শুক্রবার, অক্টোবর 22, 2021
শুক্রবার, অক্টোবর 22, 2021
শুক্রবার, অক্টোবর 22, 2021
spot_img
Homeজেলাদাগনভূঞায় চাঞ্চল্যকর গৃহবধু ইয়াসমিন গুমের ১ মাসেও সন্ধান মেলেনি

দাগনভূঞায় চাঞ্চল্যকর গৃহবধু ইয়াসমিন গুমের ১ মাসেও সন্ধান মেলেনি

ফেনীর দাগনভূঞা উপজেলার রাজাপুর ইউনিয়নের বাতশিরি গ্রামের অবসরপ্রাপ্ত কর্মচারী মকবুল আহমদের মেয়ে ইয়াসমিন আক্তার(২৫)  ১ মাস আগে গুম হলেও এখনও সন্ধান মেলেনি। উপজেলার আজিজ ফাজিলপুর গ্রামের স্বামী আবদুস ছাত্তার মাসুদ (৩৫) ও তার ভগ্নিপতি ফজলুল হককে (৪০) গৃহবধু ইয়াছমিন আক্তার গুমের মামলায় পুলিশ নিজ বাড়ী থেকে গ্রেফতার করলে এখনও কোন ক্লু উদঘাটন করতে পারেনি।
পুলিশ ও ভুক্তভোগী সূত্রে জানা যায়, উপজেলার রাজাপুর ইউনিয়নের বাতশিরী গ্রামের মকবুল আহম্মদের মেয়ে ইয়াসমিন আক্তারের সাথে আজিজ ফাজিলপুর গ্রামের আবদুল বারিকের ছেলে আবদুস ছাত্তার মাসুদের বিয়ে হয় চলতি বছরের ১৫ ফেব্র“য়ারী। দীর্ঘ ৭ মাসের দাম্পত্য জীবনে উভয়ের মাঝে পারিবারিক কলহ চলে আসছিল। গত ৬ আগষ্ট হতভাগিনী গৃহবধু ইয়াছমিন স্বামীর বাড়ী থেকে নিখোঁজ হয়। পরদিন নিখোঁজ গৃহবধুর পিতা মকবুল আহম্মদ মেয়ে নিখোঁজ মর্মে থানায় সাধারণ ডায়েরী করেন। আতœীয়-স্বজন সহ বিভিন্ন স্থানে খোঁজ করে ও না পেয়ে গত মঙ্গলবার পিতা মকবুল আহম্মদ বাদী হয়ে জামাই আবদুস ছাত্তার মাসুদ ও তার পিতা আবদুল বারীক, মাতা হোসনে আরা, বোন শিল্পী ও ভগ্নিপতি ফজলুল হককে আসামী করে নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। মামলা নং- ৫।
মামলার বাদী জানান, এক  লাখ নগদ টাকা ও এক ভরি স্বর্ণ, যৌতুক দিয়ে মেয়েকে বিয়ে দিয়েছি। বিয়ের পর যৌতুকের দাবীতে মেয়েকে প্রায় মারধর করত।
ঘটনার রাত হতে ইয়াসমিনের জীবিত বা মৃত কোন খোঁজ পাচ্ছেনা। ইয়াসমিনের ব্যবহৃত কাপড় ব্লাউজ ও পেটিকোট স্বামীর বাড়ীর পায়খানার টাংকির ভিতর পাওয়া গিয়েছে বলে পুলিশ স্বীকার করেছে। এদিকে মামলার বাদী ইয়াসমিনের পিতা ও ভাইকে মামলা তুলে নেয়ার জন্য অনবরত হুমকি দিচ্ছে বলে মকবুল আহমদ জানান। অবসরপ্রাপ্ত সরকারী কর্মচারী মকবুল আহমদ জানান, অবসরের টাকা দিয়ে মেয়েকে বিয়ে দিয়ে মেয়ের লাশটি পর্যন্ত খুঁজে পেলামনা।
মামলার তদন্ত কারী কর্মকর্তা এস.আই জাকির হোসেন জানান, বিষয়টির ক্লু উদঘাটনের চেষ্টা চলছে। তিনি আরো জানান, ধৃত আসামী ইয়াসমিনের স্বামী আবদুস ছাত্তার মাসুদ ও তার ভগ্নিপতি ফজলুল হককে গত রবিবার আদালতের নির্দেশে ২দিনের রিমান্ডে এনেছেন। তবে এখন পর্যন্ত উল্লেখযোগ্য কোন তথ্য পাওয়া যায়নি।


সম্পাদনা: শামীম ইবনে মাজহার,নিউজরুম এডিটর

RELATED ARTICLES
- Advertisment -spot_img

Most Popular

Recent Comments