চাঁদপুরে সর্বাত্মক হরতাল পালন করায় জনগণকে আন্তরিক অভিনন্দন জামায়াতের

জামায়াতে ইসলামীর কেন্দ্রীয় মজলিশে শুরার অন্যতম সদস্য, প্রবীন রাজনীতিবিদ, চাঁদপুর জেলা আমীর এ এইচ আহমদ উল্যাহ মিয়া বলেছেন সরকার জামায়াতকে নিশ্চিহ্ন করার উদ্দেশ্যে ষড়যন্ত্রমূলক ভাবে একের পর এক মিথ্যা মামলায় সাজা দিয়ে রাজনৈতিক প্রতিহিংসা চরিতার্থ করার জন্যে উঠে পড়ে লেগেছে।

সরকার নীলনক্সার মাধ্যমে মিথ্যা কাল্পনিক ও বায়বীয় অভিযোগ রচনাকরে জামায়াত নেতৃবৃন্দের বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ এনে দলীয় ট্রাইব্যুনালে প্রহসনের বিচার মঞ্চস্থ করছে। জনসমর্থন না পেয়ে সাহাবাগে নাস্তিক ব্লগারদের সমাবেশ ঘটিয়ে ফাঁসির দাবী তোলা হচ্ছে।

স্বয়ং প্রধানমন্ত্রী সমাবেশের দাবী বিবেচনায় নিয়ে রায় প্রদানের জন্য বিচারপতিদের দৃষ্টি আকর্ষণ করে বক্তব্য রাখেন। মন্ত্রী-এমপিগণ জামায়াত নেতৃবৃন্দের ফাঁসির দিন তারিখ নির্ধারণ করে বক্তব্য রাখেন। সেই তারিখেই দু’টি মামলার রায় ঘোষিত হয়। এসব থেকে স্পষ্ট প্রমানিত হয় সরকারের নির্দেশিত দিকে ও নীলনক্সা অনুযায়ী ট্রাইব্যুনালের বিচার কাজ চলছে। সরকার নিজেদের দূর্নীতি ও ব্যর্থতা ঢাকতে জুডিশিয়াল ফিলিং এর চক্রান্ত করছে। জনগণ প্রহসনের রায় কখনো মেনে নিবেনা। ১৯৭৩ সালে তৎকালীন সরকার ১৯৫ জন পাকিস্তানি যুদ্ধাপরাধী সেনা কর্মকর্তার বিচারের জন্য ই আইনটি করেছিল।

কিন্তু দীর্ঘ ৪০ বছর পর শুধুমাত্র রাজনৈতিক প্রতিহিংসাবশত জামায়াত নেতৃবৃন্দকে নিশ্চিহ্ন করার উদ্দেশ্যে ঐ আইনে নিজেদের মনগড়া সংশোধনী এনে মৌলিক অধিকার, মানবাধিকার ও সাংবিধানিক অধিকার হরণ করে জামায়াত নেতৃবৃন্দের বিচার করছে। অধ্যাপক গোলাম আযম বাংলাদেশের ভাষা সৈনিক। এদেশের সকল গণতান্ত্রিক আন্দোলনে রয়েছে তার ঐতিহাসিক ভূমিকা। সব কিছু বিসর্জন দিয়ে শুধু মাত্র জামায়াতকে প্রশ্নবিদ্ধ করাই যেন সরকারের একমাত্র কাজে পরিণত হয়েছে। সরকারের এসব অপকর্ম, দূর্নীতি, জুলুম, নির্যাতনের বিরুদ্ধে এখনই রুখে দাঁড়াতে হবে। পবিত্র রমযান মাসে রায় ঘোষণার তারিখ নির্ধারণ করেছে জামায়াতকে প্রশ্নবিদ্ধ করার জন্য। কিন্তু এদেশের ইসলাম প্রিয় জনতা রোযা রেখে বদরযুদ্ধের চেতনায় গতকাল সারাদেশ ব্যাপী সকাল-সন্ধ্যা হরতাল পালন করে সরকারের অপকর্ম ও দুঃশাসনের বিরুদ্ধে ধিক্কার জানিয়েছে।

রাষ্ট্রীয় বাহিনীর হাতে গতকাল ৪ জামায়াত-শিবির নেতা হত্যার তীব্র নিন্দা জানান এবং সরকারের জুলুম, নির্যাতনের বিরুদ্ধে গণ আন্দোলন অব্যাহত রাখার আহ্বান জানান। এক বিবৃতিতে জেলা আমীর সারাদেশের ন্যায় চাঁদপুরে সর্বাত্মক হরতাল পালন করায় জনগণকে আন্তরিক অভিনন্দন ও মোবারকবাদ জানান।একই সাথে প্রহসনের ট্রাইব্যুনাল ভেঙ্গে দিয়ে এদেশের জনপ্রিয় জামায়াত নেতৃবৃন্দকে নিঃশর্ত মুক্তি দেয়ার জন্য সরকারের প্রতি উদাত্ত আহ্বান জানান।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।