টেকনাফে ইয়াবার মামলায় পলাতক আসামীর ভূয়া নাম

র‌্যাপিড এ্যাকশন ব্যাটালিয়ন -২ গত ৪ জুন রাতে টেকনাফ সদর ইউনিয়নের নাজির পাড়া গ্রামের এজাহার মিয়ার বাড়ীতে অভিযান চালায়। এ সময় ৩শ ৯০ পিচ ইয়াবা ট্যাবলেট ও ১লক্ষ ৭৬ হাজার ৮ শত টাকাসহ ২ জনকে আটক করে । এসময় নুর মোহাম্মদ ভূট্রো (২৮) নামক এক ব্যক্তি পালিয়ে যাই বলে র‌্যাবের এজাহারে উলে¬খ করা হয়েছে এবং তাকে আসামী করা হয়েছে। প্রকৃত পক্ষে তার আসল নাম নুরুল হক ভূট্রো (২৮) এবং পিতার এজাহার মিয়া বলে জানা গেছে। এজাহারে উলে¬খিত নুর মোহাম্মদ ভূট্রো (২৮) নামে ঐ এলাকায় কোন লোক নেই। এভাবেই নামে গরমিল থাকায় অনেক ইয়াবা ব্যবসায়ী সহজেই চার্জশীট থেকে বাদ হয়ে জামিনে বেরিয়ে আসার সুযোগ সৃষ্টি হচ্ছে বলেও অভিযোগ রয়েছে এবং নামে গরমিল থাকায় প্রকৃত পলাতক আসামীরা প্রকাশ্যে ঘুরছে ও দেদারছে ইয়াবা ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে। শিগগিরই ইয়াবা ব্যবসায় জড়িত প্রকৃত পলাতক আসামীদের বিরুদ্ধে অভিযান পরিচালনা করলে ইয়াবা ব্যবসা থেকে অনেকে বিমূখ হবে বলে মনে করেন টেকনাফের সচেতন মহল। টেকনাফে দেদারছে ঘুরছে বিভিন্ন সময়ে মামলায় অভিযুক্ত পলাতক আসামীরা। এমনকি এসব আসামীদের পাকড়াও করার জন্য এ পর্যন্ত কোন ধরনের অভিযান হয়নি বলে সংশ্লিষ্টদের বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠেছে। ফলে দ্বিগুন উৎসাহিত হয়ে ইয়াবা ব্যবসায় জড়িত হচ্ছে অনেকে। প্রতিমাসে ইয়াবাসহ একাধিক ব্যক্তি পুলিশ ও বিজিবিসহ আইন শৃংখলা বাহিনী আটক করে তাদের বিরুদ্ধে মামলা দিয়ে আদালতে প্রেরন করে। আটক ব্যক্তিদের স্বীকারোক্তিমতে অনেক সময়ে ওই ব্যবসায় জড়িতদের বিরুদ্ধে পলাতক আসামী করা হলেও এ পর্যন্ত কোন পলাতক আসামী আটকের খবর পাওয়া যায়নি। এছাড়া ইয়াবার মূল  গডফাদাররা রয়েছে ধরা ছোয়ার বাইরে রয়ে যাচ্ছে।


সম্পাদনা: শামীম ইবনে মাজহার,নিউজরুম এডিটর

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।