ফেনীতে সন্ত্রাসীরা বেপরোয়া

পবিত্র মাহে রমজান ও ঈদুল ফিতর কে সামনে রেখে ক্রমেই বেপরোয়া হয়ে উঠেছে সন্ত্রাসীরা। সরকারি দলের নেতাদের যোগসাজশে প্রতিনিয়ত চুরি, ডাকাতি, ছিনতাই, চাঁদাবাজী চালিয়ে যাচ্ছে নির্বিঘেœ। এসবের একটি অংশ পুলিশ প্রশাসনের পকেটে যাওয়ায় তারা দেখেও না দেখার ভান করছে বলে অভিযোগ রয়েছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, জেলা শহর সহ প্রত্যন্ত অঞ্চলে একের পর এক ডাকাতি, ছিনতাই, চাঁদাবাজী ঘটে চলেছে। গত ক’দিন আগে শহরের এসএসকে রোডের গাজী হোটেলের নীচে ভূইয়া এন্ড সন্স-২ অভিনব কায়দায় চুরি হয়। চোর দল নগদ টাকা ও মোবাইল ফোন সহ প্রায় ২০ লাখ টাকার মালামাল নিয়ে যায়। ঘটনার দুইদিন পর পুলিশ সন্দেহভাজন ৪ জনকে আটক করলেও কোন তথ্য উদ্ঘাটন করতে পারেনি।

বৃহস্পতিবার রাতে দাগনভূঞা পৌর শহরের কৃষ্ণরামপুর গ্রামে কাতার প্রবাসী জামাল উদ্দিনের বাড়িতে হানা দেয় ডাকাতদল। ডাকাতদল প্রবাসীর ঘর থেকে ৩০ ভরি স্বর্ণ, নগদ প্রায় ৫০ হাজার টাকা সহ ২০ লাখ টাকার মালামাল নিয়ে যায়। একই রাতে শহরের ষ্টেশান রোডের সুপার মার্কেটে একটি দোকানে দুর্ধর্ষ ডাকাতি হয়। সেখান থেকে নগদ টাকা ও মালামাল লুট করে নিয়ে যায় দূর্বৃত্তরা।

ফেনী সরকারি কলেজের এক ছাত্রীকে অপহরণ করে রামগড় নিয়ে যায় দূস্কৃতিকারীরা। তাকে আটকে রেখে মুক্তিপণ আদায় করতে অপহরণ করা হয়েছে বলে পুলিশ জানায়। স্থানীয়দের সহযোগিতায় পুলিশ তাকে উদ্ধার করে। বুধ ও বৃহস্পতিবার মাদক ব্যবসার নিয়ন্ত্রন ও মাদকের টাকার ভাগভাটোয়ারা নিয়ে একাডেমীতে যুবলীগের কয়েক গ্র“পের মধ্যে দফায় দফায় ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া ও সংঘর্ষ হয়। এতে শহরের উত্তরাঞ্চল বিরিঞ্চি, একাডেমী, হাংকার, বারাহীপুর, সদর হাসপাতাল মোড় এলাকায় উদ্বেগ-উৎকন্ঠা ও আতংক বিরাজ করছে। ইতিমধ্যে শহরের বিভিন্ন পাড়া-মহল্লা ও অলি-গলিতে সন্ধ্যার পর নেমে আসে ছিনতাই আতংক। ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ও অফিস থেকে বাসায় ফেরার পথে ছিনতাইকারীদের কবলে পড়েন অনেকে।

ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের মহিপাল, কুমিল্লা বাস স্ট্যান্ড, সদর হাসপাতাল মোড় সহ বাসস্ট্যান্ডগুলোতেও মলম পার্টির উপদ্রব বেড়ে গেছে। রমজানকে সামনে রেখে আমদানী নিষিদ্ধ ভারতীয় ও মায়ানমারের পণ্য চোরাচালানীও বেড়েছে ব্যাপক হারে। বৃহস্পতিবার পুলিশ লাইনে জেলা পুলিশের প থেকে মতবিনিময় সভা করা হলেও এসব প্রতিরোধে তেমন কোন ভূমিকা চোখে পড়ছে না। এতে করে সাধারণ ব্যবসায়ী ও জনসাধারণের মাঝে আতংক বিরাজ করছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক শহরের এক ব্যবসায়ী জানান, এসব ঘটনায় ফেনীর আইনশৃঙ্খলা হ-য-ব-র-ল পরিস্থিতি বিরাজ করছে।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।