ফেনীতে সবজি বাজারে আগুন! ক্রেতারা দিশেহারা

সারা দেশের ন্যায় ফেনীতে রোজা শুরু হতে না হতে শহরসহ জেলার বিভিন্ন হাট-বাজারে সকাল থেকে কাঁচামরিচ, টমেটো, বেগুনসহ বিভিন্ন সবজি বাজারে আগুণ ধরেছে। এতে প্রতি কেজিতে ১০ থেকে ৭০ টাকা পর্যন্ত বেড়েছে। এতে করে সাধারন ক্রেতারা দিশেহারা হয়েছে পড়েছে। তবে ছোলা ও সয়াবিন তেলের দাম স্থিতিশীল রয়েছে।

সরেজমিনে ঘুরে দেখা যায়, ফেনী শহরের কাঁচাবাজারে রোজার আগের দিন ১৬০ টাকা কেজির কাঁচামরিচ বিক্রি হচ্ছে ২০০ টাকা, ৯০ টাকার টমেটো বিক্রি হচ্ছে ১৩০ টাকা, ৩০ টাকার বেগুন ৭০ টাকা বিক্রি হচ্ছে। কিন্তু জেলার বাইরের হাট-বাজারগুলোতে এর চেয়েও বেশি দামে বিক্রি হচ্ছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। ছাগলনাইয়া পৌরসভার জমাদ্দার বাজার ঘুরে দেখা যায়, কাঁচা মরিচ প্রতি কেজিতে ১৬০টাকা থেকে বেড়ে বিক্রি হচ্ছে ২১০টাকায়, কেজিতে ৭০টাকা বেড়ে টমেটো বিক্রি হচ্ছে ১৩০টাকা, ৩০টাকা বেড়ে বেগুন ৭০টাকায়, ৩০টাকা বেড়ে খিরা-শসা ৬৫টাকায়,  বরবটি ১০টাকা বেড়ে ৫৩ টাকায়, করলা ৩টাকা বেড়ে ৩০টাকা, ২টাকা বেড়ে আলু বিক্রি হচ্ছে ১৭টাকা, পটল ১০টাকা বেড়ে ৩৫টাকা, চাল কুমড়া ৮টাকা বেড়ে ২৪টাকা, কচুর ছড়া ৫টাকা বেড়ে ৩০টাকায় বিক্রি হচ্ছে । ডিমের হালিতে ৫টাকা বেড়ে ৩৫টাকা,  প্রতি কেজি তেলাপিয়া মাছে ৩০টাকা বেড়ে ২০০টাকা, মাঝারি রুই মাছে ১০-২০টাকা বেড়ে ২০০-২২০টাকা, ব্রয়লার মুরগী কেজিতে ১৫টাকা বেড়ে ১৪০টাকা, লেয়ার মুরগি ২৫টাকা বেড়ে ১৮৫টাকা হয়েছে । গরুর মাংসের দাম না বেড়ে আগের ১৮০টাকা এবং খাসির মাংস ৪০০-৪৫০টাকায় বিক্রি হচ্ছে । পেঁয়াজের কেজিতে ২৫টাকা বেড়ে ৪৪টাকা, আদা কেজিতে ৩৫টাকা বেড়ে ১০০টাকায় বিক্রি হয় । মোটা চাল, পারিসহ বিভিন্ন প্রকারের চালের দাম ৫০কেজি বস্তায় ১০০-১৫০ টাকা বেড়েছে । মুড়ি কেজিতে ১০টাকা বেড়ে ৬০টাকায় বিক্রি হচ্ছে । তবে সয়াবিন তেলের লিটারে ৩টাকা কমে ১৩০টাকায় বিক্রি হচ্ছে, ছোলাবুটের দাম আগের মতো ৬০টাকায় রয়েছে ।

রমজানের আগমন উপলক্ষে শুকবার সকাল থেকে বাজারে অন্য দিনের চেয়ে ব্যাপক ক্রেতা সমাগম ঘটে । কাঁচা মরিচ, টমেটো, শসা, খিরা, বেগুন , পেঁয়াজ, আদাসহ বিভিন্ন সবজির দাম আগের দিনের চেয়ে হঠাৎ অস্বাভাবিকভাবে বেড়ে যাওয়াকে কর্তৃপরে বাজার মনিটরিংয়ের অভাবকে দায়ী করেছেন ক্রেতারা । তাদের মতে অসাধু ব্যবসায়ীদের কারসাজিতে জিনিসপত্রের এ অস্বাভাবিক দাম বেড়েছে। তবে স্থানীয় ব্যবসায়ীরা  পাইকার থেকে বেশী দামে পণ্য সামগ্রী কেনার কারণে এ দাম বৃদ্ধির ঘটনা ঘটেছে বলে দাবি করেছেন ।

ফেনী শহর ব্যবসায়ী সমিতির পক্ষ থেকে প্রত্যেক দোকানে দ্রব্য মূল্যের তালিকা লাগানোর কথা থাকলেও অনেক দোকানে তা নেই। দোকানীরা নিজেদের ইচ্ছামত ক্রেতাদের কাছ থেকে দাম নিচ্ছেন বলে অভিযোগ রয়েছে।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।