পটুয়াখালীতে অপহরণের তিন দিন পর টুম্পার মৃতদেহ উদ্ধার

অপহরণের তিন দিন পর পটুয়াখালীর গলাচিপায় সাড়ে তিন বছরের শিশু সানজিদা আক্তার টুম্পার মৃতদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। মঙ্গলবার রাত ১০টায় বাড়ির পাশের গভীর জঙ্গল থেকে মৃতদেহ উদ্ধার করে বুধবার সকালে ময়নাতদন্তের জন্য পটুয়াখালী মর্গে পাঠানো হয়। এ পর্যন্ত কোনো আসামি গ্রেফতার করতে পারেনি পুলিশ।

এ বিষয়ে গলাচিপা থানায় মামলার প্রক্রিয়া চলছে বলে জানা গেছে। পুলিশ ও এলাকাবাসী জানান, উপজেলার বাহের গজালিয়া গ্রামের হুমায়ুন প্যাদা ও নূপুর বেগমের শিশু কন্যা টুম্পা। টুম্মপার বাবা-মা দুজনেই ঢকায় চাকরি করেন। গ্রামের বাড়িতে সাড়ে তিন বছরের মেয়ে সানজিদা আক্তার টুম্পা দাদির কাছে থাকত।
গত ২২ জুন দাদি রাসেদা বেগম প্রতিবেশী পারুলের সঙ্গে তার বাবার বাড়ি রতনদী-তালতলী ইউনিয়নের নিমের হাওলা গ্রামে বেড়াতে যান।
রাত সাড়ে আটটার দিকে টুম্পাকে বিছানায় রেখে দাদি ফিরে এসে দেখেন টুম্পা নেই। অনেক খুঁজেও টুম্পাকে পাওয়া যায়নি। পরদিন অপহরকারীরা টুম্পার মুক্তিপণের জন্য মোবাইলে পাঁচ লাখ টাকা দাবি করে। বিষয়টি পুলিশকেও জানানো হয়। এর তিন দিন পর মঙ্গলবার রাতে টুম্পার মৃতদেহ পাওয়া যায়।
হত্যাকারীদের এখন পর্যন্ত  পুলিশ শনাক্ত করতে পারেনি বলেও জানিয়েছেন গলচিপা থানার ওসি জিয়াউল হক।
ওসি নতুন বর্তাকে বলেন, “আমরা ওইদিন থেকে শিশুটিকে উদ্ধার ও অপহরণকারীদের গ্রেফতারের চেষ্টা করে যাচ্ছি। কিন্তু শেষ পর্যন্ত শিশুটিকে জীবিত উদ্ধার করতে পারা গেল না। তবে অপহরণকারী যারাই হোক খুব অল্প সময়ের মধ্যে আমরা তাদের গ্রেফতার করে আইনের আওতায় আনতে সক্ষম হবো।”


সম্পাদনা: শামীম ইবনে মাজহার,নিউজরুম এডিটর

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।