মিশরের নির্বাচিত প্রেসিডেন্ট মুরসিকে যুক্তরাষ্ট্রের অর্থে উৎখাত

মিশরে সম্প্রতি সেনা অভ্যুত্থানে দেশটির প্রথম নির্বাচিত গণতান্ত্রিক প্রেসিডেন্ট মোহাম্মদ মুরসিকে ক্ষমতাচ্যুত করার ঘটনায় যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা বলেছিলেন, ‘যুক্তরাষ্ট্র কারো পক্ষ নেয়নি।’

তবে মার্কিন ফেডারেল সরকারের বেশ কিছু নথিতে দেখা গেছে, মিশরে মুরসিবিরোধী নেতাদের অর্থ সহায়তা দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। আর নির্বাসিত সাবেক পুলিশ কর্মকর্তারা সহিংস বিক্ষোভের মাধ্যমে মুরসিকে ক্ষমতাচ্যুত করার পরিকল্পনা করে।

অনুসন্ধানী প্রতিবেদনে দেখা যায়, মধ্যপ্রাচ্যে গণতন্ত্রের উন্নয়নে স্টেট ডিপার্টমেন্টের ডেমোক্রেসি অ্যাসিস্টেন্ট তহবিলের অধীনে এই অর্থসহায়তা দেওয়া হয়। সাবেক স্বৈরশাসক হোসনি মোবারককে ক্ষমতাচ্যুত করার পর ২০১১ সালের ফেব্রুয়ারি থেকে এই অর্থসহায়তা পেয়ে আসছে মুরসিবিরোধী রাজনীতিক ও তাদের অনুগতরা।

তবে মিশরের আইনে এই ধরনের বিদেশি অর্থসহায়তা নেওয়া বেআইনি। একই সঙ্গে জনগণের ট্যাক্সের টাকা থেকে এ ধরনের অর্থসহায়তার অনুমোদন দেওয়া যুক্তরাষ্ট্রের আইনেও নেই।

মূলত আরব বসন্তের পর মধ্যপ্রাচ্যে ইসলামপন্থীদের উত্থান ঠেকাতে এবং যুক্তরাষ্ট্রের অনুগত সেক্যুলারিস্টদের ফের ক্ষমতায় আনার জন্য ‘ডেমোক্রেসি অ্যাসিস্টেন্স’ তহবিলের অধীনে যুক্তরাষ্ট্র এই অর্থ সহায়তা দেয়।

 

খবর আল- জাজিরা


সম্পাদনা: শামীম ইবনে মাজহার,নিউজরুম এডিটর

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।