সিটি নির্বাচনে গণতন্ত্র ও জনগণের বিজয়: প্রধানমন্ত্রী

দেশের চার সিটি করপোরেশনে মেয়র পদে বিরোধী জোট সমর্থিত প্রার্থীদের বিজয়কে গণতন্ত্র ও জনগণের বিজয় বলে মন্তব্য করেছেন প্রধানমন্ত্রী ও সংসদ নেতা শেখ হাসিনা। রবিবার জাতীয় সংসদে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদের পয়েন্ট অব অর্ডারে সরকারের পদত্যাগ দাবির জবাবে প্রধানমন্ত্রী একথা বলেন। তিনি বিজয়ীদের অভিনন্দন জানিয়ে আরো বলেন, ‘চার সিটির নির্বাচনে জনগণের বিজয় হয়েছে। আর সুষ্ঠুভাবে জনগণ ভোট দিতে পেরেছে এটাই সরকারের বিজয়।’ শেখ হাসিনা অভিযোগ করেন, ‘সিটি করপোরেশন নির্বাচন নির্দলীয়। কিন্তু তা দল হিসেবে চিহ্নিত হয়েছে। একাত্তরের স্বাধীনতাবিরোধিরা এক হয়েছে। সামরিক সরকারের লোকেরাও এক হয়েছে। তারা ভোটারদের টাকা দিয়েছে। এক রিক্সাওয়ালাকে ১ হাজার করে ১০ জন ১০ হাজার টাকা পর্যন্ত দিয়েছে।’

তিনি জানান, ‘জনগণ ভোট দিয়েছে, নিরপেক্ষ নির্বাচন হয়েছে। ভোটাররা কয়েকটা টাকাও পেলো। সুষ্ঠু নির্বাচন না হলে তারা হয়তো টাকা থেকেও বঞ্চিত হতো।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘বিরোধী দলের নেতা ও উপনেতা নেই। তিনি সদস্য হিসেবে কিছু কথা বললেন। আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় থাকলে জনগণ ভোট দিতে পেরেছে। সুষ্ঠুভাবে নির্বাচন হয়েছে। আগে ভোট চুরি; ভোট ডাকাতি হয়েছে। নির্বাচন মানে ১০টি গুণ্ডা ৫ হুন্ডা। তাদের সময় চট্টগ্রাম নির্বাচন, ঢাকা ১০ নির্বাচন, মাগুরা নির্বাচন, জিয়া ও এরশাদের এবং বিরোধী দলের নেত্রীর অধীনে অনুষ্ঠিত সকল ও নির্বাচনই ছিল ভয়ভীতি ভোট কারচুপি।’

তিনি বলেন, ‘১ লাখ ভুয়া ভোটার দিয়ে নির্বাচন করতে চেয়েছিল। কিন্তু আমরা তা প্রতিহত করেছি। আমাদের একটাই টার্গেট একটি অবাধ নিরপেক্ষ নির্বাচন করা। জনগণ সুষ্ঠুভাবে ভোট দিয়ে যাকে ইচ্ছা নির্বাচিত করবে। আমাদের আমলে ৬ হাজারের কাছাকাছি নির্বাচন হয়েছে। একটি নির্বাচনেও সরকার হস্তক্ষেপ করেনি। নির্বাচন মানেই ভোট চুরি করা ছিল। এ বিষয়ে আমরা স্বচ্ছতা এনেছি।’

বিরোধী দলের উদ্দেশ্যে শেখ হাসিনা বলেন, ‘তারা দুর্নীতি করে টাকা কামিয়েছে, মামলাও মোকাবেলা করতে সাহস পাচ্ছে না। আজও একটি মামলার রায় ছিল, বিরোধী দলের নেত্রী যাননি। সংসদের কাজে ব্যস্ত থাকার কথা বলা হয়েছে। তিনি সংসদে কোথায়?’

তিনি বলেন, ‘আমি বলে দিয়েছি সিটি নির্বাচনে রেজাল্ট যা হবে, মেনে নিতে হবে। কোনো গণ্ডগোল করা যাবে না। নির্বাচনে ভোটচুরি, সন্ত্রাস, ব্যালটবাক্স চুরি এগুলো আজ নেই। গণতন্ত্র এক ধাপ এগিয়েছে। আর আওয়ামী লীগই তা করেছে।’

তিনি আরো বলেন, ‘জনগণ যাকে ভোট দিয়েছে তারা নির্বাচিত হয়েছে। তাদের অভিনন্দন জানাই। অসাংবিধানিক কেউ আসলে কেউই রক্ষা পাবে না নির্বাচনও হবে না। ইসি স্বাধীনভাবে নিরপেক্ষ নির্বাচন করেছে।’

এ সময় প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আগামী নির্বাচনে জনগণ ভোট দিলে আছি, না হলে থাকব না। এ নিয়ে আফসোস করে লাভ নেই। জনগণ ভোট দিতে পেরেছে, জনগণকে ধন্যবাদ। আর সুষ্ঠু নির্বাচন হয়েছে, সরকারের জয় হয়েছে।’


সম্পাদনা: শামীম ইবনে মাজহার,নিউজরুম এডিটর

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।