ফেনীতে কিশোরীকে অপহরণ পাচারকালে পালিয়ে আত্মরক্ষা,আটক ২

ফেনী শহরতলীর পাঁচগাছিয়া ইউনিয়নের বিজয়সিংহ গ্রামের ১৪ বছরের এক কিশোরীকে পাচার করতে কৌশলে অপহরণ করে দূর্বত্তরা। এক সপ্তাহ ধরে আটক রাখার পর ওই কিশোরী পালিয়ে আত্মরক্ষা পায়। এ ঘটনায় জড়িত অপহরণ চক্রের ২ জনকে সোমবার আটক করে আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়।

পুলিশ ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, ২২ জুন দুপুরে মাছ ধরার কথা বলে বাড়ি থেকে ওই কিশোরীকে ডেকে নেয় পাশ্ববর্তী বাড়ির অপহরণকারী খালেদ মাহমুদ মিলন (২৮) ও পাঁচগাছিয়া ফরজে আলী ব্যাপারী বাড়ীর মাহফুজুর রহমান (৩০)। তারা তৎসংলগ্ন কবরস্থানের পাশ্বে পূর্ব থেকে রাখা সিএনজি ট্যাক্সিতে জোরপূর্বক উঠিয়ে ফেনী নিয়ে আসে। তারা পাচার করতে না পেরে পরবর্তীতে শহরের একটি আবাসিক বাসায় পতিতা হিসেবে বিক্রি করে দেয়। সেখানে তার উপর চলে পাশবিক নির্যাতন। এক পর্যায়ে ওই কিশোরী শনিবার কৌশলে বাসা থেকে পালিয়ে বাড়ি চলে যায়। সে বিষয়টি বাবা-মা কে জানালে তারা বিষয়টি স্থানীয় ইউপি সদস্য ইকবাল আলমকে জানিয়ে অভিযুক্ত মিলন ও মাহফুজের নাম প্রকাশ করে। ইকবাল বিষয়টি সমাধান করতে না পেরে ইউপি চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেন মানিককে অবহিত করে। মানিক চেয়ারম্যান স্থানীয় মেম্বার ও গণ্যমান্য ব্যক্তিদের উপস্থিতিতে মিলন ও মাহফুজকে ইউনিয়ন পরিষদে ডেকে এনে গতকাল সোমবার দুপুরে ফেনী মডেল থানায় খবর দেয়। খবর পেয়ে এস আই গোলাম হাক্কানী ঘটনাস্থল থেকে অভিযুক্ত দু’জন সহ কিশোরীকে থানায় নিয়ে আসে।

কিশোরীর পিতা শহিদ জানান, তার মেয়েকে মিলন ডেকে নিয়ে অপহরণ করে বিক্রির চেষ্টা চালায়। বিক্রি করতে না পেরে এক সপ্তাহ ধরে আটক রেখেছে। মঙ্গলবার রাত সাড়ে ৯ টা পর্যন্ত শহীদ বাদী হয়ে একই এলাকার করিমুল হকের ছেলে খালেদ মাহমুদ মিলন ও পাঁচগাছিয়ার আবদুল খালেকের ছেলে মো: মাহফুজুর রহমান সহ কয়েকজনকে অজ্ঞাত আসামী করে মানবপাচার আইনে ফেনী মডেল থানায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।
এস আই গোলাম হাক্কানী জানান, মেয়েটিকে পাচার করতে অপহরণ করা হয়েছে। পাচার করতে না পেরে পতিতালয়ে বিক্রি করে তারা টাকা নেয়। যে বাসায় আটক রাখা হয়েছে ওই বাসা, বাসার মালিক ও ঘটনায় জড়িতদের খুঁজতে পুলিশ অভিযান চালাচ্ছে বলে তিনি জানান।
এ প্রসঙ্গে পাঁচগাছিয়া ইউপি চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেন মানিক জানান, অভিযুক্তরা মৌখিকভাবে ঘটনার সত্যতা স্বীকার করায় তাদেরকে পুলিশে সোপর্দ করা হয়েছে।


সম্পাদনা: শামীম ইবনে মাজহার,নিউজরুম এডিটর

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।