প্রধান বিচারপতির পরিবর্তে স্পিকার কর্তৃক রাষ্ট্রপতিকে শপথ দেয়ার বিধানের বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে হাইকোর্টে রিট

সংবিধানের পঞ্চদশ সংশোধনীতে প্রধান বিচারপতির পরিবর্তে স্পিকার কর্তৃক রাষ্ট্রপতিকে শপথ দেয়ার বিধানের বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে হাইকোর্টে রিট দায়ের করা হয়েছে। রিটে রাষ্ট্রপতির শপথ সংক্রান্ত সংবিধানের তৃতীয় তফসিল ৫৩ (ক) অনুচ্ছেদকে কেন সংবিধান পরিপন্থী ও বাতিল ঘোষণা করা হবে তা জানতে চেয়ে রুল জারির আবেদন করা হয়েছে। মঙ্গলবার সুপ্রিমকোর্টের আইনজীবী ড. ইউনুছ আলী হাইকোর্টের সংশ্লিষ্ট শাখায় রিটটি দায়ের করেন।

রিটে আইন মন্ত্রণালয়ের সচিব, মন্ত্রিপরিষদ সচিব, জাতীয় সংসদ সচিবালয় সচিব ও জাতীয় সংসদের স্পিকারকে বিবাদী করা হয়েছে।

আবেদনে বলা হয়, স্বাধীনতার পর থেকে রাষ্ট্রপতি প্রধান বিচারপতির কাছে শপথ গ্রহণ করতেন। কিন্তু এবার জাতীয় সংসদের স্পিকার রাষ্ট্রপতি আব্দুল হামিদকে শপথবাক্য পাঠ করিয়েছেন। অথচ ১৯৭২ সালের মূল সংবিধানে রাষ্ট্রপতিকে শপথবাক্য পাঠ করানোর দায়িত্ব ছিল প্রধান বিচারপতির। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানসহ এ পর্যন্ত ১৬ জন রাষ্ট্রপতিকে প্রধান বিচারপতি শপথবাক্য পাঠ করিয়েছেন।  কিন্তু ২০১১ সালের ৩০ জুন পঞ্চদশ সংশোধনীর মাধ্যমে তৃতীয় তফসিলের ১৪৮ অনুচ্ছেদের শপথ ও ঘোষণায় সংশোধনী আনা হয়। এই সংশোধনীতে প্রধান বিচারপতির বদলে স্পিকারকে রাষ্ট্রপতির শপথের দায়িত্ব দেয়া হয়। এর আগে সংবিধানে ১৪ বার সংশোধনী আনা হয়। কিন্তু কোনো সময়ই সংবিধানের এই বিধানে কোনো সরকার হাত দেয়নি।

সংবিধানের ৫৩(ক) অনুচ্ছেদে রাষ্ট্রপতিকে স্পিকার কর্তৃক শপথ দেয়া সংবিধান ও আইনবহির্ভূত। এই অনুচ্ছেদের মাধ্যমে সংবিধানের মৌলিক কাঠামোর প্রতি আঘাত করা হয়েছে বলে রিটকারী আইনজীবী দাবি করেন।

প্রসঙ্গত ভারত, পাকিস্তান ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রসহ গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রসমূহে প্রধান বিচারপতি রাষ্ট্রপতিকে শপথবাক্য পাঠ করান।


সম্পাদনা: শামীম ইবনে মাজহার,নিউজরুম এডিটর

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।