কক্সবাজারে কোটি টাকায় মহজোটের গুণকীর্তণ সভা

কক্সবাজারে গত ৭ জুলাই রবিবার অনুষ্টিত হয়ে গেলো মহাজোট সরকারের উন্নয়নের সাফল্য তুলে ধরে জনসভা! সরকারের পক্ষে হলেও জেলা বা উপজেলা পর্যায়ের কোন আওয়ামীলীগ নেতা সেখানে উপস্থিত ছিলেন না। জনসভায় প্রধান অথিতি ছিলেন আওয়ামীলীগের কোন পদে না থাকা ও গত নির্বাচনে মহাজোট মনোনীত প্রার্থী ও হলমার্ক কেলেংকারী ঘটনায় সোনালী ব্যাংক পরিচালক পদ থেকে অপসারিত সাইমুম সরওয়ার কমল। কক্সবাজার ও রামু বাসীর আয়োজনে প্রচার করা হলেও এর মুল আয়োজক ছিলেন কমল নিজেই।
কক্সবাজার সিনেমা হল রোডস্থ বঙ্গবন্ধু সড়কে আজ বিকাল ৪টায় শুরু হয় জনসভা। রামু ও কক্সবাজার সদরের বিভিন্ন স্থান থেকে স্বেচ্ছাসেবকলীগের নেতাকর্মী ও কিছু খেটে খাওয়া মানুষ বিভিন্ন যানবাহন যোগে জনসভায় যোগ দেন। যাদের অধিকাংশ আওয়ামীলীগ রাজনীতির সঙ্গে সম্পৃক্ত নয়।
বিকাল ৪টা ১০ মিনিটে শুরু হয় অথিতিদের আসন গ্রহণ। সভাপতিত্ব করেন এক সময়ের আওয়ামীলীগ জাতীয় কমিটির সদস্য মুক্তিযোদ্ধা কামাল হোসেন চৌধুরী। মঞ্চে আসন গ্রহণ করেন শহর স্বেচ্ছা সেবকলীগ, সাবেক ছাত্রলীগ নেতা সহ বিভিন্ন পর্যায়ের নেতা। সভায় প্রধান অথিতি ছিলেন গত নির্বাচনে মহাজোট সমর্থিত প্রার্থী ও সোনালী ব্যাংকের সাবেক পরিচালক সাইমুম সরওয়ার কমল। অন্যান্য রাজনৈতিক নেতা ও সামাজিক নেতৃবৃন্দ বক্তব্য রাখেন। জনসভায় মহাজোট সরকারের উন্নয়নের সাফল্য তুলে ধরার পাশাপাশি কমল আসন্ন জাতীয় নির্বাচনে আবারও জনগণের সমর্থন কামনা করেন সাইমুম সরওয়ার কমল।
বাংলাদেশ সোনালী ব্যাংকের সাবেক পরিচালক এই কমল হলমার্ক কেলেংকারীতে জড়িয়ে পড়ে ওই পদটিও হারান। এর প্রভাবে কেন্দ্রীয় স্বেচ্ছাসেবক লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক পদে থাকলেও তাকে এবারের কমিটিতে সদস্য পদটিও দেয়া হয়নি। গত জাতীয় নির্বাচনে বিশাল ভোটের ব্যবধানে বিএনপি প্রার্থী লুৎফুর রহমান কাজলের কাছে পরাজিত হন।
তার নিজ এলাকা কক্সবাজারের রামু উপজেলা আওয়ামীলীগ কমিটিতেও তিনি নেই। এমনকি আওয়ামীলীগ কিংবা সহযোগী সংগঠনের কোন কমিটিতে তাকে সদস্য হিসেবেও রাখা হয়নি। বর্তমানে তিনি একজন সাধারণ আওয়ামীলীগ সমর্থক। একে একে তিনি সব হারিয়েছেন। এলাকা থেকে অনেকটা জনবিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েন তিনি। এরপরেও বর্তমান ক্ষমতাসীন দলের উন্নয়নের সাফল্য নিয়ে জনসভা করলেও  আওয়ামীলীগের কোন ডাক সাইডের নেতা কিংবা জেলা আওয়ামীলীগের কোন নেতা কর্মী ওই জনসভায় উপস্থিত ছিলেন না। কমলের ব্যক্তিগত আয়োজনে উক্ত জনসভায় প্রায় কোটি টাকা ব্যয় হয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন অনেকে। এব্যাপারে সাইমুম সরওয়ার কমলের মোবাইল ফোনে একাধিকবার চেষ্টা করা হলেও তিনি মোবাইল রিসিভ করেননি। আজ সারাদিন শহরের বিভিন্ন জায়গায় অফিস আদালতের লোকজনকে কমলের এই বহুল আলোচিত জনসভাকে মহাজোট সরকারের উন্নয়নের জনসভা না বলে হলমার্কের টাকায় কমলের ব্যায়বহুল জনসভা বলতে বেশী শুনা গেছে।


সম্পাদনা: শামীম ইবনে মাজহার,নিউজরুম এডিটর

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।