আবুলের বিরুদ্ধে মামলা করেনি দুদক: পদ্মা সেতুতে দূর্নীতির প্রমান থাকা সত্ত্বেও

দুর্নীতি দমন কমিশন-দুদক সাবেক যোগাযোগমন্ত্রী সৈয়দ আবুল হোসেনের বিরুদ্ধে পদ্মা সেতুর ঘুষ দুর্নীতির পর্যাপ্ত তথ্য-প্রমাণ থাকা সত্ত্বেও  মামলা করেনি। অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতের কাছে দেয়া বিশ্বব্যাংকের তদন্ত প্রতিবেদনে এমন তথ্য উঠে আসে। প্রসঙ্গত, ঢাকায় নিযুক্ত বিশ্বব্যাংকের আবাসিক প্রতিনিধি জোহান্স জাট গত ১১ জুন অর্থমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করে বিশ্বব্যাংকের বিশেষজ্ঞ প্যানেলের ওই প্রতিবেদন তার হাতে তুলে দেন।

এরপর গত ১৩ জুন সচিবালয়ে সোনালী ব্যাংক (ইউকে) লিমিটেডের লভ্যাংশ হস্তান্তর অনুষ্ঠানে অর্থমন্ত্রী বলেন, বিশ্বব্যাংকের প্রতিবেদন বস্তুনিষ্ঠ তবে অসম্পূর্ণ।

পদ্মা সেতু প্রকল্পে দুর্নীতি বা দুর্নীতির ষড়যন্ত্রের ওপর করা দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) প্রতিবেদন সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ হয়নি- বিশ্বব্যাংকের প্রতিবেদনে এ কথা বলা হয়েছে।

এতে আরও বলা হয়েছে, দুদকের অভিযুক্তের তালিকায় সাবেক যোগাযোগমন্ত্রী সৈয়দ আবুল হোসেনের নাম নেই। অথচ তিনিই হলেন ষড়যন্ত্রের মূল ব্যক্তি।

পদ্মা সেতু প্রকল্পে দুর্নীতির অভিযোগ তদন্তে সহযোগিতা না করায় ২০১২ সালের জুনে প্রতিশ্রুত ১২০ কোটি ডলারের ঋণচুক্তি বাতিল করে বিশ্বব্যাংক। এরপর শর্তসাপেক্ষে অর্থায়নে ফিরে আসতে সম্মতি দিয়েছিল সংস্থাটি। তবে গত ফেব্রুয়ারিতে সরকারই বিশ্বব্যাংকের কাছ থেকে ঋণ না নিয়ে নিজেদের অর্থায়নেই পদ্মা সেতু নির্মাণের সিদ্ধান্ত নেয়।


সম্পাদনা: শামীম ইবনে মাজহার,নিউজরুম এডিটর

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।