক অধিকার কেড়ে নিয়েছে। জনগণ থেকে বিচ্ছিন্ন করার জন্য সরকার তাকে জুলুম-নির্যাতন করে যাচ্ছে। অথচ সরকার তার বিরুদ্ধে যত জুলুম নির্যাতন বৃদ্ধি করছে, তার প্রতি জনগণের সমর্থন ও ভালবাসা ততই বৃদ্ধি পাচ্ছে।
নেতৃবৃন্দ আরো বলেন, হামিদ আযাদ এমপি নির্বাচিত হওয়ার পর থেকে জনগণের সুখে-দু:খে অংশগ্রহণ করেছেন। এলাকার উন্নয়নমূলক কাজ অব্যাহত রেখেছেন। মহেশখালীর সোনাদিয়ায় গভীর সমূদ্রবন্দর স্থাপনে উল্লেখযোগ্য ভূমিকা রাখছেন। এহেন প্রশংসিত কাজে ইর্ষান্বিত হয়েই মূলত তার বিরুদ্ধে অপপ্রচার চালাচ্ছেন। এখন যেনতেন ব্যাখ্যার মাধ্যমে তার সংসদ সদস্য পদ বাতিলের চেষ্টার মাধ্যমে প্রমাণিত হয় তিনি জনগণের কাছে কত সমাদৃত।
নেতৃবৃন্দ এ ধরনের বিভ্রান্তিকর বক্তব্য প্রদান করা থেকে বিরত থাকার জন্য সংশ্লিষ্টদের প্রতি আহ্বান জানান এবং এ সকল বক্তব্যে বিভ্রান্ত না হওয়ার জন্য মহেশখালী ও কুতুবদিয়াবাসীর প্রতিও আহবান জানান।
এদিকে কক্সবাজারের জনপ্রিয় সংসদ সদস্য হামিদুর রহমান আজাদের বিরুদ্ধে দন্ডাদেশ দেওয়ায় ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া জানিয়েছে মহেশখালীর হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিষ্টান ঐক্য পরিষদ। সংখ্যালঘুদের মাঝে ব্যাপক জনপ্রিয়তার কারণে হামিদ আজাদ এম.পি আজকে বর্তমান ফ্যাসিবাদি সরকারের রোষানলের শিকার হয়েছেন বলেও দাবি করেন তারা। উল্লেখ্য যে, সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের মধ্যে হিন্দুদের অধিকাংশই মহেশখালীতে বসবাস করে।
মহেশখালী-কুতুবদিয়া লবণচাষী সমিতির নিন্দা :
মিথ্যা ও ষড়যন্ত্রমূলক মামলায় মহেশখালী-কুতুবদিয়া থেকে নির্বাচিত সংসদ সদস্য জননেতা আলহাজ্ব এ এইচ এম হামিদুর রহমান আযাদকে ষড়যন্ত্রমুলক ভাবে ৩ মাসের সাজা প্রদানের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে মহেশখালী-কুতুবদিয়ার লবণচাষী সমিতির নেতৃবৃন্দ এক যুক্ত বিবৃতি প্রদান করেছেন।
গতকাল দেয়া এক বিবৃতিতে সমিতির নেতৃবৃন্দ বলেন, মহেশখালী-কুতুবদিয়ার লবণচাষীসহ সর্বস্তরের জনগনের ভাগ্যেন্নয়নের জন্য হামিদুর রহমান আযাদ এমপি নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছেন। সততা, নিষ্ঠা ও আন্তরিক সেবা প্রদানের মাধ্যমে তিনি মহেশখালী-কুতুবদিয়াবাসীর অন্তরে স্থান করে নিয়েছেন। প্রাকৃতিক দুর্যোগসহ সকল সমস্যায় মহেশখালী-কুতুবদিয়াবাসী তাকে সর্বদা পাশে পেয়েছে। হামিদুর রহমান আযাদ এমপি শুধু একজন রাজনীতিবিদই নন তিনি একজন বিশিষ্ট সমাজসেবকও বটে।
আমরা অত্যন্ত উদ্বেগের সাথে লক্ষ্য করছি সরকার পরিকল্পিতভাবে জননন্দিত নেতা হামিদুর রহমান আযাদ এমপিকে মহেশখালী-কুতুবদিয়ার জনগণ থেকে বিচ্ছিন্ন করতেই তার বিরুদ্ধে মিথ্যা ও ষড়যন্ত্রমূলক মামলা দিয়ে তাকে হয়রানী করেতে সম্পূর্ণ অন্যায়ভাবে ৩ মাসের সাজা দিয়েছে। কিন্তু কোন ষড়যন্ত্রই মহেশখালী-কুতুবদিয়াবাসীর অন্তর থেকে হামিদুর রহমান আযাদের নাম মুছতে পারবে না। আমরা সরকারের এই ফ্যাসিবাদী আচরণের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচিছ এবং অবিলম্বে  হামিদুর রহমান আযাদ এমপির সকল মিথ্যা মামলা ও হুলিয়া প্রত্যাহারের জন্য সরকারের প্রতি জোর দাবী জানাচ্ছি।
বিবৃতিতে স্বাক্ষর করেন মহেশখালী- কুতুবদিয়া লবণচাষী ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি ডাঃ নুরুল আলম ও সাধারন সম্পাদক মোঃ আবুল মকসুদ।


সম্পাদনা: শামীম ইবনে মাজহার,নিউজরুম এডিটর

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।