কারমাইকেল কলেজের শিক্ষার্থীদের সড়ক অবরোধ

শনিবার দুপুরে অনার্স প্রথম বর্ষ ভয়াবহ ফল বিপর্যায় রোধে অবিলম্বে রেজাল্ট সংশোধন করা অটো প্রমোশন চালু এবং আয়াজন ছাড়া সৃজনশীল পদ্ধতি বাতিলের দাবিতে কারমাইকেল কলেজের শিক্ষার্থীরা নগরীর লালবাগে এক ঘণ্টা সড়ক অবরোধ ও বিক্ষোভ মিছিল সমাবেশ করেছে।

অবরোধ চলাকালে নেতারা বলেন, “জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় ২০০৯-১০ শিক্ষাবর্ষে হঠাৎ করেই অনার্স রেগুলেশন পরিবর্তন করে ব্যাচেলর অনার্স ডিগ্রি ২০১০ চালু করার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে এবং সৃজনশীল পদ্ধতি চালু করে। অথচ এ নিয়ম চালুর পূর্বে ২১০ দিন কাস বাধ্যতামূলক, পর্যাপ্ত শিক নিয়োগ ও তাদের প্রশিণের ব্যবস্থা না করে এই নিয়ম চালু করলে ফল বিপর্যয় ঘটবে। এরই ধারাবাহিকতায় গত ১৪ জুলাই অনার্স প্রথম বর্ষের পরীক্ষার ফলাফলে শতকরা ৫০-৬০ ভাগ শিক্ষার্থী অকৃতকার্য হয়েছে।”

এ সময় বক্তব্য দেন- সমাজতান্ত্রিক ছাত্রফ্রন্ট কলেজ শাখার সভাপতি রেদওয়ানুল ইসলম বিপুল, জেলা সভাপতি আহসানুল আরেফিন তিতু, কলেজ শাখার সাধারণ সম্পাদক আবু রায়হান বকসী, ছাত্র ইউনিয়ন কলেজ সাধারণ সম্পাদক ভূবন রায়, ছাত্রফ্রন্ট নেতা আব্দুল মালেক, শিার্থীদের মধ্যে সুদ্বীপ সরকার রাজ, রণজিত রায়, তুহিন, বিলাস, লিটন প্রমূখ।

অনুসন্ধানে জানা গেছে, কারমাইকেল কলেজে ইংরেজি বিভাগে ৩০৪ জনের মধ্যে ১৩০ জন, গণিতে ২৬৩ জনের মধ্যে ৭৫ জন, হিসাব বিজ্ঞান ২৭০ জনের মধ্যে ৯৫ জন, ব্যবস্থাপনা ২৩২ জনের মধ্যে ১২৮ জন, ফিন্যান্স বিভাগে ৬৫ জন শিার্থীর মধ্যে ২৪ জন, মার্কেটিং বিভাগে ৬৫ জনের মধ্যে ২৭ জন, বাংলায় ২৪২ জনের মধ্যে ১২৬ জন অকৃতকার্য হয়েছে। এরকম ভাবে প্রত্যেক বিভাগে ফল বিপর্যয় ঘটেছে যা শিক্ষার্থীদের হতাশ ও ুব্ধ করেছে।


সম্পাদনা: শামীম ইবনে মাজহার,নিউজরুম এডিটর

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।