সিরাজগঞ্জে ৭ জামায়াত নেতাকর্মী গ্রেপ্তার

সিরাজগঞ্জের বেলকুচি উপজেলার ধুকুরিয়াবেড়া ইউনিয়নের জামায়াত অধ্যুষিত আলোচিত কল্যাণপুর গ্রামে পুলিশ অভিযানে সাত জামায়াত-শিবিরকর্মীকে গ্রেফতার করা হয়েছে।
গ্রেফতারকৃতরা হলেন, বেলকুচির দাড়িয়াপুর গ্রামের জমির উদ্দিনের ছেলে জাকারিয়া হোসেন (২৪), কল্যাণপুরের আবুল মোল্লার ছেলে আলতাফ হোসেন (৬৫), সারটিয়া নতুনপাড়ার আবু তাহের পটলের ছেলে শাহিন আলম (২৪), বওড়া গ্রামের ঈমান আলীর ছেলে আবদুর রশিদ (৫০), কল্যাণপুর গ্রামের একটি ভাড়া বাসায় বসবাসকারী কুড়িগ্রাম জেলার কুমারখালী উপজেলার কমলপুর গ্রামের আজাহার শেখের ছেলে ফরিদুল ইসলাম (২১), রৌমারী উপজেলার অহেদনগর এলাকার হরফ আলীর ছেলে জাহিদুল ইসলাম বিজু (২২), একই উপজেলার চরগেন্দার আলগা গ্রামের পাষান আলীর ছেলে শরিফ হোসেন (২১)।

মঙ্গলবার গভীর রাতে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোক্তার হোসেন ও শাহজাদপুর সার্কেলের এএসপি জিল্লুর রহমানের নেতৃত্বে একদল পুলিশ এ অভিযান চালায়। আটকদের মধ্যে আবদুর রশিদকে বেলকুচি থানায় এবং নিরাপত্তার স্বার্থে বাকিদের সিরাজগঞ্জ সদর থানা পুলিশের হেফাজতে রাখা হয়েছে।

বেলকুচি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আবদুল হাই জানান, সিরাজগঞ্জের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সুভাষ চন্দ্র সাহা, মোক্তার হোসেন, শাহজাদপুর সার্কেলের সহকারী পুলিশ সুপার জিল্লুর রহমানসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের নেতৃত্বে জেলা পুলিশের একটি দল রাত দেড়টায় কল্যাণপুর গ্রামে অভিযান চালায়।

পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে জামায়াত-শিবিরকর্মীরা কান্দাপাড়া বাজার থেকে কল্যাণপুর পর্যন্ত রাস্তায় গাছের গুঁড়ি ফেলে অবরোধ সৃষ্টি করে। এ সময় পুলিশকে প্রতিরোধ করার জন্য এই্ এলাকার দুই শতাধিক লোক মিছিল বের করে। তারা পুলিশকে লক্ষ্য করে কয়েকটি ককটেলের বিস্ফোরণ ঘটায়। এ সময় পুলিশ তাদের ধাওয়া দিলে তারা পালাতে থাকে। পালানোর সময় পুলিশের হাতে সাতজন আটক হয়।

আটক কুড়িগ্রামের নেতাকর্মীদের বিষয়ে ওসি বলেন, “বহিরাগতরা এ এলাকায় অবস্থান করে বিভিন্ন সময়ে নাশকতা করে আসছিল। আটকদের নাশকতা ও পুলিশের কাছে বাধা প্রদানের বিষয়ে পুলিশের দায়ের করা মামলায় আটক দেখানো হয়েছে।”


সম্পাদনা: শামীম ইবনে মাজহার,নিউজরুম এডিটর

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।