ফেনীতে ৯ কোটি টাকা নিয়ে আত্মগোপনে প্রতারণার বরপুত্র কামাল

অধিক মুনাফার লোভ দেখিয়ে বিনিয়োগের কথা বলে সাধারণ মানুষের কাছ থেকে নেয়া প্রায় ৯ কোটি টাকা নিয়ে গা ঢাকা দিয়েছে দাগনভূঞা উপজেলার মাতুভূঞা ইউনিয়নের মমারিজপুর গ্রামের একেএম জাহিদুল কামাল। সে শহরের ট্রাংক রোডে হাকিম্স এর কর্মচারী ছিল।
ক্ষতিগ্রস্তরা জানিয়েছে, ২০০৩ সালে শহরের পশ্চিম উকিলপাড়ায় আফিয়া এন্টার প্রাইজের নামে নামীদামী কয়েকটি কসমেটিকস্ কোম্পানীর (কিউট, এলিট, ইন্ডিয়ান ডাবর, চায়না হারবাল) ডিলারশীপ নিয়ে ব্যবসা শুরু করে কামাল। শহর ও তার নিজ এলাকার সাধারণ মানুষকে অধিক মুনাফারা লোভ দেখিয়ে বিনিয়োগের কথা বলে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নেয়। প্রতি লাখে ২ থেকে ৩ হাজার টাকা লভ্যাংশ দেয়ার লোভ দেখিয়ে ফাঁদে পেলে। সাধারণ মানুষের পাশাপাশি এনসিসি ব্যাংক ফেনী শাখা থেকে ৪০ লাখ টাকা ঋণ নেয়। শনিবার রাতে ব্যাংক কর্তৃপক্ষ র‌্যাব ও পুলিশের সহায়তায় তার গুদামের মালামাল জব্দ করে। গত ২ মাস যাবত সাধারণ মানুষের লভ্যাংশ না দেয়ায় বিনিয়োগকারীরা তার প্রতিষ্ঠানে ভীড় জমায়। বিনিয়োগকারীরা তাদের আমানতের টাকা ফেরত দেয়ার দাবী জানালে ২০ জুন কামাল গা ঢাকা দেয়। এদিকে তার পরিবারের সদস্যরাও আত্মগোপন রয়েছে। বিনিয়োগকারীদের ধারনা, কামাল স্বপরিবারে রাজশাহীর শ্বশুর বাড়ীতে আত্মগোপন করে আছে।
ক্ষতিগ্রস্ত শেখ ফরিদ শিমুল জানান, নুর টিম্বারের মালিক নুর মোহাম্মদের ১ কোটি টাকা, মমারিজপুর গ্রামের আবু তাহের গং ২৫ লাখ টাকা, একই এলাকার মোহাম্মদ আলী বাচ্চুর ২৫ লাখ টাকা সহ নিকটাত্মীয়, ব্যবসায়ী ও সাধারণ মানুষের কাছ থেকে প্রায় ৯ কোটি টাকা নিয়ে পালিয়ে যায়।
এ ব্যাপারে একেএম জাহিদুল কামালকে (০১৭১৩২৬৫৭৫৪/০১৮১৬১১৩৪৬৩) নাম্বারে দুপুরে বারবার যোগাযোগের চেষ্টা করেও পাওয়া যায়নি।
বিনিয়োগকারীরা তার বিরুদ্ধে মামলার প্রস্তুতি নিচ্ছে বলে জানা গেছে।


সম্পাদনা: শামীম ইবনে মাজহার,নিউজরুম এডিটর

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।