দেশের অর্থনীতি ভালো হলে বিনা খরচে শিক্ষা সরকারের বিবেচনাধীন : প্রধানমন্ত্রী

দেশের অর্থনীতি ভালো হলে আগামীতে বিনা খরচে পুরো শিক্ষা জীবন শেষ করার বিষয়টি সরকারের বিবেচনাধীন রয়েছে বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। রবিবার নিজ কার্যালয়ে স্নাতক ও সমমান পর্যায়ের মেধাবী ছাত্রীদের উপবৃত্তি কর্মসূচির উদ্বোধনকালে তিনি একথা বলেন। এই কর্মসূচির আওতায় ১ লাখ ৩৩ হাজার ৭২৬ জন দরিদ্র ও মেধাবী ছাত্রীকে উপবৃত্তি দেবে সরকার। এতে বছরে খরচ হবে ৭৫ কোটি ১৫ লাখ টাকা, যা প্রধানমন্ত্রীর শিক্ষা সহায়তা ট্রাস্টের মাধ্যমে পারিচালিত হবে।

উদ্বোধনী বক্তৃতায় প্রধানমন্ত্রী জানান, এখন শুধু মেয়েদের উপবৃত্তি দেয়া হলেও আগামীতে ছেলেদেরও উপবৃত্তি দেয়া হবে। তিনি বলেন, অর্থের অভাবে কেউ যেন উচ্চ শিক্ষা থেকে বঞ্চিত না হয় সেজন্যই এই ট্রাস্ট গঠন করা হয়েছে।

১৫ জন ছাত্রীর হাতে উপবৃত্তি তুলে দিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, অর্থনীতি ভালো হলে আগামীতে শিক্ষা পুরো ফ্রি করে দেব। বাবা-মাকে আর চিন্তা করতে হবে না। আমি মনে করি শিক্ষা হলো বিনিয়োগ।

দারিদ্র দূর করে বিশ্বের বুকে আমাদের মাথা উঁচু করে দাঁড়াতে হলে সৈনিক দরকার উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘দারিদ্রের বিরুদ্ধে জয়ী হতে হলে আমার সৈনিক দরকার। এই সৈনিক হবে শিক্ষিত জনগোষ্ঠী।’

বিরোধী দলের প্রতি অভিযোগ করে শেখ হাসিনা বলেন, ১৯৯৬ সালে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার পর শিক্ষার উন্নয়নে বিভিন্ন উদ্যোগ নিলেও বিএনপি সরকার তা বন্ধ করে দেয়।

তিনি বলেন, ‘তাই এ কার্যক্রমকে উন্নয়ন বাজেট নির্ভর না করে আমরা একটি ট্রাস্ট ফান্ডের মাধ্যমে অর্থায়নের সিদ্ধান্ত নিয়েছি। এই লক্ষ্যে প্রধানমন্ত্রীর শিক্ষা সহায়তা ট্রাস্ট গঠন করা হয়েছে। ১ হাজার কোটি টাকার সিডমানি দিয়ে এই ফান্ডের কার্যক্রম শুরু করা হয়েছে।’

শিক্ষা ট্রাস্ট ফান্ডের দেয়া অনুদানের টাকা আয়কর মুক্ত জানিয়ে বিত্তশালীদের এই ফান্ডে বেশি অনুদান দেয়ারও আহ্বান জানান প্রধানমন্ত্রী।

অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন- শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ, পরিকল্পনামন্ত্রী একে খন্দকার, শিক্ষা সচিব কামাল আবদুল নাসের চৌধুরী, শিক্ষা সহায়তা ফান্ডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ইকবাল খান চৌধুরী ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিক প্রমুখ।


সম্পাদনা: শামীম ইবনে মাজহার,নিউজরুম এডিটর

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।