সরকার জনগণের ভোটের অধিকার জনগণের হাতে ফিরিয়ে দিয়েছে: প্রধানমন্ত্রী

আওয়ামীলীগ সভানেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, তার সরকার জনগণের ভোটের অধিকার জনগণের হাতে ফিরিয়ে দিয়েছে। শনিবার গণভবনে রংপুর জেলা আওয়ামী লীগের তৃণমূল নেতাকর্মীদের সঙ্গে এক মতবিনিময় সভায় এ কথা বলেন। বর্তমান সরকারের আমলে অনুষ্ঠেয় নির্বাচনকে দৃষ্টান্ত হিসেবে তুলে ধরে শেখ হাসিনা দাবি করেন, একমাত্র আওয়ামী লীগই বাংলাদেশে সুষ্ঠু নির্বাচন করতে পারে। বিরোধী দলের উদ্দেশ্যে অভিযোগ করে তিনি বলেন, ক্ষমতায় থাকতে বিএনপি জনগণকে বাদ দিয়ে নিজেদের কল্যাণ করেছে। আর এখন বিরোধী দলে থেকে দেশের বিরুদ্ধে নানা রকম ষড়যন্ত্র করছে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদে পবিত্র কোরআন শরীফ পোড়ানো হলো। এটি কারা করেছে, ওই বিএনপি-জামায়াতের লোকেরাই তো করেছে। যদিও তারা হেফাজতের কাঁধে বন্দুক রেখে এই কাজ করেছে। বিএনপি-জামায়াত যত কোরআন শরীফ পুড়িয়েছে, পৃথিবীর ইতিহাসে এতো কোরআন শরীফ আগে পোড়েনি। মানুষকে ধোকা দেয়া, মানুষের সঙ্গে নানা রকম ষড়যন্ত্র করাই তাদের চরিত্র।

বিগত সাড়ে চার বছরে দেশে সত্যিকারের উন্নয়ন হয়েছে দাবি করে তিনি বলেন, চারটি সিটি করপোরেশনে বিএনপি জিতেছে। এরপর তারা আবার কি করে বলে, আওয়ামী লীগের অধীনে অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন হয় না, হবে না? এর অর্থ, মিথ্যা বলাই তাদের অভ্যাস। মানুষকে ধোকা দেয়ায় তাদের কাজ।

শেখ হাসিনা বলেন, একমাত্র আওয়ামী লীগেরই এই সাহস আছে, অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন দেয়ার। কাজেই আমি বিরোধীদলীয় নেতাকে বলব- আপনি গণতন্ত্রের পথে আসেন। পৃথিবীর বিভিন্ন গণতান্ত্রিক দেশে যেভাবে নির্বাচন হয়, সেভাবেই নির্বাচন হবে। অবশ্যই এই নির্বাচন অবাধ, সুষ্ঠু এবং নিরপেক্ষ হবে।

তিনি বলেন, নির্বাচন অবাধই হবে। কারণ জনগণের ভোট চুরি করার ইচ্ছা আওয়ামী লীগের কোনোকালে ছিল না, এখনো নেই। বিএনপির মতো ভোট চোরদের কাছ থেকে জনগণের ভোটের অধিকার আমরা জনগণের হাতেই ফিরিয়ে দিয়েছি।

মতবিনিময় সভায় প্রধানমন্ত্রী দলকে মজবুত করতে এবং সরকারের সাফল্য জনগণের মাঝে তুলে ধরতে তৃণমূল নেতা-কর্মীদের প্রতি আহ্বান জানান।


সম্পাদনা: শামীম ইবনে মাজহার,নিউজরুম এডিটর

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।