বগুড়ায় সহপাঠীকে ছুরিকাঘাত, ১ বছরের কারাদণ্ড

বগুড়ার গাবতলী উপজেলার সীমান্তবর্তী সৈয়দ আহম্মদ কলেজে রানী খানম স্মরণী (১৮) নামের এক কলেজ ছাত্রী সহপাঠী শাহরিয়ার ইসলাম দুদুর (২২) হাতে ছুরিকাহত হয়েছেন। অপরাধ প্রমাণিত হওয়ায় শাহরিয়ার ইসলাম দুদুকে এক বছরের বিনাশ্রম কারাদণ্ডাদেশ দিয়েছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত।  বৃহস্পতিবার দুপুরে অপরাধী তার অপরাধ স্বীকার করায় ভ্রাম্যমাণ আদালতের বিচারক নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট গাবতলী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মনিরা সুলতানা এ আদেশ প্রদান করেন।
ছুরিকাহত শিক্ষার্থী রানী খানম স্মরণী গাবতলী উপজেলার রামেশ্বরপুর ইউনিয়নের জাইগুলি গ্রামের শহিদুল ইসলাম খানের মেয়ে এবং সাজাপ্রাপ্ত শাহরিয়ার ইসলাম দুদু একই উপজেলার সোনারা ইউনিয়নের লস্করীপাড়া গ্রামের ভেলু মণ্ডলের ছেলে। তারা উভয়ই গাবতলী উপজেলার তছলিম উদ্দিন কলেজের শিক্ষার্থী।

গাবতলী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আলী আহম্মেদ হাশমী জানান, কলেজ ছাত্রী রানী খানম স্মরণী এবং শাহরিয়ার ইসলাম দুদুর এইচএসসি ব্যবহারিক পরীক্ষার কেন্দ্র ছিল সৈয়দ আহম্মদ কলেজ। বৃহস্পতিবার সেখানে পরীক্ষা দিতে গেলে প্রেম নিবেদন সংক্রান্ত বিষয়ে উভয়ের মধ্যে কথাকাটাকাটি ও ধস্তাধস্তি হয়। এক পর্যায়ে শাহরিয়ার ইসলাম দুদু ধারালো অস্ত্র (অ্যান্টি কাটার) দিয়ে রানী খানমকে আঘাত করে। আঘাতপ্রাপ্ত হয়ে প্রচুর রক্তক্ষণের পর রানী মাটিতে লুটিয়ে পড়ে। দ্রুত তাকে বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ (শজিমেক) হাসপাতালে নেওয়া হয়।

এর পরপরই উপস্থিত শিক্ষার্থীরা শাহরিয়ার ইসলাম দুদুকে ঘিরে ফেলে আটক করে পুলিশের কাছে সোপর্দ করে। পুলিশ ঘটনার বিবরণ ও উপস্থিত স্বাক্ষ্য-প্রমাণের ভিত্তিতে তার বিরুদ্ধে এ সংক্রান্ত অভিযোগ এনে ভ্রাম্যমাণ আদালতে হাজির করে। পরবর্তীতে অপরাধী শাহরিয়ার ইসলাম দুদু তার অপরাধ স্বীকার করায় আদালত তাকে এ সাজা প্রদান করেন।


সম্পাদনা: শামীম ইবনে মাজহার,নিউজরুম এডিটর

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।