কবি নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি আর নেই

‘একবিংশ’ সাহিত্য সাময়িকীখ্যাত কবি ও শিক্ষাবিদ অধ্যাপক খোন্দকার আশরাফ হোসেন আর নেই। রবিবার দুপুর ১২টার দিকে রাজধানীর ল্যাব এইড হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাহে রাজিউন )। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৬৩ বছর। কবি খোন্দকার আশরাফ হোসেন ত্রিশালের জাতীয় কবি নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি হিসেবে দায়িত্ব পালন করছিলেন। গত ৬ মে নজরুল বিশ্ববিদ্যালয়ের তৃতীয় ভিসি হিসেবে যোগ দেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভাগের এই অধ্যাপক।

বিশ্ববিদ্যালয় সূত্রে জানা গেছে, হৃদরোগে ভুগছিলেন কবি আশরাফ। শনিবার বুকে ব্যথা অনুভব করলে তাকে রাজধানীর ল্যাব এইড হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। অবস্থার উন্নতি না হওয়ায় তাকে নিবিড় পর্যবেক্ষণে (আইসিইউ) রাখা হয়।রবিবার দুপুর ১২টার দিকে তিনি মারা যান।

বৃহত্তর ময়মনসিংহের জামালপুর জেলায় সম্ভ্রান্ত এক মুসলিম পরিবারে ১৯৫০ সালে জন্মগ্রহণ করেন এই কবি ও শিক্ষাবিদ।

ত্রিশালে ভিসি হিসেবে যোগ দেওয়ার আগে খোন্দকার আশরাফ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভাগের বিভাগীয় প্রধান এবং মাস্টার দ্য সূর্যসেন হলের প্রভোস্টের দায়িত্বে ছিলেন।

খোন্দকার আশরাফ হোসেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভাগে প্রায় চার দশক শিক্ষকতা করেন। বিভাগীয় প্রধান ছাড়াও সূর্যসেন হলের প্রভোস্ট, বিশ্ববিদ্যালয় ক্লাবের চেয়ারম্যান, উচ্চতর মানববিদ্যা গবেষণা কেন্দ্রের পরিচালকসহ বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করেছেন।

একাধারে কবি, সাহিত্যিক, অনুবাদক ও ‘একবিংশ’সহ বিভিন্ন পত্রিকার সম্পাদনা করে খ্যাতি অর্জন করেন। তার বেশ কয়েকটি কাব্যগ্রন্থ ও প্রবন্ধ বাংলা ও ইংরেজি ভাষায় প্রকাশিত হয়েছে।

তার সৃষ্টিকর্মের মধ্যে রয়েছে- ‘তিন রমণীর কাসিদা’, ‘পার্থ তোমার তীব্র তীর’, ‘জীবনের সমান চুমুক’, ‘সুন্দরী ও ঘৃণার ঘুঙুর’, ‘যমুনা পর্ব’, ‘জন্ম বাউল’ প্রভৃতি। দেশি-বিদেশি খ্যাতনামা জার্নালে তার লেখা প্রকাশিত হয়েছে।

কাজের স্বীকৃতিস্বরূপ আলাওল সাহিত্য পুরস্কার, জীবনানন্দ পুরস্কার, পশ্চিমবঙ্গ লিটল ম্যাগাজিন পুরস্কারসহ বিভিন্ন পুরস্কার অর্জন করেছেন খোন্দকার আশরাফ হোসেন।


সম্পাদনা: শামীম ইবনে মাজহার,নিউজরুম এডিটর

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।