মঙ্গলবার, অক্টোবর 26, 2021
মঙ্গলবার, অক্টোবর 26, 2021
মঙ্গলবার, অক্টোবর 26, 2021
spot_img
Homeরাজনীতিসংসদ কবে নাগাদ ভাঙবে তা প্রধানমন্ত্রীর ইচ্ছার ওপর নির্ভর: সুরঞ্জিত

সংসদ কবে নাগাদ ভাঙবে তা প্রধানমন্ত্রীর ইচ্ছার ওপর নির্ভর: সুরঞ্জিত

সংবিধান মোতাবেক বর্তমান নবম জাতীয় সংসদ কবে নাগাদ ভাঙবে তা প্রধানমন্ত্রীর ইচ্ছার ওপর নির্ভর করছে বলে জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষেদের সদস্য ও দফতরবিহীন মন্ত্রী সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত।

তিনি বলেন, “সংসদ কবে ভাঙবে সংবিধানে এই এখতিয়ার দেয়া হয়েছে প্রধানমন্ত্রীর ওপরে। ১২৩ এর (ক) ও (খ) এর মধ্যে কোন ধারা তিনি বেছে নেবেন সেটা তার সিদ্ধান্তের ওপরই নির্ভর করছে। তিনি চাইলে মেয়াদ উত্তীর্ণ হবার ৯০ দিন আগে সংসদ ভেঙে দেয়ার জন্যে রাষ্ট্রপতিকে আহ্বান করতে পারেন। আবার তিনি চাইলে সংসদের মেয়াদ উত্তীর্ণ হওয়ার পরেও সংসদ ভেঙে দেওয়ার আহ্বান জানাতে পারেন। সংসদ নেতা হিসেবে তিনিই এই সিদ্ধান্ত নেবেন।”

সোমবার দুপুরে রাজধানীর ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার্স ইনিস্টিটিউট মিলনায়তনে নৌকা সমর্থক গোষ্ঠী আয়োজিত এক আলোচনা সভায় সুরঞ্জিত এসব কথা বলেন।

প্রসঙ্গত, সংবিধানের ১২৩ এর ক ও খ ধারাতে বলা হয়েছে, ‘সংসদ সদস্যদের সাধারণ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হইবে মেয়াদ অবসানের কারণে সংসদ ভাঙিয়া যাইবার ক্ষেত্রে ভাঙিয়া যাইবার পূর্ববর্তী নব্বই দিনের মধ্যে।’ একই অনুচ্ছেদের ৩(খ)তে বলা হয়েছে, ‘মেয়াদ অবসান ব্যতীত অন্য কোনো কারণে সংসদ ভাঙিয়া যাইবার ক্ষেত্রে ভাঙিয়া যাইবার পরবর্তী নব্বই দিনের মধ্যে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হইবে ।’

সুরঞ্জিত সেন বলেন, “প্রধানমন্ত্রীর সিদ্ধান্তের ওপরই নির্ভর করছে বর্তমান সংসদের মেয়াদ অক্টোবরে শেষ হবে নাকি জানুয়ারিতে শেষ হবে।”

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য এমকে আনোয়ারের বক্তব্যের সমালোচনা করে সুরঞ্জিত বলেন, “কোনো চালাকি নয়, সংবিধান অনুযায়ি প্রধানমন্ত্রী তার ক্ষমতা প্রয়োগ করবে কি করবেন না সেটা তার সিদ্ধান্ত। আমরা কোনো চালাকি করি না। এটা বিএনপির অভ্যাস। মওদুদ সাহেব জজদের মেয়াদ দুই বছর বাড়ানোর জন্যে সংবিধান সংশোধন করেছিলেন। কিন্তু আমরা কোনো তুচ্ছ কারণে সংবিধান সংশোধন করিনি।”

গণমাধ্যমের সংবাদের বস্তুনিষ্ঠ নিয়ে প্রশ্ন তুলে তিনি বলেন, “বর্তমানে গণমাধ্যমগুলো সত্য সংবাদের মিথ্যা সংবাদটাকে বেশি প্রাধান্য দিচ্ছে। এতে জনগণের মধ্যে বিভ্রান্তি ছড়াচ্ছে।”

এসময় গণমাধ্যমকে সত্য সংবাদ প্রকাশের আহ্বান জানিয়ে আওয়ামী লীগের এ নেতা বলেন, “গণমাধ্যম রাষ্ট্রের চতুর্থ স্তম্ভ। সরকারি দলও গণমাধ্যমের সাহায্যে জনগণের কাছে যায়, বিরোধী দলও জনগণের কাছে যায় গণমাধ্যমের সাহায্যে।”

আলোচনা সভায় আরো বক্তব্য দেন গণতন্ত্রী পার্টির সাধারণ সম্পাদক নুরুর রহমান সেলিম, জাসদ নেতা মীর আক্তার হোসেন, মহানগর আওয়ামী লীগের সহসভাপতি ফয়েজ উদ্দিন মিয়া প্রমুখ।


সম্পাদনা: শামীম ইবনে মাজহার,নিউজরুম এডিটর

RELATED ARTICLES
- Advertisment -spot_img

Most Popular

Recent Comments