সোমবার, অক্টোবর 18, 2021
সোমবার, অক্টোবর 18, 2021
সোমবার, অক্টোবর 18, 2021
spot_img
Homeজেলাঅভিযোগের আঙুল মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার হান্নানের দিকে ছাগলনাইয়ায় ৪৫ লাখ টাকার উন্নয়ন কাজে...

অভিযোগের আঙুল মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার হান্নানের দিকে ছাগলনাইয়ায় ৪৫ লাখ টাকার উন্নয়ন কাজে অনিয়ম

ছাগলনাইয়া পৌরসভার ৪৫ লাখ টাকার উন্নয়নমূলক কাজে অনিয়মের অভিযোগ পাওয়া গেছে। স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদফতর উপজেলা শহর উন্নয়ন প্রকল্পের (ইউটিআইডিপি) আওতায় ২০১২-১৩ অর্থবছরের জন্য ৪৫ লাখ টাকা বরাদ্দ দেওয়া হয়। এরপর পশ্চিম ছাগলনাইয়া ৫ নম্বর ওয়ার্ডের আবদুর রাজ্জাক সড়কের একপাশে ৭৫৫ মিটার খোলা ড্রেন নির্মাণের জন্য দরপত্র আহ্বান করা হয়। নিয়মতান্ত্রিকভাবে আওয়ামী লীগ নেতা মীর আবদুল হান্নানের ফার্ম হান্নান কনস্ট্রাকশন কাজটি পায়। ১২০ দিনের মধ্যে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের কাজ শেষ করার বাধ্যবাধকতা রয়েছে; কিন্তু মেয়াদ উত্তীর্ণ হওয়ার মাত্র কয়েকদিন বাকি থাকলেও ৪০ ভাগ কাজও শেষ হয়নি। এ ছাড়া ড্রেনটি নির্মাণে মীর আবদুল হান্নান নিম্নমানের সামগ্রী ব্যবহার করেছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। ইতিমধ্যে ১৩ লাখ টাকার রানিং বিল উত্তোলন করে নিয়েছেন তিনি। সড়কটির এজিন থেকে ৩ ফুট বাদ দিয়ে ভেতরের দিকে করার নিয়ম থাকলেও পৌরসভার জায়গা পার্শ্ববর্তী মালিকদের কাছে ছেড়ে দেওয়ার অভিযোগও উঠেছে ঠিকাদারের বিরুদ্ধে। ঠিকাদার কাজ শুরুর আগে ৭৫৫ মিটার জায়গা থেকে বুলডোজার দিয়ে মাটি ওঠানোর ফলে রাস্তা ভেঙে বিশাল গর্ত তৈরি হয়েছে। এ গর্তে প্রতিনিয়ত ঘটছে দুর্ঘটনা। এতে বর্ষায় পুরো এলাকার ২০ হাজার মানুষকে অবর্ণনীয় দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। এ রাস্তা দিয়ে স্কুল, কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রছাত্রীসহ সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের হাজার হাজার লোকজন প্রতিনিয়ত চলাফেরা করে। স্যুয়ারেজসহ বাসা-বাড়ির ময়লা-আবর্জনার পানিতে সয়লাভ এ রাস্তাটি। দুর্গন্ধে পথচলা ও বসবাস করা দায় হয়ে পড়েছে। এ অবস্থায় এলাকাবাসী কয়েকবার পৌর কার্যালয়ে গিয়ে মেয়রকে অবরুদ্ধ করে ঠিকাদারের শাস্তি দাবি করে।
কম টাকায় কাজ উঠিয়ে নিতে ঠিকাদার এ পর্যন্ত চার গ্রুপ সাব-ঠিকাদারকে (মিস্ত্রি) তাড়িয়ে দিয়েছে বলে পৌর সচিব আবদুল হাই জানান। ঠিকাদার হান্নানের বিরুদ্ধে কথা বলার সাহস কারও নেই বলে তিনি জানান। করণ তিনি মুক্তিযোদ্ধা ও আ’লীগের সিন্ডিকেট নেতার সহযোগী। ছাগলনাইয়া পৌরসভার প্রকৌশলী জহিরুল ইসলাম জানান, পৌরসভার লোকজন কাজে গেলে হান্নান তাদের গালাগাল করেন। তিনি বন্ধের দিনে কাজ করেন। এতে পৌরসভার কাজের ব্যত্যয় ঘটে। মীর আবদুল হান্নান সব অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, যথাসময়ে কাজ শেষ করে দেওয়া হবে। তিনি উল্টো অভিযোগ করেন, অবৈধ দেয়াল ভাঙা, পানি নিষ্কাশন, বাড়ি মালিকদের রাস্তার ওপর অবৈধভাবে নির্মিত স্যুয়ারেজের ট্যাঙ্ক অপসারণ এবং ড্রেনের ওপর থাকা পল্লী বিদ্যুতের খুঁটি ও থানার দেয়াল ভাঙার ব্যাপারে পৌরসভা কোনো সহযোগিতাই করছে না।
ছাগলনাইয়া পৌরসভার মেয়র মো. আলমগীর জানান, ঠিকাদারকে সব সহযোগিতা দেওয়ার পরও তিনি কাজে গাফিলতি করছেন। অফিস থেকে তাকে চূড়ান্ত নোটিশ দেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়েছে বলে মেয়র মন্তব্য করেন।


সম্পাদনা: শামীম ইবনে মাজহার,নিউজরুম এডিটর

RELATED ARTICLES
- Advertisment -spot_img

Most Popular

Recent Comments