জবির ৩ ছাত্রলীগ কর্মী বহিষ্কার: সাংবাদিক পেটানোর অপরাধে

জবির  ছাত্রলীগের তিনজন কর্মীকে মৌখিকভাবে বহিষ্কার করা হয়েছে বাসে তিন সাংবাদিককে পেটানোর অপরাধে । তারা হলেন রসায়ন বিভাগের চতুর্থ বর্ষের শিক্ষার্থী নাজমুল আলম প্রিন্স, আবদুল্লাহ-আস্-সাদিক ও কামরুজ্জামান জুয়েল। মঙ্গলবার ছাত্রলীগের জবি শাখার সভাপতি এফ এম শরীফুল ইসলাম সাংবাদিকদের এ কথা জানান। শরীফুল বলেন, “আমরা সাংগঠনিকভাবে কারণ দর্শানোর জন্য ছাত্রলীগের ওই তিন কর্মীকে বলেছিলাম, কিন্তু তারা কারণ দর্শাননি। এ কারণে তাদের ছাত্রলীগ থেকে মৌখিকভাবে বহিষ্কার করা হলো।”
এদিকে, মঙ্গলবার বেলা ১১টায় জবি শাখার ছাত্রলীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক সাংবাদিকদের নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয় প্রক্টরের কাছে যান ছাত্রলীগ-কর্মীদের বিচারের জন্য। কিন্তু তারা প্রশাসনের কাছে উল্টো সাংবাদিকদের নামে বিচার চান। এই পরিপ্রেক্ষিতে সাংবাদিকরা উপাচার্যকে বিষয়টি মৌখিকভাবে জানান।

এই বিষয়ে দৈনিক ‘আমাদের অর্থনীতি’ পত্রিকার জবি প্রতিনিধি নুর সোলায়মান ও বিশ্ববিদ্যালয়ের দৈনিক ‘মানবকণ্ঠ’ পত্রিকার প্রতিনিধি সোহায়েল মিয়া সাংবাদিকদের বলেন, তারা এর সুষ্ঠু বিচার চান, যাতে এ রকম ঘটনা আর না ঘটে।

এ প্রসঙ্গে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর ড. অশোক কুমার সাহা  বলেন, “ছাত্রলীগ নামধারী এই ক্যাডাররা বিভিন্নভাবে বাসে কমিটি বানায়, যা বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনকে জানায় না।”

প্রসঙ্গত, গত ৩০ মে বিকেলে ক্যাম্পাস থেকে ফেরার পথে স্বপ্নচূড়া বাসে করে যাওয়ার সময় বাসের নিচতলায় দাঁড়ানো নিয়ে ছাত্রলীগের কর্মীদের সঙ্গে সাংবাদিকদের কথা-কাটাকাটি হয়। পরে  সাংবাদিক পরিচয় পেয়ে  ছাত্রলীগের কর্মীরা তাদের পেটান। এ ঘটনায় বিশ্ববিদ্যালয়ের দৈনিক ‘মানবকণ্ঠ’,‘আমাদের অর্থনীতি’ ও রেডিও আমার-এর প্রতিনিধি আহত হন।

জবি উপাচার্য অধ্যাপক ড. মীজানুর রহমান বলেন, “আমরা প্রশাসনিকভাবে ব্যবস্থা নেব।”


সম্পাদনা: শামীম ইবনে মাজহার,নিউজরুম এডিটর

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।