সোমবার, অক্টোবর 18, 2021
সোমবার, অক্টোবর 18, 2021
সোমবার, অক্টোবর 18, 2021
spot_img
Homeআন্তর্জাতিকমার্কিন হামলা শুরু সিরিয়ায় , দাবি রাশিয়ার

মার্কিন হামলা শুরু সিরিয়ায় , দাবি রাশিয়ার

সিরিয়ার ওপর হামলা করা হয়েছে। দাবি করেছে রাশিয়ার প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়। তাদের বক্তব্য, মঙ্গলবার ভূমধ্যসাগরের মধ্য ভাগ থেকে দু’টি মিসাইল ছাড়া হয়। সে দু’টি সিরিয়া ভূখণ্ডেই পড়েছে। তবে এই হামলায় কতটা ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে, প্রাণহানি হয়েছে তা এখনই বলা যাচ্ছে না। রাশিয়ার ইঙ্গিত, ভূমধ্যসাগরে মার্কিন রণতরী সিরিয়া আক্রমণের জন্য ইতোমধ্যেই জড়ো হয়েছে। সেই যুদ্ধ জাহাজ থেকেই এই মিসাইল হামলা হয়েছে বলে মনে করা হচ্ছে।

রাশিয়ার সরকারি সংবাদমাধ্যম আরআইএ এই খবর জানিয়েছে। রাশিয়ার দাবি, ক্ষেপণাস্ত্র নিক্ষেপণের বিষয়টি তাদের রাডারে ধরা পড়েছে।

এক দিকে যখন রাশিয়ার প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের তরফে আক্রমণের কথা বলা হচ্ছে, অন্য দিকে তখনই সিরিয়ায় রাশিয়ান দূতাবাসের দাবি, দামাস্কাসে মিসাইল আক্রমণের কোনো চিহ্ন পাওয়া যায়নি।

এদিকে ইসরাইলও দাবি করেছে, ভূমধ্যসাগরের পূর্বাঞ্চলে মিসাইল আক্রমণের কোনো ঘটনার খবর তাদের কাছে নেই। জেরুজালেমে সেনার এক মুখপাত্র বলেন, আমরা জানি না যে এমন কোনো ঘটনা ঘটেছে।’

ব্যাপক-ভিত্তিক হামলার আভাস
যুক্তরাষ্ট্র সিরিয়ার বিরুদ্ধে এতদিন পর্যন্ত কেবল সীমিত সামরিক হামলা চালানোর কথা বললেও এখন ওয়াশিংটন থেকে এমন ইঙ্গিত পাওয়া যাচ্ছে যে প্রেসিডেন্ট ওবামা আসলে সিরিয়ায় আরও ব্যাপক ভিত্তিক সামরিক অভিযানের পরিকল্পনা করছেন।

বলা হচ্ছে, প্রেসিডেন্ট ওবামা যখন সোমবার রিপাবলিকান সেনেটারদের সঙ্গে সিরিয়া পরিস্থিতি নিয়ে কথা বলেন, তখন তিনি এই ব্যাপক অভিযানের আভাস দিয়েছেন।

আমেরিকান সেনাবাহিনীর একজন সাবেক ঊর্ধ্বতন জেনারেল, যিনি রিপাবলিকান সেনেটারদের কাছ থেকে এই বৈঠকের বিস্তারিত জানতে পেরেছেন। তিনি এই তথ্য জানিয়েছেন।

আমেরিকান সেনাবাহিনীর সাবেক এই জেনারেল জ্যাক কিন ২০০৩ সালে মার্কিন সেনাবাহিনী থেকে অবসর নেন। কিন্তু তার সাথে জন ম্যাককেইন এবং লিন্ডজি গ্রেমসহ রিপাবলিকান পার্টির শীর্ষ নেতাদের যথেষ্ট ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক রয়েছে।

হোয়াইট হাউসে প্রেসিডেন্ট ওবামার সঙ্গে এই দুই রিপাবলিকান সিনেটরের আলোচনার পর তার বিষয়বস্তু সম্পর্কে তারা জেনারেল কিনকে অবহিত করেন।

এরপর জেনারেল জ্যাক কিন এক সাক্ষাৎকারে বলেন, প্রেসিডেন্ট ওবামা রিপবালিকান নেতাদের এই বলে আশ্বস্ত করেছেন যে কংগ্রেসের অনুমোদন পেলে যুক্তরাষ্ট্র যে সামরিক অভিযান চালাবে তাতে প্রেসিডেন্ট আসাদের সামরিক বাহিনীর বিপুল ক্ষয়ক্ষতি হবে। প্রেসিডেন্ট ওবামার বক্তব্য সম্পর্কে জেনারেল কিন বলেন তিনি সিরিয়ার বাহিনীকে হঠিয়ে দেবেন এবং দুর্বল করবেন।

তিনি বলেন, ”এখানে গুরুত্বপূর্ণ শব্দটি হলো দুর্বল করে ফেলা অর্থাৎ আসাদ সরকারের সামরিক ক্ষমতা কমিয়ে আনা। প্রেসিডেন্ট একই সঙ্গে ওই দুই সিনেটরকে জানিয়েছেন যে আসাদ সরকারকে দুর্বল করার পাশাপাশি তারা আসাদ-বিরোধী শক্তির হাতকেও সবল করতে সাহায্য করবেন।”

ওয়াশিংটন থেকে বিবিসি সংবাদদাতা জাস্টিন ওয়েব জানাচ্ছেন, অবশ্য এটাও ঠিক যে রিপাবলিকান পার্টির কট্টর যুদ্ধপন্থী নেতারা মার্কিন প্রেসিডেন্টের কাছ থেকে যে কথাটা শুনতে চান মি. ওবামা হয়তো সেই কথাই তাদের বলেছেন।

তবে জাস্টিন ওয়েব বলছেন তারা বিশ্বাস করতে শুরু করেছেন যে হোয়াইট হাউস প্রশাসনের মনোভাব গত ক’দিনে বেশ বদলে গেছে। জেনারেল কিনও সেই কথাই জানাচ্ছেন।

তিনি বলেন, ”তাদের কথা শুনে আমার মনে হচ্ছে প্রেসিডেন্ট যা করতে ইচ্ছুক তার পরিমাপ এবং শক্তি সম্পর্কে জেনে তারা উৎসাহী বোধ করছেন। আমার মনে হয় তারা যা আশা করেছিলেন তার থেকে অনেক বেশি করা হবে বলেই তাদের জানানো হয়েছে।”

কিন্তু সিরিয়ায় মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র যদি সর্বাত্মক হামলা চালাতে যায় তার জন্য প্রেসিডেন্ট ওবামার প্রতি কংগ্রেসের পরিপূর্ণ সমর্থনের প্রয়োজন হবে। আর সে লক্ষ্যেই আগামী সপ্তাহে নির্ধারিত কংগ্রেস ভোটের আগে ওবামা প্রশাসন এখন কংগ্রেস নেতাদের সাথে জোর লবিং করছে বলে জানাচ্ছেন বিবিসির উত্তর আমেরিকা বিষয়ক সম্পাদক মার্ক মার্ডেল।

তিনি বলছেন, ওই ভোটে যদি প্রেসিডেন্ট ওবামার প্রস্তাবটি নাকচ হয়ে যায় তাহলে সেটি হবে তার জন্য এক চরম অপমান এবং লজ্জার বিষয়।

কিন্তু হোয়াইট হাউসের ব্রিফিংয়ের পর রিপাবলিকান নেতারা আশ্বস্ত হয়েছেন বলেই মনে হচ্ছে।

মার্ক মার্ডেল সেনেটার ম্যাকেইনকে জিজ্ঞেস করেছিলেন, শেষ পর্যন্ত তিনি কী হামলা-প্রস্তাবের পক্ষে ভোট দিতে যাচ্ছেন? জবাবে মি. ম্যাকেইন বলেছেন, দুর্বল হামলা চলানোর চেয়ে কোনো হামলা না চালানোই ভালো। সূত্র: সংবাদসংস্থা৷


সম্পাদনা: শামীম ইবনে মাজহার,নিউজরুম এডিটর

RELATED ARTICLES
- Advertisment -spot_img

Most Popular

Recent Comments