অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি ৫.৮ ভাগের বেশি হবে না: বিশ্বব্যাংক

বিশ্ব ব্যাংক তাদের এক প্রতিবেদনে বলছে, বিদায়ী অর্থবছরে সরকার অন্তত ছয় দশমিক তিন শতাংশ অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি আশা করলেও এই হার পাঁচ দশমিক আট শতাংশের বেশি হবে না।‘বৈশ্বিক অর্থনৈতিক সম্ভাবনা’ নামের ঐ প্রতিবেদনটি বৃহস্পতিবার প্রকাশিত হয়েছে। বিশ্ব ব্যাংক বছরে দুবার এই প্রতিবেদন প্রকাশ করে। ১৫ জানুয়ারি প্রকাশিত প্রথম প্রতিবেদনে ২০১২-১৩ অর্থবছরের জন্য বাংলাদেশের পাঁচ দশমিক আট শতাংশ প্রবৃদ্ধির পূর্বাভাসই দেয়া হয়েছিল। এবারের প্রতিবেদনে , ২০১১-১২ অর্থবছরের প্রবৃদ্ধি আগের অর্থবছরের ছয় দশমিক সাত শতাংশ থেকে কমে ছয় দশমিক দুই শতাংশ হওয়ার কারণ হিসেবে ‘দুর্বল’ বাহ্যিক চাহিদা, ‘অনির্ভরযোগ্য’ বিদ্যুৎ নীতিমালাসহ অভ্যন্তরীণ সরবরাহে প্রতিবন্ধকতা ও রাজনৈতিক অস্থিরতাকে দায়ী করা হয়েছে। একই কারণে বিদায়ী অর্থবছরের প্রবৃদ্ধিও কমছে বলেও প্রতিবেদনে বলা হয়।

২০১০-১২ সময়ে বাংলাদেশ তুলনামূলকভাবে দ্রুত প্রবৃদ্ধি অর্জন করে। এছাড়া আন্তর্জাতিক বাজারে পণ্যমূল্য বৃদ্ধি ও সম্প্রসারণমূলক ব্যষ্টিক অর্থনৈতিক নীতিগুলো মিলেমিশে মূল্যস্ফীতির চাপ তৈরি হয়। পরে অর্থনৈতিক সংকোচন এবং অভ্যন্তরীণ বাধাগুলোর সঙ্গে রাজনৈতিক অস্থিরতা থেকে সৃষ্ট বিপর্যয়ের কারণে ২০১২-১৩ অর্থবছরের প্রবৃদ্ধির পূর্বাভাস কমিয়ে দেয়া হয়।

অপর দাতা সংস্থা এশীয় উন্নয়ন ব্যাংক এর আগে বাংলাদেশের বিদায়ী অর্থবছরের প্রবৃদ্ধির পূর্বাভাস দিয়েছিল পাঁচ দশমিক সাত শতাংশ।

অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত দাতা সংস্থাগুলোর কমিয়ে ধরা এসব পূর্বাভাস প্রত্যাখ্যান করে বরাবরের মতোই সংসদে বলেছেন, প্রবৃদ্ধি ছয় দশমিক তিন শতাংশ থেকে ছয় দশমিক আট শতাংশের মধ্যে থাকবে।


সম্পাদনা: শামীম ইবনে মাজহার,নিউজরুম এডিটর

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।